গলায় ছুরি ধরেছিলেন ইউনিস, পাকিস্তানের সাবেক কোচের বিস্ফোরক দাবি

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:০৮ পিএম, ০২ জুলাই ২০২০

পাকিস্তান দলকে সামলানো এত সহজ কাজ নয়। বেশিরভাগ কোচকেই তাই চাকরি ছাড়ার পর মুখ খুলতে দেখা যায়। এবার মুখ খুললেন দলটির সাবেক ব্যাটিং কোচ গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার।

জিম্বাবুইয়ান এই কোচের দাবি, পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক ইউনিস খান একবার তার গলায় ছুরি ধরে বসেছিলেন। সেটাও আবার অন্য কোনো বিষয় নিয়ে নয়, কোচের পরামর্শ মানবেন না বলে!

২০১৪ সাল থেকে ২০১৯ পর্যন্ত পাকিস্তানের ব্যাটিং কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার। বর্তমানে তিনি একই পদে আছেন শ্রীলঙ্কা শিবিরে।

৪৯ বছর বয়সী এই কোচ তার ভাই এন্ডি ফ্লাওয়ার আর উপস্থাপক নেইল ম্যানথর্পের সঙ্গে এক ক্রিকেট পডকাস্টে কথা বলছিলেন। সেখানেই এক পর্যায়ে আসে পাকিস্তানে কোচিং করানোর প্রসঙ্গ। কত রকম পরিস্থিতিতে পড়তে হয়, জানাতে গিয়ে গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার বলেন, ‘ইউনিস খান...তাকে শেখানো বেশ কঠিন কাজ ছিল।’

গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার যোগ করেন, ‘ব্রিসবেনে একটি টেস্টের কথা আমার মনে আছে। সেই ম্যাচ চলার সময় সকালের নাস্তায় তাকে কিছু ব্যাটিং পরামর্শ দেয়ার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু তিনি আমার সেই পরামর্শ ভালোভাবে নেননি। এক পর্যায়ে আমার গলায় ছুরি ধরে বসেন, মিকি আর্থার আমার পাশেই ছিলেন। শেষ পর্যন্ত তাকে এই ঘটনায় মধ্যস্থতা করতে হয়েছে।’

ঘটনাটি ছিল ২০১৬ সালে পাকিস্তানের অস্ট্রেলিয়া সফরের প্রথম টেস্টে। ওই টেস্টের প্রথম ইনিংসে শূন্য রানে সাজঘরে ফিরেছিলেন ইউনিস। পরের ইনিংসেই অবশ্য ঘুরে দাঁড়ান, করেন ৬৫ রান। ওই সফরেই সিডনিতে তৃতীয় টেস্টে ১৭৫ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেছিলেন পাকিস্তানের বর্তমান ব্যাটিং কোচ। যদিও সেই সিরিজটি ৩-০ ব্যবধানে হেরেছিল সফরকারিরা।

গ্র্যান্ট ফ্লাওয়ার জানালেন, পাকিস্তান দলে কাজ করতে গিয়ে আরেকটি অদ্ভুত চরিত্র সামলাতে হয়েছে তাকে। তিনি ওপেনিং ব্যাটসম্যান আহমেদ শেহজাদ।

তাকে নিয়ে ফ্লাওয়ার বলেন, ‘সে খুবই সামর্থ্যবান ব্যাটসম্যান, কিন্তু কিছুুটা অবাধ্য। প্রতি দলেই অবশ্য এমন অবাধ্য খেলোয়াড় থাকে। মাঝেমধ্যে এটা তাদের ভালো খেলোয়াড় বানায়, মাঝেমধ্যে হয়ে উঠে না।’

এমএমআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]