শ্রীলঙ্কা সফর দিয়ে ক্রিকেটে ফিরতে মুখিয়ে তাইজুল

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৫:৪৭ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

লঙ্কান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কঠোর নিয়ম নীতি এঁটে দিয়েছে। ১৪ দিনের কোয়ারেনটাইনই শুধু নয় বাংলাদেশ থেকে ক্রিকেটারের বাইরে চিকিৎসক এমনকি বল বয়, ম্যাসাজম্যান ও আলাদা সাপোর্টিং স্টাফও নিয়ে যাওয়া যাবে না। আবার শ্রীলঙ্কাও কোন বল কিংবা ম্যাসাজ বয় সরবরাহ করা হবে না। এমন কঠোরতম শর্ত মানবে বলেই বিসিবি নিজেদের অবস্থান ব্যাখ্যা করেছে। তবে সফর বাতিলের ঘোষণা করেনি তারা।

বরং চেষ্টা চলছে সফর যাতে হয়। লঙ্কান ক্রীড়ামন্ত্রী স্বয়ং তাদের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে কঠোর নীতি ও মানসিকতা পাল্টে কোয়ারেনটাইন বিষয়ে নমনীয় হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তাতে করে বিসিবিও দেখছে আশার আলো।

বিসিবির ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি চেয়ারম্যান আকরাম খান, সিইও নিজামউদ্দীন চৌধুরী সুজনসহ শীর্ষ কর্মকর্তাদেরও ধারণা, শেষ পর্যন্ত লঙ্কানরা নমনীয় হবেন এবং কঠোর অবস্থা থেকে সরে এসে একটা গ্রহণযোগ্য সমাধানে ব্রতী হবেন।

এদিকে ক্রিকেটাররাও কায়মনোবাক্যে চাচ্ছেন, শ্রীলঙ্কা সফর হোক। বাংলাদেশের অন্যতম সেরা বাঁ-হাতি স্পিনার তাইজুল ইসলাম মুখিয়ে আছেন শ্রীলঙ্কা সফরে মাঠে নামতে। তাইজুল মানছেন, যে কোনো ক্রিকেটারের জন্য দীর্ঘ সময় মাঠের বাইরে থাকা খুব কঠিন।

সেই মার্চের তৃতীয় সপ্তাহের পর আর কোন খেলা নেই। এখন সময় কাটছে অনুশীলনে; কিন্তু সেটাই যথেষ্ঠ নয়। নিজেকে ধরে রাখতে আর ছন্দে থাকতে চাই ম্যাচ খেলা। ফিজিক্যাল ট্রেনিং আর নেটে ব্যাটিং-বোলিং দিয়ে তো আর ম্যাচের স্বাদ মিটবে না!

ফর্ম ধরে রাখতে হলে চাই ম্যাচ প্র্যাকটিস এবং ম্যাচ খেলা। শ্রীলঙ্কায় তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ হলে সেই ম্যাচ খেলাটা হবে। এই আশায় প্রহর গুনছেন তাইজুল। তাইতো মুখে এমন আশার বাণী, ‘আসলে আমরা যারা ক্রিকেটার বা যে কোন ইভেন্টের খেলোয়াড়ই হোক, এতদিন খেলার বাইরে থাকাটা খুব কঠিন। আমরা সবসময় খেলতে পছন্দ করি। সামনে শ্রীলঙ্কা সিরিজ আছে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ এটা হলে আমরা সবাই আবার মাঠে ফিরতে পারবো। আমরা আগের পরিস্থিতিতে ফিরতে পারলে ভালো লাগবে।’

এআরবি/আইএইচএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]