বিপিএল সম্প্রচারে এবার হবে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৪৯ পিএম, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯

বিপিএল শুরুর সময় যত ঘনিয়ে আসে, চারটি প্রশ্ন ততই জোরালো হয়। এক. কোন মানের ক্রিকেটার আসছেন? বিশ্ব তারকা আছেন কি না? থাকলে তারা কারা?

দুই. উইকেট কেমন হবে? শেরে বাংলার সেই চিরচেনা ঠেলা গাড়ির মত মন্থর গতি আর হাঁটু সমান নিচু বাউন্সি পিচে খেলা হবে? নাকি পিচ হবে ব্যাটসম্যানদের স্বর্গ? চার-ছক্কার ফুলঝুড়ি ছুটবে তো, রানের নহর বইবে তো?

তিন. দর্শক কেমন হবে? টিকেটের যে অগ্নিমূল্য (সাধারণ গ্যালারি ২০০ টাকা করে) তাতে দর্শক কি হবে? বিপিএল উত্তেজনায় মাতবে হোম অব ক্রিকেট?

আর শেষ প্রশ্নটি হলো টিভি সম্প্রচারের মান নিয়ে। কেমন হবে টিভি প্রোডাকশনের স্ট্যান্ডার্ড? সেটা কি আগের বারের মত নিম্ন মানের? টিভি রিপ্লে দেখানোর সর্বাধুনিক সিস্টেম গুলো কি থাকবে? না আগেরবারের প্রথম অংশের মত আল্ট্রা এইজ আর হক-আই ছিল না। যা নিয়ে বড় ধরনের বিতর্ক তৈরি হয়েছিল।

এবারও কি তেমন হবে? কট বিহাইন্ড, লেগবিফোর উইকেটের খুব সূক্ষ সিদ্ধান্ত দিতে গিয়ে আগেরবারের মত থার্ড আম্পায়ারের অসহায় অবস্থা বিরাজ করবে?

বলার অপেক্ষা রাখে না, আগের বার প্রথম থেকে প্রায় মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত টিভি প্রোডাকাশনের প্রযুক্তির ব্যবহার ছিল নিম্ন মানের। বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নিয়ে রীতিমত বিতর্কের অবতারনাও ঘটেছিল। থার্ড আম্পায়ারের কাছে আধুনিক ও যথাযথ মানের প্রযুক্তি ছিল না। এবারও ‘ঢাল নাই, তলোয়ার নাই- নিধিরাম সর্দার হয়ে থাকতে হবে?’

এসব প্রশ্ন যখন অনেকের মনেই উঁকি-ঝুঁকি দিচ্ছিলো, ঠিক তখন বিসিবি থেকে আশ্বস্ত করা হলো, এবার আর আগের মতো হবে না। অনেক আধুনিক ও সাজানো গোছানো টিভি প্রোডাকশন থাকবে। থার্ড আম্পায়ারের কাছে কোন সিদ্ধান্ত পূনর্বিবেচনার জন্য পাঠানো হলে তিনি আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার করতে পারবেন।

খোদ বিসিবি সিইও আজ সন্ধ্যায় এ তথ্য দিয়ে সাংবাদিকদের সামনে বলেন, ‘আমরা অবশ্যই চেষ্টা করবো গতবারের ভুলগুলো যাতে না হয়। আপনারা যে রিপোর্ট করেছিলেন, সেগুলো আমরা সংশোধন করার চেষ্টা অবশ্যই করবো।’

টিভি প্রোডাকশনের ব্যাপারে জানতে চাইলে নিজামউদ্দীন চৌধুরী সুজন বলেন, ‘আমরা প্রোডাকশনের ব্যাপারে যথেষ্ট গুরত্ব দিচ্ছি। আমরা চেষ্টা করি, প্রযুক্তির দিক থেকে যতটা ভাল যেগুলো আছে সেগুলো এর মধ্যে আনা। আমরা নরমালি ড্রোন, স্পাইডার ক্যাম এগুলো ব্যাবহার করবো। তাতে হয়তো আপনারা স্পাইডার ক্যাম ব্যবহার দেখতে পারবেন এখানে। এছাড়া এবার বাইরের ভেন্যুগুলো যেমন চট্টগ্রাম, সিলেটে আমরা ড্রোন ব্যবহার করবো।’

এর বাইরে টিভি ধারাভাষ্যকারদের মান নিয়েও কথা বলেন বিসিবি প্রধান নির্বাহী। জানান, টিভি কমেন্টেটর যারা আছেন, যাদের সাথে আমাদের চুক্তি হয়েছে তারা অলরেডি চলে এসেছেন। প্রয়োজন হলে আরও বিনিয়োগের দরকার হলে আমরা করবো।’

বিসিবি সিইও’র এ আশাবাদী সংলাপগুলো বাস্তব ক্ষেত্রে সত্য হলেই ভাল। তাতেই বিপিএলের খেলা পরিচালনার মান ঠিক রাখা সম্ভব হবে। কোন সিদ্ধান্ত নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টির সম্ভাবনাও যাবে কমে।

এআরবি/আইএইচএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]