‘বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা ঠিক পথেই আছে’

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:১৫ পিএম, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯

বিপিএলের ঢাকার প্রথমপর্ব শেষ হয়ে যাচ্ছে আজ শনিবার রাতেই। চার দিন কেমন কাটলো বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের? কেমন ছিল তামিম, ইমরুল, সৌম্য, লিটন, নাইম শেখ, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ, সাব্বির, রুবেল, তাসকিন, মোস্তাফিজদের পারফরমেন্স? তা নিয়ে জের টানার সময় হয়নি এখনো।

তবে ব্যাটসম্যানদের পারফরমেন্স মন্দ নয়। এখন পর্যন্ত পাঁচ ব্যাটসম্যান হাফসেঞ্চুরি করে ফেলেছেন। সেই তালিকায় তামিম ইকবাল আর ইমরুল কায়েসের মত সিনিয়র, পরিণত আর অভিজ্ঞ উইলোবাজ যেমন আছেন; আবার মোহাম্মদ মিঠুন, এনামুল হক বিজয়ের মত পরিচিত অপ্রতিষ্ঠিত পারফরমারও আছেন। সেই সাথে উঠতি সম্ভাবনাময় নাইম শেখও রান পেয়েছেন। তাদের প্রত্যেকের ব্যাট থেকে বেরিয়ে এসেছে হাফসেঞ্চুরি।

ফিফটির দেখা না পেলেও লিটন দাসও দুই ম্যাচে রান করেছেন। ২৭ বলে ৩৯ আর ২৬ বলে ৪৪ রানের ম্যচ জেতানো ইনিংসও আছে এ স্টাইলিশ ওপেনারের।

সে তুলনায় বোলাররা অবশ্য সুবিধা করতে পারেননি। দেশের ফ্রন্টলাইন বোলারদের মধ্যে কেবল আল আমিন হোসেন এক ম্যাচে তিন উইকেট দখল করেছেন। এছাড়া ‘সাবেক’-এর তকমা গায়ে থাকা অলক কাপালিও তার লেগস্পিন বোলিং দিয়ে এক ম্যাচে তিন উইকেটের পতন ঘটিয়েছেন।

জাতীয় টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ মনে করেন, স্থানীয় ক্রিকেটারদের পারফরমেন্স ঠিকই আছে। বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা কক্ষপথেই আছে।

আজ সন্ধ্যায় রংপুরকে হারানোর পর সংবাদ সম্মেলনে এসে চট্টগ্রাম অধিনায়ক বলেন, ‘আমার মনে হয় কম বেশি সবাই টাচে আছে। তামিম রান পেল, মুশি (মুশফিকুর রহীম) ফর্মে আছে, আজকে নাইম ভালো ব্যাটিং করলো। দারুণ একটা ইনিংস খেললো। আমার মনে হয় আমরা ঠিক পথেই আছি।’

স্বদেশি খেলোয়াড়দের ব্যাপারে মাহমুদউল্লাহ আরও বলেন, ‘এখন তো মাত্র ২-৩টা ম্যাচ হয়েছে। আমাদের দলে ইমরুল খুব ভালো ব্যাট করছে। মোস্তাফিজও বেশ ভালো বোলিং করছে। ওর সাথে কথাও হয়েছে, খুব পরিশ্রম করছে। বোলার হিসেবে নিজেকে আফিফ-সৈকতের চেয়ে পিছিয়ে রাখা আমি সবসময় নিজেকে ওপরের দিকেই দেখতে চাই। গত সাত মাস আমি বোলিং করিনি। তখন মোসাদ্দেক বেশ ভালো বোলিং করেছে। আফিফও দারুণ স্পিনার। যেহেতু তারা ভালো করছিল, আমি শুধু গত সিরিজে (ভারতের বিপক্ষে) ১-২ ওভার বোলিং করেছি। আমার তখন মনে হয়েছিল, ওরাই বোলিংয়ের জন্য ভালো অপশন। তবে আমি যেহেতু ভালো অনুভব করছি, অবশ্যই চ্যালেঞ্জ নেব।’

এআরবি/এমএমআর/জেআইএম