অবশেষে কাটছে স্থবিরতা, সরব হচ্ছে বিপিএল কার্যক্রম!

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১০:২১ পিএম, ০৯ অক্টোবর ২০১৯

ঠিক বন্ধ বা স্থবির বলা যাবে না। তবে গতি-মন্থরতায় ভুগছিল বিপিএল। দেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় ও আকর্ষণীয় আসরের প্রস্তুতিতে তুলনামূলক ভাটা। সেপ্টেম্বর পেরিয়ে অক্টোবরের মাঝামাঝি চলে আসলে সে অর্থে গতি সঞ্চার হয়নি বিপিএলের কার্যক্রমে।

তবে বিসিবি প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দীন চৌধুরী সুজন আর বোর্ড পরিচালক এবং বিপিএলের অন্যতম শীর্ষ কর্মকর্তা জালাল ইউনুস দু’দিন আগে জানিয়েছিলেন, ‘বিপিএল যথা সময়েই শুরু (৬ ডিসেম্বর) হবে এবং সে লক্ষ্যে খুব শিগগিরই গতি চলে আসবে বিপিএল প্রস্তুতি কার্যক্রমে।’

তারই ধারাবাহিকতায় খুব শিগগিরই আগ্রহী স্পন্সর পার্টনারদের সাথে বসতে যাচ্ছে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। জানা গেছে, আজ বুধবার কোন এক সময় বিপিএল তথা বোর্ডের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সাথে বসেছিলেন বোর্ড প্রধান নাজমুল হাসান পাপন।

যেহেতু নতুন আদলে হবে এবারের আসর। সে সম্পর্কে বিপিএলের নীতি নির্ধারক ও বোর্ড শীর্ষ কর্মকর্তাদের সাথে বসে একটা নির্দেশনাও দিয়েছেন বিসিবি বিগ বস। তারই ধারাবাহিকতায় সব কিছু ঠিক থাকলে বৃহস্পতিবার দুপুরেও হয়ত স্পন্সর পার্টনার আর বিপিএল শীর্ষ কর্তাদের যৌথ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়ে যেতে পারে। সেখানেই হয়ত স্পন্সর হতে আগ্রহীদের সাথে বসে সব কিছু চূড়ান্ত করে ফেলবেন বিপিএল আয়োজক ও ব্যবস্থাপকরা।

আগেই জানা, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে হবে এবারের বিপিএল। আগের মত ফ্র্যাঞ্চাইজি থাকবে না। বিসিবির উদ্যোগ, ব্যবস্থাপনায় হবে এবারের আসর।

তারপরও স্পন্সর পার্টনার আহ্বান করা হয়েছে। ৬টি করপোরেট হাউজ সে আহ্বানে সাড়াও দিয়েছে। যদিও এখন পর্যন্ত তাদের সাথে বোর্ড কর্তাদের কোনোরকম বৈঠক হয়নি। তবে, বিপিএলের টেকনিক্যাল কমিটির চেয়ারম্যান এবং বিসিবি পরিচালক জালাল ইউনুস জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবারই দুপুরের দিকে স্পন্সর পার্টনারদের সঙ্গে বৈঠক এবং আনুষ্ঠানিক চুক্তি হবে। সেখানেই নির্ধারিত হয়ে যাবে, দল গঠনে বোর্ডের কি ভূমিকা থাকবে? আর স্পন্সর পার্টনাররাই বা কতটা ক্ষমতা ভোগ করবেন? তাদের কাজের ক্ষেত্রই বা কতদুর থাকবে?

এআরবি/আইএইচএস