তিনটি সিঙ্গেল নিলেন না ধোনি, চেন্নাই হারলো এক রানে

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:৪০ পিএম, ২২ এপ্রিল ২০১৯

ম্যাচের ১৯তম ওভার চলছিল। চেন্নাই সুপার কিংসের অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি সুযোগ পেয়েও তিনটি সিঙ্গেল অগ্রাহ্য করলেন। শেষ পর্যন্ত দেখা গেল, রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর কাছে চেন্নাই হেরেছে মাত্র ১ রানে। দায়টা কি তবে ধোনিরই?

ওই সময় ননস্ট্রাইকে ছিলেন ডোয়াইন ব্রাভো। তিনিও বিগ হিট নিতে পারেন। কিন্তু ধোনি তাকে স্ট্রাইক দিলেন না। এতটুকু জেনে অনেকেই হয়তো ধোনির উপর দোষ চাপিয়ে দিতে পারেন। কেউ হয়তো না বুঝেশুনেই বলে ফেলতে পারেন, বয়স হয়ে গেছে, আগের মতো আর পারেন না ধোনি।

বাস্তবতা কিন্তু ভিন্ন। শেষ দুই ওভারে চেন্নাইয়ের দরকার ছিল ৩৬ রান, শেষ ৬ বলে ২৬। ততক্ষণে অনেকেই ধোনির গোষ্ঠী উদ্ধার করতে শুরু করেছেন। এরপরই দেখা যায় আসল ঝলক। উমেশ যাদবের প্রথম পাঁচ বলে ধোনির ব্যাট থেকে আসে-৪, ৬, ৬, ২, ৬।

এমন অবিশ্বাস্য ব্যাটিংয়ের পর শেষ বলে জয়ের জন্য দরকার ছিল মাত্র ২ রান। টাইয়ের জন্য এক। কিন্তু উমেশ যাদবের অফকাটারটা ব্যাটেই লাগাতে পারলেন না ধোনি। বাই নেয়ার জন্য তবু দৌড় দিয়েছিলেন। অপরপ্রান্তে থাকা শার্দুল ঠাকুর পৌঁছানোর আগেই স্ট্যাম্প ভেঙে দেন উইকেটরক্ষক পার্থিব প্যাটেল। জয়ের আনন্দে মাতে ব্যাঙ্গালুরু।

তীরে এসে ডুবল তরী। ধোনিই জেতানোর মতো অবস্থায় নিয়ে গিয়েছিলেন। কিন্তু আগের ওভারে তার ওই তিনটি সিঙ্গেল না নেয়া নিয়ে কিছুটা আক্ষেপ রয়েই গেছে চেন্নাই সমর্থকদের।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনেও এ নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়তে হলো ধোনিকে। চেন্নাই অধিনায়ক কারণটা ব্যাখ্যা করলেন এভাবে, ‘ডেথে এটা খুব কঠিন ছিল। নতুন ব্যাটসম্যান যে ক্রিজে আসে, তার জন্য এটা আরও কঠিন। যেহেতু আমি অনেকগুলো ডেলিভারি খেলছি। আমাকেই ঝুঁকিটা নিতে হতো, কারণ তখন অনেক রান দরকার ছিল। এখন হয়তো আপনি এক-দুই রানের হিসেব করতে পারছেন। এটা বলা যাচ্ছে, কারণ আমরা এক রানে হেরেছি। কিন্তু আপনাকে এটাও দেখতে হবে, যদি কয়েকটি ডট বল হতো, তবে আমরা বাড়তি বাউন্ডারিগুলো পেতাম কি না।’

এমএমআর/এমএস