উইকেট খুবই খারাপ, মানিয়ে নিয়ে ব্যাটিং করতে হবে : সুজন

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৬:০৫ পিএম, ০৩ ডিসেম্বর ২০২০

প্রথম দিন বেক্সিমকো ঢাকা আর মিনিস্টার রাজশাহীর খেলা দেখে মনে হচ্ছিল, বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি আসর ভাসবে রানবন্যায়। যে ম্যাচে রাজশাহীর ১৬৯ রানের জবাবে শেষ বলে গিয়ে ১৬৭‘তে থেমেছিল ঢাকা। কিন্তু তারপর আর সে ধারা বজায় থাকেনি।

মাঝে কয়েকটি ম্যাচ খুব বেশি লো-স্কোরিং হয়েছে। ৮০‘র ঘরে অলআউটের ঘটনা ঘটেছে। ১০০‘র আশপাশের অতি নগণ্য স্কোর তাড়া করে জিততেও নাভিশ্বাস উঠেছে। আবার কিছু খেলায় গড়পড়তা মোটামুটি স্কোর হয়েছে।

তবে মোটা দাগে বলেই দেয়া যায়, টি-টোয়েন্টি আসর যেমন আকর্ষণীয় হয়, স্কোর লাইন যতটা মোটাতাজা হয়, চার ও ছক্কার ফুলঝুরি ছোটে; বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি আসরে তা হয়নি। টি-টোয়েন্টির মূল আকর্ষণ ছিল অনুপস্থিত।

সেটা কেন? উইকেটের কারণে? উইকেট কি স্লো অ্যান্ড লো? বল থেমে ও স্লথ হয়ে ব্যাটে আসছে? তাই স্ট্রোক-প্লে করা যাচ্ছে না বলেই কি চার ও ছক্কার অবাধ প্রদর্শনী হচ্ছে না?

নাকি সমস্যা ও ব্যর্থতা ব্যাটসম্যানদের? দীর্ঘ ৭-৮ মাস খেলার বাইরে থেকে হঠাৎ টি-টোয়েন্টির মেজাজ, ধরণ ও গতি-প্রকৃতির সাথে মানিয়ে নিতে কষ্ট হচ্ছে কি ক্রিকেটারদের?

আগের দিন ঢাকার অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম জানিয়েছেন, উইকেট ধীরগতির। বেশিরভাগ ম্যাচ হচ্ছে ব্যবহৃত উইকেটে, তাই রান কম হচ্ছে। অভিজ্ঞ খালেদ মাহমুদ সুজনও প্রায় একই কথা বলেছেন। বেক্সিমকো ঢাকা কোচের ব্যাখ্যা শুনে মনে হচ্ছে, আসল সমস্যাটা উইকেটেরই।

আর দীর্ঘ অভিজ্ঞতা থেকে সুজনের অনুভব, রাতে শিশির পড়ে বেশ। আর শিশিরভেজা পিচে বল স্কিড করে। ব্যাটে আসে দ্রুত। তাই শটস খেলা তুলনামূলক সহজ হচ্ছে। আর সে কারণেই রাতের ম্যাচে রান উঠছে বেশি।

সুজন বলেন, ‘ছেলেরা বলছে বল একটু গ্রিপ করছে। অন্য দলের ছেলেদের কাছ থেকেও শুনি। আমি নিজে যেহেতু ব্যাটিং করি না, তাই বলতে পারছি না। কিন্তু যেহেতু লো স্কোরিং হচ্ছে, বুঝাই যাচ্ছে উইকেটে ওরকম পেস ছিল না। মারার মত যে পেস থাকা দরকার, সেটা ছিল না। দুই দলের বোলাররা সুযোগ ভালো ব্যবহার করেছে। রাতের খেলায় যেহেতু শিশির থাকে, তাই বল স্কিড করে ব্যাটে চলে গেছে। যার জন্য বড় স্কোরের একটা ম্যাচ হয়েছে। এমনিতে আমি বলব, উইকেট খুবই খারাপ। আমার মনে হয় আমাদের মানিয়ে নিয়ে ব্যাটিং করতে হবে।’

এআরবি/এমএমআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]