সেই ভুল আর করতে চান না সাইফউদ্দিন

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:১৯ পিএম, ১১ ডিসেম্বর ২০২০

এই তো আগের রাউন্ডে ২২০ রানের হিমালায়সম স্কোর গড়েও শেষ রক্ষা হয়নি। তামিম ইকবালের ফরচুন বরিশালের কাছে হেরে গেছে নাজমুল হোসেন শান্তর মিনিস্টার রাজশাহী।

ঐ এক হারে অনেক বড় ক্ষতি হয়ে গেছে। জিতলে শেষ চার নিশ্চিতই থাকতো রাজশাহীর। কিন্তু তা না হওয়ায় এখন কঠিন সমীকরণের মুখে সারোয়ার ইমরানের শিষ্যরা।

আগামীকাল (শনিবার) রবিন লিগের শেষ ম্যাচে গাজী গ্রুপ চট্টগ্রামের বিপক্ষে জয় ছাড়া আর বিকল্প পথ নেই রাজশাহীর। পাশাপাশি বরিশাল আর ঢাকা ম্যাচের দিকেও তাকিয়ে থাকতে হবে।

এমন এক দমবন্ধ অবস্থায় কি ভাবছে রাজশাহী শিবির? অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের কথা, ‘আমরা শেষ ম্যাচটা ২০০ প্লাস রান করে হেরেছি। সে ম্যাচ ব্যাটসম্যানদের বাড়তি একটা আত্মবিশ্বাস দেবে। তবে বোলাররা খারাপ করেছে। খারাপের পর ভালো আসে। ইনশাআল্লাহ শেষ ম্যাচে বোলাররাও ভালো করবে। এটার জন্য আমি নিজেও অপেক্ষা করছি। ভালো কিছু হবে আশা করি।’

সাইফউদ্দিন জানান, বরিশালের বিপক্ষে হার নিয়ে হতাশা নয়, চট্টগ্রামের বিপক্ষে আগামীকালের ম্যাচে জয়ের কথা ভেবেই মাঠে নামবেন তারা। তিনি বলেন, ‘প্রত্যেক ম্যাচের আগে পরিকল্পনা থাকে ভালো ক্রিকেট খেলার, ম্যাচ জেতার। দুর্ভাগ্য যে, আমরা শেষের চার-পাঁচটা ম্যাচ ভালো ক্রিকেট খেলে জয়ের কাছাকাছি গিয়ে হেরেছি। যেহেতু আমাদের সুযোগ আছে জিতলেই চলে যাব, তাই লক্ষ্য থাকবে কালকের ম্যাচটা জেতার।’

শীর্ষে থাকা চট্টগ্রামের বিপক্ষে রবিন লিগের প্রথমপর্বের ম্যাচে রাজশাহী হেরেছিল মাত্র ১ রানে। ঐ ন্যুনতম ব্যবধানে হার কি জয়ের আত্মবিশ্বাস জোগাবে? লিটন, সৌম্য, মিঠুন, মোস্তাফিজদের নিয়ে গড়া শক্তিশালী চট্টগ্রামকে হারাতে পারে রাজশাহীও, এমন বিশ্বাস কি জন্মেছে ভেতরে? সাইফউদ্দিনের জবাব, ‘চট্টগ্রাম নিঃসন্দেহে খুব ভালো খেলছে। ওরা ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং-তিন ডিপার্টমেন্টেই দুর্দান্ত পারফরম করছে।’

বরিশালের বিপক্ষে ২২০ রানের বড় স্কোর গড়েও হারের কারণ ব্যাখ্যা করে সাইফউদ্দিন বোঝানোর চেষ্টা করেন, তার এবং অফস্পিনার মেহেদির বোলিংটা ঐ ম্যাচে কার্যকর না হওয়ায় দল পারেনি। চট্টগ্রামের বিপক্ষে ম্যাচে সেই ভুল শুধরে নিতে চান পেস বোলিং এই অলরাউন্ডার।

সাইফউদ্দিন বলেন, ‘আমি আর মেহেদী রাজশাহী দলের আসল বোলার। আমরা যখন ৮ ওভারে ৮০ রান দেই (তখন জয় পাওয়া কঠিন)। যদি আরেকটু ইকোনমিক্যাল হতে পারতাম। পাওয়ার-প্লে‘তে দুই একটা উইকেট বের করে দিতে পারতাম। শান্ত যে ইনিংসটা খেলেছে, জয় প্রাপ্য ছিল। ইমন অসাধারণ ব্যাটিং করেছে। তারপরও অনেক খারাপ লাগছিল, সান্ত্বনা দেওয়ার ভাষা ছিল না। যদি সুযোগ আসে, চেষ্টা করবো এই ভুলগুলো যেন আর না করি।’

প্রসঙ্গত, গত ৮ ডিসেম্বর শেরে বাংলায় হাইস্কোরিং এক ম্যাচে নাজমুল হাসান শান্তর ৫৫ বলে ১০৯ রানের ইনিংসে ভর করে ৭ উইকেটে ২২০ রানের পাহাড় গড়েছিল রাজশাহী। কিন্তু পারভেজ হোসেন ইমনের ৪২ বলে ১০০ রানের আরেকটি দানবীয় ইনিংসে ১১ বল হাতে রেখেই এই রান তাড়া করে ফেলে ফরচুন বরিশাল।

এআরবি/এমএমআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]