সতীর্থ ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ ও মাঠকর্মীদের মাস্ক উপহার মুশফিকের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৪:৩৭ পিএম, ০১ অক্টোবর ২০২০

ঘড়ির কাঁটায় তখন দুপুর আড়াইটা। মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটের গ্র্যান্ডস্ট্যান্ডের সামনে গোল হয়ে ফুটবল খেলছিলেন মুশফিক, তামিম, মাহমুদউল্লাহ, মুমিনুল, লিটন, সৌম্য, তাইজুল, মিরাজ, মোস্তাফিজ, তাসকিন এবং রুবেলরা।

হঠাৎ শহীদ জুয়েল স্ট্যান্ডের দোতলা থেকে মাঠের দিকে ক্যামেরা তাক করে থাকা অপেক্ষমান ফটো জার্নালিস্ট ও টিভি ক্যামেরা ক্রু‘দের দিকে হাত নেড়ে মুশফিকুর রহীমের ঝেড়ে গলায় আহ্বান, ‘ভাই এদিকে, এদিকে...।’

মাঠে উপস্থিত প্রিন্ট, টিভি ও অনলাইনের অন্য সাংবাদিকদের বুঝতে একটু সমস্যা হলো। কি ব্যাপার? মুশফিক হঠাৎ এত জোরে কেন ক্যামেরা ক্রু ও ফটো জার্নালিস্টদের ডাকলেন? ঝেড়ে গলায় এদিকে এদিকে বলেই বা কি বোঝানোর চেষ্টা মিস্টার ডিপেন্ডেবলের?

প্র্যাকটিস কভার করতে যাওয়া সাংবাদিকরা কিছু বোঝার আগেই শেরে বাংলার গ্র্যান্ড স্ট্যান্ডের এক তলার ওপরে ক্যামেরা হাতে ছুটে আসলেন বিসিবির ফটোগ্রাফার রতন গোমেজ। তিনিও সেখান থেকে লেন্স ঠিক করে ক্যামেরা তাক করলেন।

ততক্ষণে জাতীয় দলের সব ক্রিকেটার (আবু জায়েদ রাহী ছাড়া), কোচিং ও সাপোর্টিং স্টাফরা সারিবদ্ধ হয়ে দাঁড়ালেন। সামনের সারিতে বসলেন একঝাঁক ক্রিকেটার।

রীতিমত ফটোসেশন। জাতীয় দলের পুরো বহরের গ্রুপ ছবি তোলার ধুম পড়ে গেল। এটা কোন মূল জাতীয় দল নয়। প্রাথমিক দল। আর শ্রীলঙ্কা সফরও বাতিল। তাহলে হঠাৎ কোচিং-সাপোর্টিং স্টাফদের এভাবে দাঁড় করিয়ে গ্রুপ ছবি তোলা কেন?

jagonews24

সেই উত্তর খুঁজতে গিয়েই বেরিয়ে এলো আসল তথ্য। জানা গেল, মুশফিকুর রহীমের হাত নেড়ে শহীদ মোস্তাক স্ট্যান্ডের দোতলায় ক্যামেরা ক্রুদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার রহস্যও।

আসলে মুশফিক আজ ১ অক্টোবর বৃহস্পতিার তার ‘এম আর’ (মুশফিকুর রহিম) ফাউন্ডেশন থেকে সহযোগি সব ক্রিকেটার, কোচ, কোচিং-সাপোর্টিং স্টাফ এবং মাঠ কর্মীদের জন্য বিশেষ মাস্ক উপহার দিয়েছেন। সেই মাস্ক পরেই মূলতঃ ছবি তুললেন সবাই।

শুধু জাতীয় দলের বহর নয়। শেরে বাংলার মাঠ কর্মীদের জন্য মাস্ক আনতেও ভুল হয়নি মুশফিকের। আজ বৃহস্পতিবার মাঠে কর্তব্যরত সব গ্রাউন্ডসম্যানই মুশফিকুর রহীমের ফাউন্ডেশন থেকে উপহার পাওয়া মাস্ক পরে কাজ করলেন। তাদেরও মাস্ক পরা অবস্থায় গ্রুপ ছবি তোলা হলো।

মাঠে উপস্থিত অনেকের নজর এড়িয়ে যায় ঘটনাটি। পরে ক্যামেরাম্যান রতন গোমেজ কাউকে কাউকে বিষয়টি জানান। মিস্টার ডিপেন্ডেবল তার নিজের ফাউন্ডেশনের বানানো বিশেষ মাস্ক উপহার দিলেন শেরে বাংলায় জাতীয় দলের অনুশীলনের সাথে সম্পৃক্ত ক্রিকেটার, কোচ, সাপোর্টিং স্টাফ ও মাঠ কর্মীদের।

এআরবি/আইএইচএস/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]