প্রয়োজনে ১০ রান করতে পারলেও খুশি সোহান

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৫০ পিএম, ৩০ নভেম্বর ২০২০

কাগজে-কলমে তেমন শক্তিশালী না হলেও টুর্নামেন্টের প্রথম দুই ম্যাচেই জয়ের দেখা পেয়েছে মিনিস্টার গ্রুপ রাজশাহী। তৃতীয় ম্যাচে হারলেও, ফরচুন বরিশালকে একদমই স্বস্তি দেয়নি নাজমুল হোসেন শান্তর নেতৃত্বাধীন দলটি। রাজশাহীর প্রথম জয়ের ম্যাচে সবার মুখে মুখে ছিল শেখ মেহেদি হাসানের নাম। তবে কম অবদান ছিল না উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান নুরুল হাসান সোহানেরও।

দলের বিপদের মুখে শেখ মেহেদির সঙ্গে ষষ্ঠ উইকেটে গড়েছিলেন ৮৯ রানের জুটি, তাও মাত্র ৪৯ বলে। আউট হওয়ার আগে ২ চার ও ৩ ছয়ের মারে করেন ২০ বলে ৩৯ রান। পরে মেহেদি ফিফটি হাঁকালে ১৬৯ রানের সংগ্রহ পায় রাজশাহী। দ্বিতীয় ম্যাচেও শেষদিকে নেমে ৭ বলে ১১ রান করে দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন সোহান। তবে শেষ ম্যাচে রানের খাতা খোলা হয়নি তার।

প্রথম দুই ম্যাচে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখলেও ছয় নম্বরের আগে ব্যাটিংয়ে নামার সুযোগ নেই সোহানের। আর কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে এত নিচে নামলে বড় ইনিংস খেলার জন্য যথেষ্ঠ বলও পাওয়া যায় না। তবে এতে কোনো সমস্যা নেই সোহানের। নিজে কত বড় ইনিংস খেললেন সেটি নিয়ে ভাবতে রাজি নন ২৭ বছর বয়সী এ উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান।

দলের প্রয়োজনে যত রান করা সম্ভব, তা করতে পারলেই খুশি সোহান। সোমবার রাজশাহীর অনুশীলনের ফাঁকে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপে তিনি বলেন, ‘টি-টোয়েন্টি বা ওয়ানডেতে ৬-৭ নম্বরে ব্যাটিং করলে খুব বেশি সময় পাওয়া যায় না। তবে আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হলো দলের হয়ে যদি ১০ রানও করা যায়। আমি গুরুত্ব দিই যেন যেকোন অবস্থা থেকেই যেন ম্যাচটা শেষ করে আসতে পারি।’

টুর্নামেন্ট শুরুর আগেই বড়সড় এক ধাক্কা খেয়েছেন সোহানরা। উদ্বোধনী ম্যাচের আগেরদিন অনুশীলনের সময় ফুটবল খেলতে গিয়ে গোড়ালিতে চোট পান পেস বোলিং অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। যাকে প্লেয়ার্স ড্রাফট থেকে সবার আগে দলে নিয়েছিল রাজশাহী। টুর্নামেন্টের প্রথম সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও মাঠে ফেরা হয়নি সাইফের।

দলের কোচ সারোয়ার ইমরান জানিয়েছিলেন, অন্তত সাত থেকে দশদিন বাইরেই থাকতে হবে সাইফউদ্দিনকে। সোহানও জানালেন প্রায় একই কথা। তিনি আশাবাদী, টুর্নামেন্টের মাঝপথেই ফিরে আসবেন সাইফ। সোহানের ভাষ্য, ‘সাইফউদ্দিনের মত একজন ক্রিকেটার দলে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আশা করি টুর্নামেন্টের মাঝামাঝিতে তাকে আমরা পাব। ও দলে আসলে দল আরও শক্ত হবে।’

এ সময় সামনের ম্যাচগুলোর গুরুত্বের বিষয়টি উল্লেখ করে সোহান বলেন, ‘আমাদের শুরুটা ভালো হয়েছে। প্রথম দুইটা ম্যাচেই ভালো দলের বিপক্ষে জিতেছি। তিন নম্বর ম্যাচটা হেরেছি। আমার কাছে মনে হয় বাকি যে ম্যাচগুলো আছে সবগুলোই গুরত্বপূর্ণ। আমরা আমাদের শতভাগ দিব। জেতার জন্যই মাঠে নামব।’

তিনি আরও যোগ করেন, 'প্রতিটি টুর্নামেন্টই বড়, যেহেতু ৭-৮টা ম্যাচ আছে এখানে মোমেন্টামটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আমরা এটাই চেষ্টা করব পরের ম্যাচটা জিতে মোমেন্টামটা আমাদের দিকে নিয়ে আসার। কারণ যেটা বললাম নেক্সট ২-৩ টা ম্যাচ আমাদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ। পরের ২-৩ ম্যাচের উপরই টুর্নামেন্টে আমাদের পজিশন, কোথায় থাকব এসব নির্ভর করে।

এসএএস/আইএইচএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]