ঢাকায়ই সিরিজ নিজেদের করে নেবে টাইগাররা?

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:২১ পিএম, ২১ জানুয়ারি ২০২১

কী হবে, কী হতে পারে? তা কম বেশি সবারই জানা ছিল। খেলা না দেখেও শুধু দুই দলের ক্রিকেটারদের নাম আর অভিজ্ঞতাকে মানদণ্ড ধরেই সবাই বাংলাদেশকে একবাক্যে ‘ফেবারিট’ মেনে নিয়েছেন।

সিরিজ শুরুর আগে সবরকম হিসেব-নিকেশেই টাইগাররা ছিল এগিয়ে। মাঠেও তাই হয়েছে। আহামরি না হলেও মোটামুটি টিম পারফরম্যান্স দেখিয়ে প্রথম ওয়ানডেতে ৬ উইকেটের সহজ জয় পেয়েছে তামিম ইকবালের দল।

সব মিলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরাটা ভালোই হয়েছে তামিম, সাকিব, মুশফিক-রিয়াদদের। আগামীকাল ২২ জানুয়ারি শুক্রবার, মিরপুরে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে। সবার প্রত্যাশা দ্বিতীয় ম্যাচে টাইগারদের পারফরম্যান্স আরও উন্নত ও উজ্জ্বল হবে। আর যদি তা-ই হয়, তবে শুক্রবারের ম্যাচটি হতে পারে আরও একতরফা।

তিন ম্যাচের সিরিজের শেষ ম্যাচটি আগামী ২৫ জানুয়ারি চট্টগ্রামে। তার আগে ঢাকায়ই সিরিজ নিজেদের করে নিতে চাইবে টাইগাররা। প্রথম ম্যাচের পারফরম্যান্সই বলে দিয়েছে দু’পক্ষের শক্তির ফারাক অনেক। কাজেই ক্যারিবীয়দের সিরিজে ফেরার সম্ভাবনা খুব কম। বরং ঢাকাতেই সিরিজ পকেটে পুরে নেয়ার সম্ভাবনা খুব বেশি তামিম বাহিনীর।

এক বছর নিষিদ্ধ থাকার পর ঘরোয়া ক্রিকেটে ফিরে কিছু করতে না পারলেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বল হাতে নিয়েই দুরন্ত-দূর্বার সাকিব আল হাসান। মাত্র ৮ রানে ৪ উইকেট দখল করে ক্যারিবীয়দের ব্যাটিং মেরুদণ্ড ভেঙে খান খান করে দিয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।

এদিকে ওয়ানডে অভিষেকে আশা জাগানিয়া বোলিং করে আবির্ভাবে আলোর ঝলকানি হাসান মাহমুদের। এ তরুণ পেসারও বল হাতে দারুণ নৈপুণ্য দেখিয়েছেন। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের শুরুতেই তুলে নিয়েছেন ২৬ রানে ৩ উইকেট।

বাঁহাতি মোস্তাফিজুর রহমানও (৬ ওভারে ২/২০) কম যাননি। তার কৌণিক ডেলিভারি ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যানদের ভুগিয়েছে। পাশাপাশি এতকাল যে কাজটি করতে সমস্যা হতো, সেই কাজটি মানে বল ভেতরে আনার দক্ষতাও প্রথম ওয়ানডেতে দেখিয়েছেন কাটার মাস্টার।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ওপেনার সুনিল আমব্রিস মোস্তাফিজের ভেতরে আসা ডেলিভারিতেই হয়েছেন লেগবিফোর উইকেট। এই তিনজনের সাঁড়াশি আক্রমণে দিশেহারা ক্যারিবীয়দের অপর উইকেটটি জমা পড়েছে অফস্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজের (১/২৯) ঝুলিতে।

টাইগার বোলারদের মধ্যে একমাত্র উইকেট পাননি পেসার রুবেল হোসেন। ৬ ওভারে ৩৪ রান দিয়ে উইকেটশূন্য রুবেলের বলে তেমন ধারও ছিল না। গতি কারুকাজ দুই-ই ছিল কম। তারপরও মোস্তাফিজ-হাসান মাহমুদের পেসের তোড় আর সাকিবের স্পিন ভেলকির মুখেই ১২২ রানের মামুলি পুঁজিতেই গুটিয়ে যায় জেসন মোহাম্মদের দল।

শুধু অল্পরানে অলআউট হওয়াই শেষ কথা নয়, ক্যারিবীয় ব্যাটিংও ছিল নেহায়েত সাদামাটা ও নিম্নমানের। একমাত্র প্রতিষ্ঠিত উইলোবাজ রভম্যান পাওয়েল আর কেইল মেয়ার্স ছাড়া বাকিদের ব্যাটিং দেখে মনেই হয়নি ওয়ানডে পারফরমার।

এমন এক আনকোরা ও অনভিজ্ঞ দলের বিপক্ষে বাংলাদেশের জয়টা হতে পারতো আরও অনায়াস ও বড় ব্যবধানে। সেটা হয়নি বাঁহাতি স্পিনার আকিল হোসেনের কারণে।

সাকিবের মত তিনিও টার্ন আদায় করে নিয়েছেন। আকিলের বাড়তি টার্নেই আউট হয়েছেন লিটন দাস, সাকিব ও নাজমুল হোসেন শান্ত। ওপেনার লিটন আর বাঁহাতি সাকিব বোল্ড হয়েছেন উইকেটে সেট হবার পর। আর তিন নম্বরে নেমে আকিলের স্পিন ঘূর্ণিতে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে পড়ে মাত্র ১ রানে সাজঘরে ফিরেছেন শান্ত।

লিটন (১৪), সাকিব (১৯) আর শান্ত (১) রান না পেলেও অল্পের জন্য ফিফটি হাতছাড়া হয়েছে অধিনায়ক তামিম ইকবালের। স্লো ট্র্যাকে ৮০ বলে ৪৪ রানের দায়িত্বশীল ইনিংস খেলে প্রতিপক্ষ অধিনায়ক জেসন মোহাম্মদের বলে আউট হয়েছেন টাইগার ক্যাপ্টেন। এরপর মিস্টার ডিপেন্ডেবল মুশফিক (৩১ বলে ১৯*) আর তার ভায়রা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (১৬ বলে ৯*) জুটি গড়ে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দিয়েছেন, তখনো খেলার ৯৭ বল বাকি।

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে হয়তো ব্যাট হাতে লিটন, সাকিব, শান্তরাও জ্বলে উঠবেন। আর সেটা হলে ক্যারিবীয়দের কপালে খারাবিই আছে। এক ম্যাচ হাতে থাকতেই সিরিজ নিজেদের করে নেবে টাইগাররা!

এআরবি/এমএমআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]