‘বিশ্বকাপে নিজেকে নতুনভাবে চেনাতে চাই’

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:০৩ পিএম, ২৩ মে ২০১৯

ছিলেন ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে, দলে জায়গা পেয়েছিলেন মূলতঃ পেস বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে। অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের মাটিতে একজন পেস বোলিং অলরাউন্ডার দরকার হবে- ভেবেই পেস বল করতে পারা মারকুটে ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকারকে নেয়া হয়েছিল দলে।

সে যাত্রায় পেস বোলিং করতে হয়নি তাকে, খেলেছেন টপঅর্ডারেই। ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে দুটি ভালো ইনিংস খেলে দলকে এনে দিয়েছিলেন শক্ত ভিত। সেই সৌম্যই এবার বিশ্বকাপে পালন করবেন বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যানের ভূমিকা। অভিজ্ঞ ওপেনার তামিম ইকবালের সঙ্গে মিলে দলকে ঝড়ো শুরু এনে দেয়ার দায়িত্বটা থাকবে সৌম্যর কাঁধেই।

নিজের দায়িত্বের কথা বেশ ভালোভাবেই জানেন বাঁ-হাতি এ ড্যাশিং ব্যাটসম্যান। দেশে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের শেষ দুই রাউন্ডে দেখিয়েছেন বড় ইনিংস খেলার টেম্পারমেন্ট। প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ‘লিস্ট এ’ ক্রিকেটে করেছেন ডাবল সেঞ্চুরি। আয়ারল্যান্ডে পরপর তিন ফিফটি হাঁকিয়ে প্রমাণ করেছেন বিরুদ্ধ কন্ডিশনে ভালো করার সামর্থ্য রয়েছে তার। এবার বিশ্বকাপেও নিজের আগের ভুলগুলো শুধরে প্রত্যাশানুযায়ী ব্যাট করার পরিকল্পনাই মনে মধ্যে এঁকেছেন সৌম্য।

Soummay-1

বিশ্বকাপের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়ার আগে বলে গেলেন নিজের স্বপ্নের কথা। সৌম্য বলেন, ‘এটা আমার দ্বিতীয় বিশ্বকাপ। অবশ্যই আগে থেকে এবার প্রত্যাশাটা বেশি। আগে যে ভুলটা করেছি সেটা এবার করা যাবে না। আগের তুলনায় এবার বিশ্বকাপে নিজেকে নতুন করে চেনাতে চাই। সেই আত্মবিশ্বাসটাও তৈরি হয়েছে এবার। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের শেষ দুইটা ম্যাচে যে অ্যাপ্রোচ, স্টাইল ও টেকনিক মেনে ব্যাটিং করেছি, তাতে আমি সন্তুষ্ট। বড় ইনিংস খেলার কারণে, নিজের ব্যাটিংয়ে মনে হয়েছে এটা ঠিক আছে। আমি সেই অ্যাপ্রোচ ও অ্যাপ্লিকেশন রাখতে চাই। সুযোগ পেলে দলের প্রয়োজন মেটানোর সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো।’

সৌম্য নিজের কাজ ঠিকঠাক করতে পারলে তার ফল কেমন হয়, সেটা দেখা গেছে ২০১৫ সালে পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজে। সবশেষ আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালসহ তার খেলা সবকয়টি ম্যাচেই ইনিংসের শুরুতে শক্ত ভিতটা গড়ে দিয়েছেন এ বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যান। বিশ্বকাপেও তার কাছ থেকে এমন কিছুরই প্রত্যাশায় থাকবে দল।

এসএএস/আইএইচএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :