যত দ্রুত সম্ভব দেশে ফিরিয়ে আনা হচ্ছে তামিম-মুশফিকদের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১২:৫১ পিএম, ১৫ মার্চ ২০১৯

ক্রাইস্টচার্চের সেন্ট্রাল মসজিদে ভয়াবহ জঙ্গী হামলায় অন্তত ২৭ জন নিহত হওয়া এবং বহু আহত হওয়ার জের ধরে ইতিমধ্যেই বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে বাংলাদেশ এবং নিউজিল্যান্ডের মধ্যকার তৃতীয় টেস্ট ম্যাচটি। আগামীকাল শুরু হওয়ার কথা ছিল এই টেস্ট।

ভয়াবহ এই ঘটনার পর বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বিসিবি। জাগো নিউজকে এ তথ্য জানান, প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু এবং বিসিবির মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমাম।

বাংলাদেশ দলের দেশে ফেরার কথা চলতি মাসের ২১-২২ তারিখের দিকে। সে হিসেবেই বিমানের রিটার্ন টিকেট কাটা রয়েছে ক্রিকেটারদের জন্য। কিন্তু হঠাৎ ভয়াবহ এই ঘটনার কারণে ক্রিকেটারদের ফিরিয়ে আনার বিষয়টাও একটু জটিল হয়ে পড়েছে।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি, যত দ্রুত সম্ভব ক্রিকেটারদের দেশে ফিরিয়ে আনতে। তবে সমস্যা হচ্ছে, এই মুহূর্তে টিকিট এভেইলেবল নয়। তবুও সেখানকার টিম ম্যানেজমেন্ট, বাংলাদেশ হাইকমিশনসহ বিভিন্ন মাধ্যমে আমরা চেষ্টা করছি, টিকিট ম্যানেজ করার। এক সঙ্গে না হলেও, পার্ট বাই পার্ট ক্রিকেটারদের দেশে ফিরিয়ে আনার ব্যবস্থা নিচ্ছি আমরা।’

বিসিবির মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমাম জাগো নিউজকে বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের এই ঘটনায় বিসিবি উদ্বিগ্ন। আমরা পুরো বিষয়টা ঢাকা থেকে মনিটর করছি। ইতিমধ্যেই ক্রাইস্টচার্চ টেস্ট বাতিল করা হয়েছে। ক্রিকেটারদের যত দ্রুত সম্ভব দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে। টিকিট পাওয়ার ভিত্তিতে ভাগ ভাগ করে হলেও দ্রুততার সঙ্গে ক্রিকেটারদের দেশে ফিরিয়ে আনা হবে।’

ক্রাইস্টচার্চে মসজিদ আল নুরে জুমার নামাজের প্রস্তুতি চলছিল তখন। বাংলাদেশের ক্রিকেটাররাও সেখানে জুমার নামাজ পড়ার জন্য উপস্থিত হয়েছিলেন। তবে ক্রিকেটারদের ভাগ্যটা অনেক বেশি ভালো। ৫ মিনিটের জন্যই আল্লাহ মহা সর্বনাশ থেকে বাঁচিয়ে দিয়েছে পুরো বাংলাদেশকে। ওই ৫ মিনিটের হেরফেরেই হয়তো বেঁচে যান তামিম-মুশফিক-রিয়াদরা।

ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হয়েছেন অন্তত ২৭জন মানুষ। যারা সবাই জুমার নামাজ আদায় করার জন্যই মসজিদে উপস্থিত হয়েছিলেন। সেখানে থাকতে পারতেন বাংলাদেশের ক্রিকেটাররাও। কিন্তু নামাজের আগেই হাগলি ওভালে সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়েছিলেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

সংবাদ সম্মেলন শেষ হওয়ার নির্ধারিত সময় ছিল দুপুর দেড়টা। কিন্তু শেষ হয় ১ টা ৩৫ মিনিটে। সেখান থেকে ক্রিকেটাররা যখন মসজিদের সামনে উপস্থিত হন তখন ১ টা ৪০টা। ৫ মিনিট সংবাদ সম্মেলনে বিলম্ব হওয়ার ফলেই আল্লাহর অশেষ কৃপায় বেঁচে গেলেন বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটাররা। ওই ৫ মিনিট বিলম্ব না হলে, হয়তো বা ঘটনার সময় ক্রিকেটাররা থাকতেন মসজিদের ভেতরেই।

ওই ঘটনার পরই আনুষ্ঠানিকভাবে ক্রাইস্টচার্চ টেস্ট বাতিল বলে ঘোষণা করা হয়। বিসিবিও টুইট করে জানায়, তারা সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে নিউজিল্যান্ডে দলের সঙ্গে।

এআরবি/আইএইচএস/এমএস

টাইমলাইন  

আপনার মতামত লিখুন :