লর্ডসেও বিদ্রুপের শিকার স্মিথ-ওয়ার্নার

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:১২ পিএম, ২৫ জুন ২০১৯

আজকের দিনটার জন্যই যেন এতো দিন অপেক্ষা করেছিল ইংল্যান্ডের সমর্থকগোষ্ঠী ‘বার্মি আর্মি’। কেননা চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী অস্ট্রেলিয়ার দুই ক্রিকেটার স্টিভেন স্মিথ এবং ডেভিড ওয়ার্নারকে দুয়ো দেয়ার মোক্ষম সময় যে আর পাবে না তারা!

হোম অব ক্রিকেটে আজ টস হেরে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আগে ব্যাট করতে নামে অস্ট্রেলিয়া। দলের হয়ে ওপেন করতে নামেন অধিনায়ক অ্যারোন ফিঞ্চ এবং বল টেম্পারিংয়ের কারণে নিষেধাজ্ঞা থেকে ফেরা ওয়ার্নার। যতক্ষণ পর্যন্ত তারা ব্যাটিং করেছেন ততক্ষণ পর্যন্ত তাদেরকে দুইয়ে দিতে থাকেন ইংলিশ সমর্থকরা। গ্যালারি থেকে স্মিথ-ওয়ার্নারদের নামে চলতে থাকে বিদ্রুপ।

দুয়ো’র ভারটা বেশিরভাগই পড়তে থাকে ওয়ার্নারের উপর। তবে এই দুয়োর জবাবগুলো মাঠের মধ্যে থেকেই দিতে থাকেন এই বামহাতি ব্যাটসম্যান। ব্যক্তিগত অর্ধশত রান পূর্ণ হওয়ার পর ইংলিশ সমর্থকদের দিকে তাকিয়ে হাসি দিয়ে সেই দুয়োর জবাব দেন তিনি। তাতে একটুর জন্য হলেও চুপ হয়ে যায় ‘বার্মি আর্মি’র সদস্যরা।

কিন্তু স্মিথ অস্ট্রেলিয়ার হয়ে ব্যাটিং করতে নামলে আবারো দুয়ো দেয়া শুরু করে ইংলিশ সমর্থকরা। তবে বিদ্রুপের কথাগুলো কানে না নিয়ে মাঠের মধ্যে নিজের খেলাটা খেলে যেতে থাকেন স্মিথ। ৩৪ বলে ৩৮ রান করে এই ব্যাটসম্যান আউট হলে দুয়ো দেয়া বন্ধ করে দেন সমর্থকরা।

স্মিথ-ওয়ার্নার প্রতি বার্মি আর্মির এমন আচরণে ক্ষুদ্ধ ক্রিকেট বোদ্ধারা। ধারাভাষ্য কক্ষ থেকে বসেই তাদের সমালোচনা করেন ভারতের কিংবদন্তি ক্রিকেটার সুনিল গাভাস্কার। তিনি বলেন, ‘সমর্থকদের বোঝা উচিত যে স্মিথ-ওয়ার্নারকে দুয়ো দিলে কিছুই বেরিয়ে আসবে না। তারা ভুল করেছে। ভুল যে কারো দ্বারাই হতে পারে। যা ঘটেছে তা ঘটেছেই এবং এখন সময় এগিয়ে চলার।’

ভারতের আরেক সাবেক ক্রিকেটার আকাশ চোপড়া সমালোচনা করেছেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে। তিনি লেখেন, ‘লর্ডসে ইংল্যান্ডের দর্শকরা খুবই হতাশ করেছে। ওয়ার্নারের হাফ সেঞ্চুরির জন্য কোনো তালির আওয়াজ শুনিনি। খুবই, খুবই বাজে অভিজ্ঞতা।’

বিশ্বকাপের শুরু হওয়ার পর যেখানেই যাচ্ছেন সেখানেই দুয়োর স্বীকার হতে হচ্ছে স্মিথ-ওয়ার্নারকে। তবে ভারতের বিপক্ষে ম্যাচে স্মিথকে দুয়ো দেয়া হলেও সেটা থামিয়ে দেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে কোহলির মতো এমন মহানুভবতা দেখাবেন কিনা ইংলিশ অধিনায়ক ইয়ন মরগ্যান। এমন প্রশ্ন করা হয় সংবাদ সম্মেলনে। সেই প্রশ্নের জবাবে মরগ্যান বলেন, ‘না। দু’জন ক্রিকেটার নিষিদ্ধ হয়েছে এবং শাস্তি ভোগ করে ফিরে এসেছে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে ফেরার সঙ্গে সঙ্গেই সমর্থকেরা তাদের মেনে নেবেন। বিশ্বাস অর্জন করতে আরো সময় দরকার।’

এএইচএস/আইএইচএস/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :