ব্যর্থ আশরাফুল, নাফীসের ফিফটি

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:০৩ পিএম, ১২ অক্টোবর ২০১৯

কেউ মুখ ফুটে না বললেও, বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও তারকা ক্রিকেটার মোহাম্মদ আশরাফুলের জন্য এবারের জাতীয় ক্রিকেট লিগটিই বলা চলে শেষ সুযোগ। এমনকি এবারের আসর শুরুর আগেও আশরাফুলসহ অভিজ্ঞ বেশ কয়েকজনকে কোচিংয়ে নাম লেখানোর পরামর্শ দিয়েছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালকেরা।

তবে আশরাফুলের নিজস্ব ভাবনা ছিল ক্রিকেটার হিসেবে এখনও অনেক কিছু দেয়ার আছে তার। তাই পূর্ণ উদ্যমে এবারের জাতীয় লিগটি খেলতে এসেছেন তিনি। কিন্তু প্রথম দফায় তাকে ব্যর্থই বলা চলে। কেননা আউট হয়ে ফিরেছেন মাত্র ৬ রান করে। তবে আশরাফুল না পারলেও, প্রথম ইনিংসে ফিফটির দেখা পেয়েছেন শাহরিয়ার নাফীস।

রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়ামে জাতীয় ক্রিকেট লিগের দ্বিতীয় স্তরের ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছে সিলেট ও বরিশাল। আগে ব্যাট করে সিলেট অলআউট হয়েছে মাত্র ৮৬ রানে। জবাবে শাহরিয়ার নাফীস ও ফজলে রাব্বির ফিফটিতে দারুণভাবেই এগুচ্ছে বরিশাল।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৪২ ওভার শেষে বরিশালের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১৭২ রান। নাফীস আউট হয়েছেন ৬৩ রান করে, আশরাফুল ফিরেছেন ৬ রানে। ফজলে রাব্বি ব্যাট করছেন ৫২ রানে, অপর অপরাজিত ব্যাটসম্যান মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের সংগ্রহ ৫ রান।

সিলেটের ৮৬ রানের বিপরীতে ব্যাট করতে নেমে বরিশালের দুই ওপেনার মিলে গড়েন ৮০ রানের জুটি। রাফসান আল মাহমুদ সাজঘরে ফিরে যান ৩৩ রান করে। তবে প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে ৪৭তম ফিফটি তুলে নেন নাফীস, খেলেন ৯৭ বলে ৬৩ রানের ইনিংস।

দলীয় ১৩১ রানের মাথায় নাফীসের বিদায়ের পর উইকেটে আসেন মোহাম্মদ আশরাফুল। কিন্তু টিকতে পারেন মাত্র ৭ ওভার। লেগস্পিনার অলক কাপালির বোলিংয়ে শাহানুর রহমানের হাতে ক্যাচ দেয়ার আগে মাত্র ৬ রান আসে তার ব্যাট থেকে। খানিক পরই ফিফটি তুলে নেন ফজলে রাব্বি।

এর আগে বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচের প্রথম ইনিংসে কামরুল রাব্বির বিধ্বংসী বোলিংয়ে মাত্র ৮৬ রানেই অলআউট হয়ে গেছে সিলেট বিভাগ। আগেরদিন ৩১ ওভার খেলে ৩ উইকেটের বিনিময়ে ৬৮ রান করেছিল সিলেট। আশা ছিলো তৃতীয় দিন অর্থাৎ আজ বড় কোনো সংগ্রহ দাঁড় করানোর।

কিন্তু কিসের কী! আর মাত্র ১৮ রান যোগ করতেই সাজঘরে ফিরে গেছেন বাকি সাত ব্যাটসম্যান। সিলেটের এমন অবস্থার পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা কামরুল ইসলাম রাব্বির। গতকালই সিলেটের তিন উইকেটের মধ্যে ২টি নিয়েছিলেন তিনি। ভেঙে দিয়েছিলেন প্রতিপক্ষের টপঅর্ডার।

আজ ঠিক সেখান থেকেই শুরু করেছেন ২৭ বছর বয়সী এ পেসার। দিনের প্রথম বলেই সরাসরি বোল্ড করেছেন বাঁহাতি তরুণ জাকির হাসানকে। একই ওভারের শেষ বলে ফিরিয়েছেন উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জাকের আলি অনিককেও।

নিজের পরের ওভারে শাহানুর রহমানকে বোল্ড করে প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মতো পাঁচ উইকেট তুলে নেন রাব্বি। আর একদম শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে রেজাউর রহমানকে আউট করে প্রথম শ্রেণির ক্যারিয়ারে নিজের সেরা বোলিং ফিগার নেন রাব্বি।

মাঝে অলক কাপালি, ইমরান আলি ও এনামুল হক জুনিয়রকে ফেরান ২৪ বছর বয়সী অফস্পিনার নুরুজ্জামান। তিন ওভার বোলিং করে কোনো রানই খরচ করেননি তিনি, শূন্য রানেই নিয়েছেন ৩টি উইকেট। অন্যদিকে ইনিংসে কামরুল রাব্বির বোলিং ফিগার ১৬.১-৫-২৪-৬।

সিলেটের পক্ষে ব্যাট হাতে দুই অঙ্ক ছুঁতে পেরেছেন কেবল জাকির হাসান (৩২), অলক কাপালি (১৮) এবং তৌফিক খান (১৬)। চার ব্যাটসম্যান আউট হয়েছেন শূন্য রানে। খানিক পরেই ব্যাট করতে নামবে বরিশাল।

এসএএস/এমএস