২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে নিজেদের ‘রেকর্ড’ই ভাঙল বাংলাদেশ

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:০২ পিএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২০

সিরিজ শুরুর আগেই বলাবলি হচ্ছিলো লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামের উইকেট ব্যাটিংবান্ধব। যার ফলে বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মধ্যকার টি-টোয়েন্টি সিরিজে রানোৎসব হবে- এমনটাই ছিল সকলের প্রত্যাশা। কিন্তু সিরিজ শুরু হতেই দেখা মিললো ভিন্ন চিত্রের।

গাদ্দাফি স্টেডিয়ামের উইকেটের সুবিধা কাজে লাগানোর জন্যই হয়তো পরপর দুই ম্যাচে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বাংলাদেশ দল। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় দুই ম্যাচেই হয়েছে রানখরা। শুক্রবার প্রথম ম্যাচে করা বিব্রতকর এক রেকর্ড ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে নিজেরাই ভেঙে দিয়েছে বাংলাদেশ।

লাহোরের এই মাঠের ইতিহাস বেশ পুরনো হলেও, টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এর অভিষেক ২০১৫ সালের। তারপর থেকে বাংলাদেশ-পাকিস্তান সিরিজ শুরুর আগপর্যন্ত ৯টি কুড়ি ওভারের আন্তর্জাতিক ম্যাচ হয়েছিল। যেখানে ম্যাচের প্রথম ইনিংসে সর্বনিম্ন সংগ্রহ ছিলো গতবছরের অক্টোবরে শ্রীলঙ্কার করা ৭ উইকেটে ১৪৭ রান।

লঙ্কানদের এই রেকর্ড শুক্রবারই নিজেদের করে নিয়েছিল বাংলাদেশ। ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় নির্ধারিত ২০ ওভারে মাত্র ৫ উইকেট হারালেও স্কোরবোর্ডে জমা পড়ে ১৪১ রান। যা ছিলো লাহোরের মাঠে প্রথম ইনিংসে সর্বনিম্ন রানের রেকর্ড।

এই রেকর্ড আবার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ভেঙে ফেলেছে বাংলাদেশ। আজ (শনিবার) সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে টস জিতে আগে ব্যাট করে দাঁড় করিয়েছে ৬ উইকেটে ১৩৬ রানের সংগ্রহ। লাহোরের মাঠে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে প্রথম ইনিংসে এটিই সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ।

তবে একটি জায়গায় অবশ্য স্বস্তি রয়েছে টাইগারদের। কেননা সবমিলিয়ে লাহোরের গাদ্দাফি স্টেডিয়ামে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহের রেকর্ড স্বাগতিক পাকিস্তানেরই। গতবছরের ৫ অক্টোবর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৬৬ রানের লক্ষ্যে ১০১ রানে অলআউট হয়েছিল পাকিস্তান। সেটিই টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এই মাঠের সর্বনিম্ন দলীয় সংগ্রহ।

এসএএস/পিআর