প্রয়োজনে নতুন মুখ আনব, অবস্থা এর চেয়ে খারাপ তো হবে না : ডোমিঙ্গো

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৫২ পিএম, ১৫ নভেম্বর ২০১৯

দুই দিন পেরোতেই ইন্দোর টেস্টে বড় হারের শঙ্কা পেয়ে বসেছে বাংলাদেশকে। ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং-কোনো বিভাগেই স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে ন্যুনতম লড়াইটাও করতে পারছে না টাইগাররা। শিষ্যদের এমন অবস্থা দেখে রীতিমত শঙ্কিত বাংলাদেশ দলের হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো। দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে তো হুঁশিয়ারিই দিয়ে বসলেন দলে থাকা খেলোয়াড়দের।

ডোমিঙ্গোর পরিষ্কার কথা, টেস্টের এই অবস্থা চলতে পারে না। প্রয়োজনে নতুন মুখ সুযোগ দেয়ার পক্ষপাতী টাইগার কোচ। নতুনদের সুযোগ দিলে ঝুঁকি থাকবে, কিন্তু এখন পুরোনোরা যেমন খেলছেন তার চেয়ে আর কিইবা খারাপ হবে-যুক্তি প্রোটিয়া কোচের।

প্রথম ইনিংসে ভারতীয় বোলারদের সামলাতে না পেরে মাত্র ১৫০ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। জবাব দিতে নেমে দ্বিতীয় দিন শেষে ৬ উইকেটে ৪৯৩ রান তুলেছে ভারত। ইতিমধ্যেই তাদের লিড ৩৪৩ রানের। শুধু পরাজয় নয়, আসলে ইনিংস পরাজয়ই চোখ রাঙাচ্ছে বাংলাদেশকে।

দলের এই অবস্থা দেখে কোচ ডোমিঙ্গো বলছেন, ‘কোনো সন্দেহ নেই যে দল গঠনে পরিবর্তন আনতে হবে। না হয় ফলাফল একই হবে। আমাকে নির্বাচকদের সঙ্গে বসে পরবর্তী পরিকল্পনা ঠিক করতে হবে। দলকে এগিয়ে নিতে সক্ষম এমন খেলোয়াড় খুঁজে বের করতে হবে। এতে যদি দলে নতুন মুখ আনতে হয় এবং তাতে সাময়িক অসুবিধাও হয়, তবু আমি মনে করি না এখন যে অবস্থা তার চেয়ে খুব বেশি আলাদা হবে।’

বাংলাদেশের দায়িত্ব নিয়েছেন বেশিদিন হয়নি। কিন্তু দায়িত্ব নেয়ার পর থেকেই দেখছেন, টেস্টে ভঙ্গুর এক দল। আফগানিস্তানের মতো নবীশ টেস্ট খেলুড়ে দলের বিপক্ষেও পেরে ওঠছে না টাইগাররা।

তাই বিকল্প ভাবনার সময় এসেছে বলেই মনে করছেন ডোমিঙ্গো। তবে নতুন কোচ হিসেবে এখনও খেলোয়াড়দের সেভাবে চিনে ওঠতে পারেননি। কাকে কোন ফরমেটে খেলালে ভালো হবে, সেটি বুঝতে কিছুদিন সময় নিতে চান তিনি।

তবে এখন যতটুকু দেখেছেন, ততটুকুতেই পরিবর্তনের ভাবনা চলে এসেছে ডোমিঙ্গোর মাথায়। তার ভাষায়, ‘কোচ হিসেবে এমন পরিস্থিতি বেশ কঠিন। অবশ্যই এটা কঠিন, আমার মাত্রই দ্বিতীয় টেস্ট এটা এবং আমাকে দেখতে হচ্ছে খেলোয়াড়রা কীভাবে টেস্টকে গ্রহণ করছে, কীভাবে টেস্ট ক্রিকেটের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে। ফলে এখনই এটা বলা সম্ভব নয়, কাকে কোন ফরম্যাটে খেলানো ঠিক হবে। দলে অনেকেই আছে যারা টি-টোয়েন্টির জন্য পারফেক্ট আর কেউ কেউ আছে যারা টেস্টের জন্য ঠিক আছে। তাদের আলাদা করার চিন্তা শুরু করতে হবে। দুই টি-টোয়েন্টি আর প্রথম টেস্ট শেষে আমি কিছুটা বুঝতে শুরু করেছি।’

এমএমআর/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]