টাইগারদের ফিল্ডিং নিয়ে নতুন ভাবনা কোচের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৩:৫২ এএম, ১২ জানুয়ারি ২০২১

নয়মাস পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার অপেক্ষায় টাইগাররা। ভক্ত ও সমর্থকরা অধীর অপেক্ষায় উন্মুখ, করোনায় দীর্ঘ সময় ওয়ানডে-টেস্ট না খেলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে টিম বাংলাদেশের ফেরাটা কেমন হয়? ব্যাটিং, বোলিংয়ের পাশাপাশি অনুরাগীদের চোখ ফিল্ডিংয়েও।

তবে ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুক মনে করেন, ফিল্ডিংয়ে ভালই করবে টাইগাররা। কারণ, তার অনুভব- আন্তর্জাতিক ক্রিকেট না খেলেও ঘরোয়া ক্রিকেটেও জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের গড়পড়তা ফিল্ডিংয়ের মান ভাল ছিল।

প্রসঙ্গতঃ তিন দলের ওয়ানডে আসর প্রেসিডেন্টস কাপে কুকও ছিলেন এক দলের (নাজমুল হোসেন শান্ত বাহিনীর) কোচ। খুব স্বাভাবিকভাবেই তিনি মাঠে খেলা চলাকালীন সময় ছাড়াও প্র্যাকটিসেও খুব কাছ থেকে সবাইকে দেখেছেন।

সেই বোধ-উপলব্ধি থেকেই রায়ান কুকের মনে হয়, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার আগে ঘরোয়া ক্রিকেটে দুটি আসরে অংশ নিয়ে নিজেদের প্রস্তুত করতে পেরেছে ক্রিকেটাররা। তাই ফিল্ডিং কোচ আশাবাদী, ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাথে সিরিজে জাতীয় দলের ফিল্ডিংটা ভাল হবে।

তাই মুখে এমন কথা, ‘আমার মনে হয় তারা (ক্রিকেটাররা) বেশ কিছু ম্যাচ পেয়েছে ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টের মধ্য দিয়ে। পঞ্চাশ ওভারের টুর্নামেন্টের সময় আমি এখানে ছিলাম এবং সেখানে তাদের ফিল্ডিং খুবই প্রশংসনীয় ছিল। তাই আমার বিশ্বাস সবারই বেশ সুস্থ, সতেজ এবং প্রস্তুত থাকবার কথা।’

তবে টাইগারদের ফিল্ডিং কোচ অকপটে স্বীকার করেছেন, বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের ফিল্ডিং ও ক্যাচিং টেকনিকে উন্নতি দরকার। সেই উন্নতির তাগিদ অনুভবের পাশপাশি রায়ান কুক মনে করেন পরবর্তী দুই বছরে বাংলাদেশের ফিল্ডিংয়ের উন্নতি হবে। ‘আমার মনে হয় ক্রিকেটারদের মধ্যে দারুণ এনার্জি আছে। তারা তাদের ফিল্ডিং নিয়ে পরিশ্রম করছে। অতিরিক্ত কাজ করতে চাচ্ছে এবং খুব চেষ্টা করছে যা আমি পছন্দ করি।’

তবে তাদের টেকনিক নিয়ে অনেক কাজ করতে হবে, বিশেষ করে ক্যাচিং এবং গ্রাউন্ড ফিল্ডিংয়ের কিছু দিক নিয়ে; কিন্তু সাধারণত তাদের থ্রোয়িং বেশ ভালো। তাই আমি আশা করছি যে তাদের যে উন্নতি করার এই উৎসাহ তা তাদের আগামী দুই বছরে উন্নতি করতে সাহায্য করবে।’

বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট শেষে কিছু দিনের বিশ্রাম। তাই তাদেরকে আবার ছন্দে ফেরাতে যা যা করণীয় তাই করা হচ্ছে। এমনটা জানিয়ে রায়ান কুক বলেন, ‘খেলোয়াড়রা টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টের পর একটি বিরতি থেকে ফিরেছে। তাই তাদেরকে ধীরে ধীরে অনুশীলনের মধ্যে ফিরিয়ে আনছি, মাঠে তাদের ম্যুভমেন্ট এবং বেসিকের ওপর কাজ করছি, তাদের থ্রোয়িংকে আগের জায়গায় আনার চেষ্টা করছি যেহেতু বেশ কিছু সময় পর তারা ফিরছে। কিছু ক্ষেত্রে আপনি একটু অনভ্যস্ত হয়ে গিয়ে চোট বাধাতে পারেন। তাই তাদেরকে ধীরে ধীরে আগের জায়গায় আনার চেষ্টা করছি। সিরিজের কাছাকাছি আসতে আসতে আমরা অনুশীলনের তীব্রতা বাড়াবো।’

এআরবি/আইএইচএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]