টানা তিন টেস্টে সেঞ্চুরি লাবুশানের

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:৫২ পিএম, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯

দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর অবশেষে একজন জেনুইন ব্যাটসম্যানের দেখা পেয়ে গেলো অস্ট্রেলিয়া। বর্তমান স্কোয়াডে ধারাবাহিকতার উদাহরণ স্টিভেন স্মিথের পর আর কোনো ব্যাটসম্যানই এতটা ধারাবাহিকতার প্রমাণ দিতে পারেননি, যেটা পারছেন মারনাস লাবুশানে।

পাকিস্তানের বিপক্ষে দুই টেস্টেই সেঞ্চুরি করেছিলেন অস্ট্রেলিয়ার এই টপ অর্ডার। এবার নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষেও গর্জে উঠলো তার ব্যাট। পার্থের ওয়াকা গ্রাউন্ডে টস জিতে ব্যাট করতে নামার পর অসি ওপেনার জো বার্নস মাত্র ৯ রান করে ফিরে যাওয়ার পর মাঠে নামেন লাবুশানে।

এরপরই দলের হাল ধরে দাঁড়ান তিনি। ওয়ার্নার, স্মিথদের সঙ্গে ছোট ছোট দুটি জুটি গড়ে নিজের ইনিংসকে তিনি নিয়ে যান তিন অংকের বাইরে। ২০২ বল খেলে দিন শেষে মার্নাস লাবুশানে অপরাজিত থেকে যান ১১০ রানে।

পাকিস্তানের বিপক্ষে ব্রিসবেনে খেলেছিলেন ১৮৫ রানের ইনিংস। অ্যাডিলেডে একই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে খেলেছিলেন ১৬২ রানের ইনিংস। এবার অপরাজিত রয়েছেন ১১০ রানে। নিশ্চিত আরেকটি বড় ইনিংস খেলার পথেই এগিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

দলীয় ৪০ রানের মাথায় আউট হন জো বার্নাস। এরপর মাঠে নেমে ডেভিড ওয়ার্নারের সঙ্গে জুটি বাধেন লাবুশানে। ৩৫ রানের জুটি ভেঙে যায় ওয়ার্নার ৪৩ রান করে আউট হয়ে যাওয়ার পর। এরপর স্টিভেন স্মিথের সঙ্গে ১৩২ রানের বড় জুটি গড়েন লাবুশানে। কিন্তু ৪৩ রান করে স্মিথ আউট হয়ে গেলে, ভেঙে যায় এই জুটি।

ম্যাথ্যু ওয়েড মাঠে নামলেও ২৬ বল খেলে ১২ রান করে আউট হয়ে গেলে বড় জুটি গড়ে ওঠেনি। এরপর দিনের বাকি অংশ ট্রাভিস হেডকে সঙ্গে নিয়ে কাটিয়ে দেন লাবুশানে। প্রথম দিন শেষে ৯০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ দাঁড়িয়েছে ২৪৮ রান।

নিউজিল্যান্ডের হয়ে ২টি উইকেট নেন নেইল ওয়াগনার। ১টি করে উইকেট নেন টিম সাউদি এবং কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম।

আইএইচএস/এমকেএইচ