বল হাতে নিয়েই চমক আফিফের

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:২১ পিএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯

কোনো কিছুতেই কিছু হচ্ছিল না। আফগানিস্তানের দুই ওপেনারের জুটিটা কেবল বড়ই হচ্ছিল। শেষ পর্যন্ত এই জুটিটা ভাঙলেন তরুণ আফিফ হোসেন ধ্রুব। সেটাও আবার ভয়ংকর হজরতউল্লাহ জাজাইকে ফিরিয়ে। এরপর আরেক বলের বিরতিতে আরও এক উইকেট তুলে নেন এই অফস্পিনার।

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত আফগানিস্তানের সংগ্রহ ১০ ওভার শেষে ২ উইকেটে ৭৫ রান। রহমানউল্লাহ গুরবাজ ২৫ রানে অপরাজিত। নতুন ব্যাটসম্যান হিসেবে উইকেটে এসেছেন নাজিবুল্লাহ।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা বেশ ধীরে সুস্থে করেছিল আফগানিস্তান। আসলে টাইগার দুই পেসার মোহাম্মদ সাইফউদ্দীন আর শফিউল ইসলাম দারুণ নিয়ন্ত্রিত বোলিং করছিলেন। প্রথম তিন ওভারে আফগানরা তুলতে পারে মাত্র ১২ রান।

ইনিংসে তখন দ্বিতীয় ওভার মাত্র। শফিউল ইসলামের পঞ্চম ডেলিভারিটি আকাশে ভাসিয়ে দিয়েছিলেন রহমানউল্লাহ। ফাইন লেগে দাঁড়িয়ে সহজ ক্যাচ ছেড়ে দেন মাহমুদউল্লাহ। রহমানউল্লাহ তখন মাত্র ২ রানে।

এরপরই খোলস ছেড়ে বেরিয়ে এসেছেন আফগান দুই ওপেনার। আলাদা করে অবশ্য বলতে হয় হজরতউল্লাহ জাজাইয়ের কথা। তিনিই মূলত টাইগার বোলারদের কোনঠাসা করে দেন। চার-ছক্কায় গরম করেন মাঠ।

ভয়ংকর এই ব্যাটসম্যানকে যখন কোনোভাবেই আটকানো যাচ্ছিল না, তখন দশম ওভারে আফিফ হোসেনের হাতে বল তুলে দেন সাকিব আল হাসান। আর বল হাতে নিয়ে প্রথম ওভারেই দলকে সাফল্য এনে দেন আফিফ।

তার ঘূর্ণি বলটিতে সুইপ খেলতে গিয়ে শর্ট ফাইন লেগে মোস্তাফিজুর রহমানে সহজ ক্যাচ হন হজরতউল্লাহ। ৩৫ বলে ৬ চার আর ২ ছক্কায় আফগান ওপেনার তখন হাফসেঞ্চুরির দোরগোড়ায় (৪৭ রানে)।

এর এক বল বিরতি দিয়ে আসগর আফগানের উইকেটটিও তুলে নেন আফিফ। নাজমুল হোসেন শান্তর হাতে ক্যাচ হন শূন্য রানে।

এমএমআর/জেআইএম