ইডেনে যে বিষয়টাতে বেশি ভয় পাচ্ছেন মিরাজ

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:০৯ এএম, ১৯ নভেম্বর ২০১৯

লাল বলের টেস্ট ক্রিকেটে এরই মধ্যে ১৯ বছর পার করে ফেলেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। সে তুলনায় সাফল্য মিলেছে অল্পই। সাদা পোশাকের অভিজাত ক্রিকেটের ধরনটা যেন এখনও ঠিক বুঝে উঠতে পারেনি টিম বাংলাদেশ।

বিপরীতে গোলাপি বলের দিবারাত্রির টেস্ট ক্রিকেটে এখনও জন্মই হয়নি টাইগারদের। আগামী ২২ নভেম্বর কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে প্রথমবারের মতো গোলাপি বলের টেস্ট খেলবে বাংলাদেশ দল।

দিবারাত্রি বা গোলাপি বলের টেস্ট- দুটি বিষয়ই নতুন বাংলাদেশ দলের জন্য। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে দিবারাত্রির অনেক ম্যাচ খেললেও, গোলাপি বলে খেলার বিষয়টা পুরোপুরি নতুন টাইগারদের জন্য। অল্প কয়েকদিনের প্রস্তুতিতে ভারতের মতো শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলতে হবে নিজেদের প্রথম গোলাপি বলের ম্যাচ।

কিন্তু এখন প্রতিপক্ষের চেয়ে বেশি ভাবতে হচ্ছে গোলাপি বল নিয়ে। অনুশীলনের পর দলের অফস্পিনিং অলরাউন্ডার মেহেদি হাসান মিরাজের ধারণা, গোলাপি বলে বাউন্স ও সুইং থাকবে বাড়তি পরিমাণে। এছাড়া সিম পজিশন ঠিক রাখাটাও হবে চ্যালেঞ্জিং।

তাই স্পিনারদের জন্য গোলাপি বল যেমন বাড়তি বাউন্স দিয়ে সহায়তা করবে, তেমনি সিমের কারণে অসুবিধায়ও ফেলতে পারে। এসব মাথায় রেখেই ইডেন টেস্টের প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশ দল।

সোমবার অনুশীলনের ফাঁকে সংবাদ মাধ্যমে মিরাজ বলেন, ‘আমার কাছে মনে হয়, গোলাপী বল স্কিড করতে পারে। একটু বাউন্স, একটু টার্নও থাকতে পারে। অনুশীলনে আমরা দেখেছি,স্পিনাররাও কিছুটা সাহায্য পাচ্ছে। বাড়তি বাউন্স থাকছে। সিমের পজিশন ঠিক থাকলে বেশ ভালো কাজ করে। অনেক সময় সিমের পজিশন ঠিক রাখা যায় না। হয়তো মাঝে মধ্যে পেটেও পড়ে। স্পিনারদের জন্য ভয়টা এখানেই।’

গত বেশ কিছু ম্যাচ ধরেই দেশের বাইরে বোলিংটা ভালো হচ্ছে না মিরাজের। প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানরা খুব সহজেই তার ওভারে রান তুলছেন ইচ্ছেমত। যে কারণে উইকেটও পাচ্ছে না খুব একটা। এটি বন্ধ করতে রানের চাকা থামিয়ে রাখা বোলিংয়ের দিকেই বেশি মনোযোগ মিরাজের।

তিনি বলেন, ‘শেষ ম্যাচে (ইন্দোরে সিরিজের প্রথম টেস্টে) দেখুন, ওরা কিন্তু অনেক আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করেছে। অনেক ভালো ভালো লেংথের বলও ভালো খেলেছে। আমি চেষ্টা করছি রানের গতিটা কমিয়ে রাখতে। এটা করতে পারলে, উইকেট পড়ার সুযোগটা বেশি থাকে।’

এসএএস/এমকেএইচ