‘অবস্থা ভালো হলে চলতি মাসের শেষ সপ্তাহেই অনুশীলন জাতীয় দলের’

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৩:৪১ পিএম, ০৭ জুলাই ২০২০

আগে বেশ কয়েকবারই শোনা গেছে টাইগাররা মাঠে ফিরছেন। জাতীয় দলের না হয় ব্যক্তিগত পর্যায়ের অনুশীলনে নামবেন। বিসিবি থেকে ছকও কষে দেয়া হয়েছিল, কিভাবে ক্রিকেটাররা শারীরিক সংস্পর্শ ছাড়া অনুশীলন করবেন।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত কোনোটাই হয়নি। জাতীয় দলের অনুশীলন বহুদূরে, ব্যক্তিগত পর্যায়ের অনুশীলনও শুরু হয়নি। যদিও মুশফিকুর রহীম এরই মধ্যে বেরাইদের ‘ফরটিস ফুটবল একাডেমি’ মাঠে একা একা অনুশীলন শুরু করেছেন।

গতকাল সোমবার থেকেই বেরাইদের মাঠে রানিংয়ে নেমেছেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল। একই মাঠে সিনথেটিক টার্ফে নকিংয়ের ব্যবস্থাও করা হচ্ছে। অবশ্য বেরাইদের ফরটিস ফুটবল একাডেমি মাঠে নয়, ক্রিকেটারদের জন্য এবার খুলে যাচ্ছে হোম অব ক্রিকেট শেরে বাংলা স্টেডিয়ামও।

ক্রিকেটাররা যাতে তাদের প্রিয় শেরে বাংলার চেনা জানা কন্ডিশনে নিজেতের মত করে প্র্যাকটিস করতে পারেন-এবার সত্যি সত্যিই সে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। খুব শীঘ্রই বিসিবির উদ্যোগেই শুরু হতে যাচ্ছে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের অনুশীলন।

জাতীয় দলের পর্যবেক্ষণ, পরিচর্যা ও তত্ত্বাবধানের দায়িত্বে থাকা ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান নিজে দিয়েছেন এ তথ্য। আজ দুপুরে জাগো নিউজের সাথে একান্ত আলাপে তিনি বলেন, ‘আমরা সব রকম প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছি। মাঠ, পিচ,ইনডোর, একাডেমির মাঠ সবই তৈরি করে রাখা হয়েছে। এখন ক্রিকেটাররা চাইলেই প্র্যাকটিস করতে পারবে।’

জাগো নিউজের পাঠকরা অবশ্য সপ্তাহ খানেকের বেশি সময় আগেই জেনে গেছেন, চলতি মাসের শেষ ভাগে না হয় আগস্টের প্রথম দিকে অনুশীলন শুরুর সম্ভাবনার কথা। প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নুর বরাত দিয়ে জাগো নিউজের এমন প্রতিবেদন প্রকাশিতও হয়েছে।

প্রধান নির্বাচকের সেই কথার সূত্র ধরে আজ মঙ্গলবার সর্বশেষ খবর দিলেন বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি প্রধান। জানালেন, ‘করোনার তীব্রতা কমলেই যাতে ক্রিকেটাররা অনুশীলনে নামতে পারে, সে উদ্যোগই নেয়া হয়েছে। সব প্রস্তুতি সম্পন্ন।’

প্রশ্ন ছিল-কবে নাগাদ ক্রিকেটাররা অনুশীলন শুরু করবে? বিসিবি থেকে কি কোন নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেয়া হয়েছে? জবাবে আকরাম খান বলেন, ‘না, না। কোনো নির্দিষ্ট সময় বেঁধে দেয়া হয়নি। করোনা পরিস্থিতির ওপর সব নির্ভর করছে। যদি পরিস্থিতির উন্নতি ঘটে এবং করোনার ভয়াবহতা কমে আসে, তাহলে হয়তো ঈদের আগেও তিন-চারদিনের অনুশীলন করা সম্ভব। না হয়, ঈদের ছুটির পর অবস্থার উন্নতি ঘটলে ক্রিকেটারদের অনুশীলনে নামার সম্ভাবনা আছে।’

বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আরও জানান, ‘যেহেতু এশিয়া কাপের (পূর্ব নির্ধারিত সময় অনুযায়ী সেপ্টেম্বরে শুরুর কথা) আগে আমাদের আর কোন সিরিজ বা সফর নেই। তাই আমরা এশিয়া কাপকে টার্গেট রেখে ক্রিকেটারদের তৈরি করার কথা ভাবছি। আমরা প্র্যাকটিসের সব রকম ফ্যাসিলিটিজ প্রস্তুত করে ফেলেছি। ক্রিকেটাররা মাঠে অনুশীলনে নামলে যা যা দরকার হয়, সব যাতে পায়, তাও নিশ্চিত করা হয়েছে। এখন শুধু করোনার অবস্থার উন্নতির অপেক্ষা। করোনার প্রকোপ কমলে ক্রিকেটারদের অনুশীলন করার অনুমতি দেয়া হবে।’

এআরবি/এমএমআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]