‌ভারতের ক্রিকেটকে শেষ করে দিয়েছেন শশাঙ্ক : শ্রীনি

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:০১ এএম, ০৩ জুলাই ২০২০

ভারতীয় ক্রিকেটের বহু ক্ষতি করে দিয়েছেন শশাঙ্ক মনোহর। আইসিসি চেয়ারম্যান থাকাকালীন একাধিক ভারত বিরোধী সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এখন আইসিসির কঠিন সময়ে গদি ছেড়ে পালাচ্ছেন। এক সময়ের সহকর্মীর পদত্যাগের খবর পেয়ে এভাবেই প্রতিক্রিয়া জানালেন বিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি এন শ্রীনিবাসন। শশাঙ্ক মনোহরের পদত্যাগের পর নিজের জমে থাকা ক্ষোভের সাগরে যেন বাধ ভেঙে দিলেন শ্রীনি।

শশাঙ্ক মনোহর ২০১৫ সালে জগমোহন ডালমিয়ার মৃত্যুর পর বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হন। এরপর ভারতীয় বোর্ডই তাকে আইসিসিতে পাঠায়। দু’বার ভারতের প্রতিনিধি হিসেবে আইসিসির চেয়ারম্যান হয়েছেন শশাঙ্ক; কিন্তু এবার সৌরভের নেতৃত্বাধীন বিসিসিআই যে তাকে সমর্থন করবে না, তা আগেভাগেই বুঝে নিয়েছিলেন পেশায় আইনজীবী এই ক্রিকেট প্রশাসক।

সে কারণেই হয়তো মেয়াদ ফুরানোর কয়েকদিন আগেই পদত্যাগ পত্র জমা দিলেন তিনি; কিন্তু শশাঙ্কের এই চার বছরের কার্যকালে সে অর্থে আইসিসিতে ভারত বাড়তি কোনো সুবিধা পায়নি। বরং বিসিসিআইয়ের গুরুত্ব কমে গেছে অনেকাংশে। আইসিসি থেকে প্রাপ্ত অর্থে বিসিসিআইয়ের অংশও কমেছে। খর্ব করা হয়েছে ভারতীয় বোর্ডের ক্ষমতাও। যা নিয়ে রীতিমতো ক্ষুব্ধ বিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি শ্রীনিবাসন।

শ্রীনিবাসনের বক্তব্য, ‘তার পদত্যাগ ভারতীয় ক্রিকেটের জন্য স্বস্তির খবর। সে জানেই না কীভাবে লড়াই করতে হয়। ২০১৫ সালে বিসিসিআইকে খুব খারাপ পরিস্থিতিতে রেখে দিয়ে সে চলে গিয়েছিল। আবার এখন এত খারাপ পরিস্থিতিতে আইসিসিকে ছেড়ে চলে যাচ্ছে। তবে আমি ব্যক্তিগতভাবে খুশি, এ রকম একজন লোক আইসিসির সঙ্গে যুক্ত নয় এটা জেনে।’‌

এরপরই সঙ্গে জুড়ে দিলেন, ‘‌আমার ব্যক্তিগত মতামত, শশাঙ্ক ভারতীয় ক্রিকেটের অনেক ক্ষতি করেছে। আমার মনে হয়, ভারতীয় ক্রিকেটের সঙ্গে যুক্ত যে কেউ তার পদত্যাগে খুশি হবে। সে আর্থিকভাবে আমাদের ক্ষতি করেছে। আইসিসিতে ভারতীয় বোর্ডের ক্ষমতা কমিয়ে দিয়েছে। বহু ক্ষতি করেছে।’‌

শ্রীনিবাসনের দাবি, শশাঙ্ক মনোহর একজন সুযোগসন্ধানি। প্রথমে ভারতীয় বোর্ডকে ব্যবহার করে আইসিসিতে গেছে। এরপর আইসিসিকে ব্যবহার করে ভারতীয় বোর্ডকেই আক্রমণ করেছে।

আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]