শ্রীলঙ্কায় বিতর্কিত সিদ্ধান্তে আউট নাঈম, খেলা বন্ধ করে প্রতিবাদ

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৩১ পিএম, ১২ অক্টোবর ২০১৯

রাজশাহীর শহীদ কামরুজ্জামান স্টেডিয়াম, খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়াম এবং ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের পাশাপাশি রাজধানী ঢাকার মিরপুরের শেরে বাংলা স্টেডিয়ামেও চলছে জাতীয় লিগের খেলা।

আজ শনিবার শেরে বাংলায় ঢাকা মেট্রো আর চট্টগ্রাম বিভাগের ম্যাচ চলার সময় কর্তব্যরত সাংবাদিকদের প্রায় সবাই ক্রিকইনফো ব্রাউজ করে বাংলাদেশ ‘এ’ আর শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দলের খেলার বল টু বলের খোঁজ খবর রাখছিলেন।

হঠাৎ স্কোর কার্ডে দেখা গেল বাংলাদেশ ‘এ’ দলের ওপেনার নাঈম শেখ ফিল্ডারকে (ইচ্ছাকৃতভাবে অবস্ট্রাক্টিং দ্য ফিল্ড) বাঁধা দিতে গিয়ে রান আউট হয়েছেন।

সেই রান আউট নিয়েই যত কথা। কিভাবে নাঈম অবস্ট্রাক্টিং দ্য ফিল্ড হলেন? এ প্রশ্ন নিয়ে নানা আলোচনা, পর্যালোচনা। কলম্বোর আর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে বসে মুঠোফোনে জাগো নিউজের সাথে আলাপে সেই ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু।

জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচকের ধারণা, নাঈম আউট ছিলেন না। আম্পায়ার তাকে আউট দিয়ে দিয়েছেন। তার ভাষায়, দারুণ খেলছিল নাঈম। আম্পয়ারের ভুলে আউট না হলে নির্ঘাত সাইফের সাথে নাইমও সেঞ্চুরি করতো।’

কি ঘটেছিল কলম্বোয়? আম্পায়ার কেন নাঈমকে আউট দিলেন? তিনি কি সত্যি সত্যিই ফিল্ডারদের বাধা প্রদান করেছিলেন? মিনহাজুল আবেদিন নান্নুর জবাব, ‘নাহ! ফিল্ডার থ্রো করার সময় নাঈম তার দৌড়ের একটা পর্যায়ে গতি পাল্টেছিল। সেটাই আম্পায়ারদের কাছে ভাল ঠেকেনি। তাদের মনে হয়েছে যে, নাঈম ইচ্ছে করে রান আউট থেকে বাঁচার জন্য এমন করেছে। তাই মাঠের দুই আম্পায়ার মিলে তাকে আউট দিয়েছে।’

BD-A-team

এদিকে নাঈমের আউট মেনে নিতে পারেনি টিম বাংলাদেশ। প্রথম উইকেটে সাইফ আর নাঈমের স্বচ্ছন্দ আর সাবলীল ব্যাট চালনায় বড়-সড় জয়ের ভিত গড়ে ওঠার পরও বাংলাদেশ দল আম্পায়ারদের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানায়। তাতে ৫ মিনিট খেলা বন্ধও ছিল।

এদিকে ওপেনার সাইফ ও নাঈমের ব্যাটিংয়ে রীতিমত মুগ্ধ প্রধান নির্বাচক। তার কথা, ‘সত্যিই দারুণ ব্যাট করেছে সাইফ আর নাঈম। দেখে খুব ভাল লেগেছে। আমি সন্তুষ্ট তাদের দুজনার অ্যাপ্রোচ এবং অ্যাপ্লিকেশন দেখে।’

সাইফের ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি নাঈমের প্রশংসা করে নান্নু বলেন, ‘আম্পয়ারের ভুল সিদ্ধান্তে আউট না হলে আমার মনে হয় নাঈমও শতরান করে ফেলতো।’

পাশাপাশি সাইফের অফস্পিন বোলিংয়েও মুগ্ধ প্রধান নির্বাচক। ‘সাইফের বোলিংটাও হয়েছে অন্যরকম। লঙ্কানদের কেউ তাকে স্বচ্ছন্দে খেলতে পারেনি।’ এদিকে ইবাদতের বোলিংয়েরও প্রশংসা প্রধান নির্বাচকের মুখে। তার মূল্যায়ন, ‘পেসারদের মধ্যে ইবাদত বেশ ভাল বোলিং করেছে। বাড়তি গতি সঞ্চারের পাশাপাশি রীতিমত সমীহও আদায় করে নিয়েছে ইবাদত।’

এদিকে দুপুর গড়িয়ে বিকেল নামতেই খবর, সাইফ হাসানের অসাধারণ সেঞ্চুরি (১১০ বলে ১১৭) আর নাঈম শেখের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে (৭৬ বলে ৬৬ রান) ৯৮ রানের বড় জয়ের স্বাদ পেয়েছে মোহাম্মদ মিঠুনের দল।

শ্রীলঙ্কার মাটিতে লঙ্কান ‘এ’ দলের বিপক্ষে তিন ম্যাচের সিরিজে শুরুতে পিছিয়ে পড়েও শেষ দুই ম্যাচ জিতে সিরিজ নিজেদের করে নেয়া সহজ কাজ নয়। সে কঠিন কাজটি সাহস ও দক্ষতার সাথে পালন করেছেন সাইফ, নাঈম, মিঠুন, সোহান, ইবাদতরা। এ ম্যাচ জয়ে সিরিজও হয়েছে নিশ্চিত। আগামীকাল (রোববার) সকাল সোয়া ১১টায় কলম্বো থেকে ঢাকায় ফিরে আসছে ‘এ’ দল।

এআরবি/আইএইচএস/এমকেএইচ