উইকেট আশা দেখাচ্ছে মাশরাফিকে

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০১:০৭ পিএম, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

সিরিজ শেষ, শেষ ম্যাচ শুধু আনুষ্ঠানিকতা। তবে টাইগারদের জন্য আগামীকালের ম্যাচের আছে একটা অন্যরকম গুরুত্ব। হারলেই তিন ম্যাচ সিরিজে হোয়াইটওয়াশ। আর কিউইদের হারাতে পারলে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ব্ল্যাক ক্যাপসের বিপক্ষে ঘুচবে কখনও না পারার আক্ষেপ।

সে জয় হবে অনেক মধুর। তাতে সান্ত্বনার পাশাপাশি হোয়াইটওয়াশও এড়ানো যাবে। সেইসঙ্গে একটি নতুন অনুপ্রেরণাও জাগবে-আমরা সিরিজ হারলেও নিউজিল্যান্ডের মাটিতে কিউইদের প্রথমবার হারিয়েছি। সেই মধুর অনুভূতিটা জাগ্রত হবে।

আজ দিবাগত রাত ভোর চারটায় ডানেডিনে সে প্রত্যাশায় মাঠে নামবে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল। ম্যাচের আগে কি ভাবছেন অধিনায়ক মাশরাফি? আজ সকালে প্র্যাকটিস সেশনে মিডিয়ার সামনে নিজের ভাবনা, লক্ষ্য-পরিকল্পনার কথাই জানিয়েছেন টাইগার ক্যাপ্টেন।

নেপিয়ারে সিরিজের প্রথম ওয়ানডের উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য ভালোই ছিল। কিন্তু দল সেই উইকেটেও ২৩২ রানের বেশি করতে পারেনি। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ক্রাইস্টচার্চে তো আরও খারাপ অবস্থা। বাংলাদেশ অলআউট হয় ২২৬ রানে। বরং পরে ব্যাট করা নিউজিল্যান্ডই স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যাট করেছে প্রথম দুই ওয়ানডেতে।

মাশরাফিও মানছেন, নিউজিল্যান্ডের উইকেট ধীরে ধীরে ব্যাটিং সহায়ক হয়। তবে একে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাতে রাজি নন টাইগার অধিনায়ক। তার ভাষায়, ‘নেপিয়ারের উইকেট ব্যাটিংয়ের জন্য ভালো ছিল, তবে কিছুটা সময় গেলে মানিয়ে নেয়া যায়। তবে এসব নিয়ে অজুহাত তোলার উপায় নেই যখন আপনি ২-০তে হেরে গেছেন।’

ডানেডিনে যে উইকেটে খেলা হবে, সেটিও ব্যাটিং সহায়ক হবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে। অতীত পরিসংখ্যান সে কথাই বলছে। মাশরাফি তাই আশাবাদী, দলের ব্যাটিং ব্যর্থতা এবার ঘুচবে।

টাইগার অধিনায়ক বলেন, ‘যতটুকু জানতে পেরেছি, এটা ব্যাটিংয়ের জন্য খুব ভালো উইকেট। আমরা আগে এখানে টেস্ট খেলেছি, ওই ম্যাচে আমরা ভালো ব্যাটিং করি। তবে সেটা ছিল টেস্ট। আমি শুনেছি, ইংল্যান্ড এখানে ৩৪০ করেছিল এবং নিউজিল্যান্ড সেটা ৪৫ ওভারের মধ্যে তাড়া করে ফেলে। তাই আমরা ভালো একটি ব্যাটিং ট্র্যাকই আশা করছি। আমরা এভাবেই ভাবব এবং সেই অনুযায়ী পরিকল্পনা করব।’

আগের দুই ম্যাচেই বাংলাদেশ দলকে ভুগিয়েছে টপঅর্ডারের ব্যাটিং। প্রথম ওয়ানডেতে ৯ ওভারের মধ্যে ৪ উইকেট, দ্বিতীয়টিতে ১২ ওভার পেরুতেই শীর্ষ ৩ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে বসে সফরকারিরা।

মাশরাফির আশা, এবার দলের টপঅর্ডার জ্বলে উঠতে পারবে। তাতে মিডল অর্ডাররা শেষের দিকে নেমে দলের সংগ্রহ বড় করার সুযোগ পাবেন। দলের কাছে তার প্রত্যাশাই যেন ফুটে উঠল পরের কথায়, ‘আশা করছি, কাল ভালো কিছু করতে পারব। আমাদের টপ অর্ডার ভালো ব্যাট করবে এবং মিডল অর্ডার শেষের দিকে নামতে পারবে।’

এআরবি/এমএমআর/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :