হতাশ ইংল্যান্ড, বাজে ফিল্ডিংকে কাঠগড়ায় আনলেন মরগ্যান

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৩৯ এএম, ০৪ জুন ২০১৯

শেষ ২১ ম্যাচে ঘরের মাঠে কোনো ম্যাচ হারেনি ইংল্যান্ড। এর মধ্যে ১৮টি ছিল জয়, ১টি টাই এবং বাকি ২ ম্যাচ পরিত্যক্ত। সেই ইংল্যান্ডকে তাই বিশ্বকাপের মঞ্চে তাদেরই মাঠে হারিয়ে দেয়া চাট্টিখানি কথা না। তবে এই অসাধ্যটিই সাধন করেছে গায়ে সবসময় 'আনপ্রেডিক্টেবল' তকমা জড়িয়ে রাখা পাকিস্তান। 

গতকাল (সম্মবার) রানের স্বর্গভূমি খ্যাত ট্রেন্ট ব্রিজে বিশ্বকাপের আয়োজকদের ১৪ রানে হারিয়েছে পাকিস্তান। প্রথমে ব্যাট করে স্কোরবোর্ডে ৩৪৮ রান জমা করে হাফিজ-সরফরাজরা। যা তাড়া করতে নেমে ৩৩৪ রান থামে ইংলিশদের রানের চাকা।   

একের পর জয়, অন্যদিকে ঘরের মাঠে বিশ্বকাপ- প্রায় সবাই ধরে নিয়েছিল এবারের বিশ্বকাপ উঠছে ক্রিকেটের জনকদের হাতেই। কিন্তু কে ভেবেছিল প্রথম পর্বেই পাকিস্তানের কাছে হেরে থ্রি-লায়ন্সরা? যারা কিনা আবার এর আগে ম্যাচে মাত্র ১০৫ রানের মধ্যে গুটিয়ে গিয়েছিল। কেউ হয়তো ভাবেনি, তাই সন্দেহাতীতভাবে এই ম্যাচে দিয়ে এবারের বিশ্বকাপের প্রথম আপসেট দেখল ক্রিকেট বিশ্ব। 

তো হার নিয়ে কী ভাবছেন ইংলিশ অধিনায়ক এউইন মরগ্যান? হট- ফেভারিটের তকমা কি একটু বেশিই চাপে ফেলে দিলো তাদের? মরগ্যান অবশ্য তা মনে করেন না, 'আমি মনে করি এটা সেরকম খারাপও একটা দিন ছিল। আমরা হয়তো মাঠে সেরা পারফরম্যান্স থেকে একটু দূরে ছিলাম। কিন্তু সে কারণেই  অতিরিক্ত ১৫-২০ রান হয়েছে। ওয়ানডে ক্রিকেটে যা অনেক। আমরা সকল প্রস্তুতি সেরে রেখেছিলাম। তবে ফিল্ডিং খুব বাজে হয়েছে আমাদের। যদিও এটা খুব বেশি আমাদের সঙ্গে ঘটে না। এরকম ভুল আমরা সহজে করিও না। সুতরাং, এটা হতাশাজনক।'  

সত্যিই গতকাল মাঠে এক অপরিচিত ইংল্যান্ডকে দেখেছে ক্রিকেট বিশ্ব। মোহাম্মদ হাফিজ ১৪ রানের মাথায় জীবন পান। আর সেটাকে কাজে লাগিয়ে পরে ইনিংস সর্বোচ্চ ৮৪ রান করেন তিনি। যেটা গড়ে দিয়েছে ম্যাচের ভাগ্য। এ ছাড়াও দলের সেরা ফিল্ডার জো রুটও ওভার থ্রোতে রান দিয়েছে।  

এদিকে ইংল্যান্ডের পরবর্তী ম্যাচ কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে বাংলাদেশের বিপক্ষে। দক্ষিণ আফ্রিকাকে প্রথম ম্যাচে হারিয়ে দিয়ে বাংলাদেশও আছে এখন তুমুল ছন্দে। তবে এ ম্যাচ দিয়েই ঘুরে দাঁড়ানোর ব্যাপারে আশাবাদী মরগ্যান, 'আমরা জানি ফর্মুলা হিসেবে আমাদের জন্য কী কাজ করবে। আমাদেরকে নিশ্চিত করতে হবে যে, আমাদের ভুল থেকে শিখতে হবে এবং কার্ডিফে ঘুরে দাঁড়াতে হবে।

এসএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :