বিসিসিআইর কাছে আইপিএল ফ্রাঞ্চাইজিদের নতুন দাবি

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬:২২ পিএম, ০৫ আগস্ট ২০২০

আইপিএলের চূড়ান্ত রূপরেখা প্রণয়নের জন্য গত রোববার বৈঠকে বসেছিল গভর্নিং কাউন্সিল। সেখানে পুরো আইপিএলের সূচি এবং স্বাস্থ্যবিধিসহ অনেকগুলো বিষয়ই নির্ধারণ হয়ে গেছে। এর মধ্যে একাধিন বিষয় বা নিয়ম নিয়ে আপত্তি তুললো আইপিএলের ফাঞ্চাইজিগুলো এবং সেই নিয়মগুলোর পরিবর্তনের দাবিও তুললো তারা।

করোনার মধ্যেই সংযুক্ত আরব আমিরাতে সুষ্ঠভাবে আইপিএল আয়োজনের জন্য বেশ কিছু নির্দেশিকা জারির সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআই। তবে বিসিসিআইয়ের স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিওর বা এসওপি-তে যে যে নিয়মের উল্লেখ করা হয়েছে, তার মধ্যে বেশ কিছু বিষয় পছন্দ হয়নি ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলির। অপছন্দের বিষয়গুলোতে পরিবর্তনের প্রস্তাব দিয়েছে তারা।

বিসিসিআইয়ের তৈরি করা এসওপি অনুযায়ী, আরব আমিরাতে পৌঁছে ক্রিকেটার এবং সাপোর্ট স্টাফদের ছয় দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। কিন্তু ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি চাচ্ছে দিনের সংখ্যা ছয় থেকে কমিয়ে তিন করা হোক।

তাদের কথায়, করোনার কারণে দীর্ঘদিন প্র্যাকটিসের বাইরে ক্রিকেটাররা। এ কারণে আরব আমিরাতে পৌঁছেই যদি তিনদিনের কোয়ারেন্টাইনের পর ক্রিকেটাররা মাঠে নেমে পড়তে পারেন, তবে আরও বেশি অনুশীলনের সময় পাবেন তারা।

কিন্তু ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড চায়, আমিরাতে পৌঁছনোর পর প্রথম, তৃতীয় ও ষষ্ঠদিন ক্রিকেটারদের করোনা টেস্ট হবে। এই তিন টেস্টে রিপোর্ট নেগেটিভ এলে তবেই তারা অনুশীলনে নামতে পারবেন।

কিন্তু ফ্র্যাঞ্চাইজির দাবি মানতে গেলে, দুইয়ের বেশি টেস্টের উপায় নেই। তাই এ নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বুধবার বৈঠকে বসবে আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিল এবং ফ্র্যাঞ্চাইজির কর্মকর্তারা।

বিসিসিআই চায় ২০ আগস্ট আরব আমিরাত পৌঁছাক প্রতিটি দল। তবে চেন্নাইসহ একাধিক ফ্রাঞ্চাইজি আরও আগে পৌঁছে যেতে চায় সেখানে।

তাই ১৫ আগস্টের পরই ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলিকে আরব আমিরাত যাওয়ার অনুমতি দেয়া যায় কি না, সে প্রস্তাবও বৈঠকে রাখছে দলগুলি। পাশাপাশি বিসিসিআই জানিয়েছে, ক্রিকেটারদের মতো তাদের পরিবার এবং দলের মালিকদেরও বায়ো-বাবলের মধ্যে থাকতে হবে। সে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার দাবিও জানাচ্ছে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি।

এখানেই শেষ নয়, দলগুলির বক্তব্য- টানা ৮০দিন বায়ো-বাবলে সবার থাকা বেশ কঠিন। তাই নির্দিষ্ট রেস্তোরাঁ কিংবা পূর্বনির্ধারিত কোনও স্থানে ক্রিকেটারদের যাওয়ার অনুমতি দিলে ভাল হয়। একইসাথে হোটেলে খাবার ডেলিভারিতেও ছাড় চায় তারা। এ ক্ষেত্রে কনট্যাক্ট লেস খাবার ডেলিভারির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। সে সঙ্গে ডিনারের আগে ক্রিকেটারদের যথাযথ নোটিস দেওয়ারও প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

আইএইচএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]