এমপি হওয়ার সুযোগ, যা বললেন সাকিব

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:০৯ পিএম, ১১ মে ২০২০

খেলোয়াড়ি জীবন চলাকালীন জাতীয় নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়ে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। ২০১৮ সালের নির্বাচনে নিজ জন্মস্থান নড়াইলের হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন তিনি। মাশরাফি মনোয়নপত্র কেনার দিন থেকেই শুরু হয় নানাবিধ আলোচনা।

কেউ কেউ সহজভাবেই নেন তার এ সিদ্ধান্ত। আবার কেউ মানতেই পারছিলেন না কেন এমন কিছু করবেন জাতীয় দলের অধিনায়ক। সেবার শুধু মাশরাফি নন, একই আলোচনা শোনা গিয়েছিল সাকিবের ব্যাপারেও। বলাবলি হচ্ছিল, মাশরাফির সঙ্গে সাকিবও হয়তো দাঁড়াবেন জাতীয় নির্বাচনে।

শেষ পর্যন্ত তা হয়নি এবং সাকিবের নির্বাচনে দাঁড়ানোর গুঞ্জনের সত্যতা কতখানি- সে ব্যাপারেও জানা যায়নি বিস্তারিত কিছু। প্রায় ১৭ মাস পর জার্মান সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে এক ভিডিও সাক্ষাৎকারে এ বিষয়ে কথা বলেন সাকিব। তবে সেসব গুঞ্জন নিয়ে কোন কথা বলেননি সাকিব। জানিয়েছেন গোপন বিষয় গোপন থাকাই ভালো।

তবে সংসদ সদস্য হওয়া নিয়ে তার তেমন কোন বাড়তি ভাবনা নেই, এটিও জানিয়েছেন। করোনাভাইরাস তাকে শিক্ষা দিয়েছে বেশি দূরের কথা ভাবার প্রয়োজন নেই। ফলে এমপি হওয়া না হওয়ার বিষয়টি সময়ের হাতেই ছেড়ে দিয়েছেন সাকিব।

তিনি বলেন, ‘এগুলো আসলে সব সময়ের ওপর ছেড়ে দিতে হবে। ভবিষ্যতে কী হবে তা বলা খুব কঠিন। করোনাভাইরাস আমাকে এই শিক্ষাটা দিয়েছে যে, আগামীকাল কী হবে তা আমরা কেউ জানি না। তাই এই জায়গা থেকে বলবো যে, খুব বেশি দূরের কিছুতে ফোকাস আমি করতে চাই না। যদি সুযোগ আসে (এমপি হওয়ার) তাহলে আমি স্বাগত জানাব। আর যদি না আসে তাহলেও আমি আফসোস করব না।’

২০১৮ সালের নির্বাচনকালীন সময়ে জনশ্রুতি চালু ছিল যে, সাকিব আল হাসান নিজেই সংসদ সদস্য হওয়ার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছিলেন। এমনকি মাশরাফির সঙ্গে তিনিও মনোনয়নপত্র তুলতে চেয়েছিলেন। তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরামর্শে এ সিদ্ধান্ত থেকে সরে দাঁড়ান সাকিব।

এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে রহস্যটা রহস্যই রাখার কথা বলেছেন সাকিব। জানিয়েছেন এটা খুবই গোপনীয়তার বিষয়, যা কখনও জনসম্মুখে না আসাই ভালো। ফলে তৈরি হওয়া কৌতূহলকেও স্বাগত জানিয়েছেন সাকিব।

তিনি বলেন, ‘কিছু জিনিস আসলে গোপনীয়তার মধ্যে রাখাই ভালো। অল্প কিছু বিষয় থাকে যা কখনও প্রকাশ পাওয়া ঠিক নয়, এটাও তেমন একটা বিষয়। আমি ভবিষ্যতে রাজনীতিতে আসলেও এটা গোপন থাকবে, না আসলেও গোপন থাকবে। এটা এমনই একটা সিক্রেট, যেটা আমি চাই না কেউ কখনও জানুক।’

সাকিব আরও যোগ করেন, ‘এ জিনিসটা কৌতূহল জাগার মতোই একটা বিষয়। অনেক দিন ধরে এটা নিয়ে কৌতূহল থাকাটাও খুবই স্বাভাবিক ব্যাপার। আমি যদি এখন আমার জায়গায় না থাকতাম, তাহলে আমারও কৌতূহল থাকত। তবে এই কৌতূহল আসলে মানুষের মনে থাকা দরকার। সব কৌতূহল যদি প্রকাশ করে দেয়া হয়, তাহলে মানুষের আর আমাকে নিয়ে আগ্রহ থাকবে না। তাই কৌতূহল থাক, এটা ভালো জিনিস।’

এসএএস/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]