বিপিএলে কাজ করতে আগ্রহী ৩৮ বিদেশী কোচ!

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৫৩ পিএম, ১৭ অক্টোবর ২০১৯

সর্বশেষ বিপিএলেও উল্লেখযোগ্যসংখ্যাক বিদেশি কোচ দায়িত্ব পালন করেছেন। রংপুর রাইডার্সের কোচ হিসেবে ছিলেন টম মুডি। খুলনা টাইটান্সের কোচের দায়িত্ব পালন করেন শ্রীলঙ্কার মাহেলা জয়াবর্ধনে। সিলেটের কোচের দায়িত্ব পালন করেন ওয়াকার ইউনুস, চট্টগ্রামের দায়িত্বে ছিলেন সাইমন হেলমট, রাজশাহী কিংসের কোচের দায়িত্ব পালন করেন ল্যান্স ক্লুজনার।

শুধু গতবারের বিপিএলেই নয়, আগের প্রতিটি আসরেই বেশ কিছু বিদেশি কোচ দায়িত্ব পালন করেছেন বিপিএলে। আগামী বিপিএলে সাতটি দলের কোচ নিয়োগ দেয়া হবে সম্পূর্ণ নতুন করে। কারণ, এবার কোনো ফ্রাঞ্চাইজি নেই। বিপিএলের দল গঠন, পরিচালনা থেকে শুরু করে সব কিছুর আয়োজক বিসিবি।

এ কারণে প্লেয়ার্স ড্রাফট থেকে দল গঠন এবং কোচ নিয়োগ প্রক্রিয়া- সবই নতুন করে করতে হবে বিসিবিকে। সে হিসেবে এবার সাত দলে সাতজন নতুন কোচকে দেখা যেতে পারে বিপিএলে। সে জন্যই বিপিএলে কোচ হতে দেশিদের বাইরেও বিদেশি কোচদের মধ্যে আগ্রহী ৩৮জন।

আজ বিকেলে এমন তথ্যই মিডিয়াকে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। বিপিএলের সর্বশেষ আপডেট কি, তা জানাতে গিয়ে বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘৩৯৩ বিদেশি ক্রিকেটার প্লেয়ার্স ড্রাফটের জন্য আবেদন করেছে। এছাড়া ৩৮ জন বিদেশি কোচও আবেদন করেছে। আমাদের এখানে বিপিএলে তারা কোচ হিসেবে থাকতে চাইছেন।’

ফ্রাঞ্চাইজি না থাকলেও দলগুলোর প্রতিটির জন্য একটি করে স্পন্সর পার্টনার থাকবে। সে কারণে ৭টি স্পন্সর পার্টনার খুঁজছে বিসিবি। নাজমুল হাসান পাপন জানালেন, ‘স্পন্সর তো দেখলাম প্রায় ৯টির মতো এসেছে এখন পর্যন্ত। তারা আগ্রহ দেখিয়েছে যে স্পন্সর করতে চায়।’

প্লেয়ার্স ড্রাফটের ব্যাপারে বিসিবি সভাপতি বলেনম ‘আমরা যে জিনিসটা করছি, প্রথম কথা হচ্ছে যে, খেলোয়াড়দের ব্যাপার তো ড্রাফটের মাধ্যমে ঠিক হবে যে, কোন দল কাকে নেবে। এখানে তো আমাদের কিছু করণীয় নেই। আমাদের যে জিনিসটা প্রধান হচ্ছে যে সাপোর্ট স্টাফগুলো তৈরি করা।’

প্রতিটি দলের সঙ্গে একজন করে বোর্ড পরিচালককে প্রধান হিসেবে নিয়োগ দেবে বিসিবি। নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘আমরা ঠিক করেছি যে, প্রত্যেকটি দলের সঙ্গে একজন করে বোর্ডের পরিচালককে আমরা নিয়োগ দিব। তিনিই দলের সঙ্গে রেসপনসিবল থাকবেন এবং এরপর আমাদের কোচ থাকবে। সেই কোচ দেশি হতে পারে, বিদেশিও হতে পারে।’

বিদেশি ৩৮জন কোচ হতে আগ্রহী হলেও দেশি কোচদের দরজা কিন্তু বন্ধ হয়ে যাচ্ছে না। বিসিবি সভাপতি জানাচ্ছেন, যথাযত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বাছাই করা হবে এবং আগামী দু’দিনের মধ্যে সব কিছু চূড়ান্ত হয়ে যাবে। পাপন বলেন, ‘যেহেতু অনেকে আগ্রহ দেখিয়েছে সেখান থেকে বাছাই করার একটি ব্যাপার আছে। দেশি নেব কিনা বিদেশি, এছাড়াও আরো কিছু লাগবে যেমন ফিজিও, ট্রেইনার, কম্পিউটার অ্যানালিস্ট- আগামী দুই দিনের মধ্যে আশা করছি সবকিছু করে ম্যানেজমেন্ট স্টাফটা অন্তত ফাইনাল করে ফেলুক।’

সর্বশেষ থাকবে স্কোয়াড তৈরি। পাপন বলেন, ‘এরপর যে জিনিসটা থাকবে সেটা হলো খেলোয়াড়। খেলোয়াড়দের ব্যাপার তো ড্রাফটের মাধ্যমে নির্ধারণ হবে। কোন দল কাকে নিবে, যেভাবে সবসময় হয় সেভাবেই হবে। সেটা এখন বলতে পারছি না। মোটামুটি সব ঠিক আছে। বাইলজটি তো আগেই করা ছিল। তেমন কিছু আসলে করার নেই। এখানে নতুন কিছু তো করতে যাচ্ছি না। তেমন আহামরি নতুন কিছু না। যা সবসময় হয়ে এসেছে সেভাবেই হবে। আশা করছি ভালোই হবে মনে হচ্ছে।’

এআরবি/আইএইচএস/এমকেএইচ