বিপিএলে কোচ নির্ধারণ এবং দল নির্বাচন করবে স্পন্সররা!

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:১৭ পিএম, ১৭ অক্টোবর ২০১৯

জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে এবারের বিপিএল আয়োজন করা হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর নামে। নাম দেয়া হচ্ছে বঙ্গবন্ধু বিপিএল। যে কারণে এবার কোনো ফ্রাঞ্চাইজি নেই। আগের যে সাত ফ্রাঞ্চাইজি দল পরিচালনা করতো, তাদের সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষ। কিন্তু তাদের সঙ্গে নতুন করে চুক্তি না করে এবার বিসিবিই আয়োজন করতে চাচ্ছে পুরো বিপিএল।

দল নির্বাচন, কোচ নির্ধারণ, দল পরিচালনা- সবই করবে বিসিবি। তবে আগে থেকেই জানা, আজ আবার বিসিবি প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন জানিয়ে দিলেন- সাতটি দলের দায়িত্ব তুলে দেয়া হবে বিসিবির সাত পরিচালকের কাঁধে। তারাই হবেন সংশ্লিষ্ট দলের প্রধান ব্যক্তি।

এছাড়া সাতটি দলের জন্য সাতটি স্পন্সর প্রতিষ্ঠান খোঁজা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকটিকে নির্ধারণ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। বিসিবি সভাপতি আজ জানালেন, প্রায় ৯টি প্রতিষ্ঠান বিপিএলের স্পন্সর পার্টনার হওয়ার জন্য আবেদন করেছে। এর মধ্যে ৭টিকে বেছে নেয়া হবে। আগামী দু’তিন দিনের মধ্যেই এ বিষয়টা চূড়ান্ত হয়ে যাবে বলে আজ মিডিয়াকে জানিয়েছেন বিসিবি সভাপতি।

তবে, অনেক আগে থেকেই প্রশ্ন ছিল- এবার যেহেতু ফ্রাঞ্চাইজি নেই, তাহলে বিপিএলের প্লেয়ার্স ড্রাফটে খেলোয়াড় বাছাই করবেন কে? যারা স্পন্সর প্রতিষ্ঠান হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হবে, তাদের কি চাওয়া-পাওয়ার কোনো সুযোগ থাকবে কি না, কিংবা দলগুলোর কোচ নির্বাচন করবে কে?

এসব প্রশ্নের একটা যৌক্তিক সমাধান আজ দিয়েছেন বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপন। তিনি আজ জানিয়ে দিয়েছেন, বিদেশি ৩৮জন কোচ বিপিএলে কাজ করতে আবেদন করেছে বিসিবিতে। যদিও দেশি কোচদের জন্য দরজা বন্ধ নয় বলে জানিয়ে দিয়েছেন বিসিবির বিগ বস।

এ বিষয়টা বলতে গিয়েই নাজমুল হাসান পাপন জানিয়ে দিলেন, কোচ এবং খেলোয়াড় নির্বাচনে ভূমিকা থাকবে নির্ধারিত স্পন্সর প্রতিষ্ঠানগুলোরও। যদিও মূল দায়িত্বটা পালন করবেন কিন্তু দায়িত্বপ্রাপ্ত বিসিবি পরিচালক, যিনি হবে সংশ্লিষ্ট দলের প্রধান ব্যক্তি।

বাংলাদেশি কোচদের সুযোগ থাকবে কি না? এমন প্রশ্ন করা হলে নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘এটা আসলে নির্ভর করবে দুটি দিক থেকে। এখানে না পারার কোনো কারণ নেই। কথা হচ্ছে, যে দলগুলো থাকবে তারা খেলোয়াড় কাকে নেবে, কোচ কে কাকে নিতে চায়- এই জিনিসগুলো কিন্তু আসলে আমরা যখন টিম স্পন্সর ঠিক করবো তখন বোর্ডের যে পরিচালক দায়িত্বে থাকবে এবং দলকে চালাবে সে ঠিক করবে।’

টিম পরিচালক এবং স্পন্সর প্রতিষ্ঠান নিয়োগ হয়ে গেলে তখন তারাই দল গোছানোর কাজগুলো করবেন বলে জানান বিসিবি সভাপতি। তিনি বলেন, ‘আমরা যে কাউকে গছিয়ে দিচ্ছি, সেটা না। অপশন থাকবে এবং তারা বাছাই করবে। তাদের যদি পছন্দ থাকে তারা নিতে পারে। অবশ্যই স্থানীয়রা পারবে, না পারার তো কারণ নেই। আমার ধারণা স্থানীয়রা থাকবে। ৩৮ জন (বিদেশি কোচ হিসেবে আবেদনকারী) এসেছে, তার মানে এই না যে আমাদের সবাইকে জায়গা দিতে হবে। আমাদের দল তো আছে সাতটি। সাতজনই বিদেশি হবে কিনা সেটা আমরা সিদ্ধান্ত না নিয়ে যারা টিম স্পন্সর হচ্ছে তাদের ওপর ছেড়ে দিলে ভালো হয়। তাদেরও তো ভূমিকা থাকবে এখানে, খেলোয়াড় বাছাই করা হবে, কিছু ভূমিকা তো থাকবে তাদের। সেরা একাদশ কি হবে সেটাতে নায় আমরা এবার একটু হস্তক্ষেপ করবো। আমাদের পরিচালক যে আছেন তিনি হস্তক্ষেপ করবেন। এটি ভিন্ন একটু ইস্যু।’

আইএইচএস/এমকেএইচ