অভিষেকে হাসান মাহমুদের অগ্নিরূপে মোটেও অবাক নন গিবসন

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৮:৪৪ পিএম, ২১ জানুয়ারি ২০২১

অভিষেকে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা জাগিয়ে ৬ ওভারে ২৮ রান দিয়ে ৩ উইকেট। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের প্রথম ম্যাচে এর চেয়ে স্মরণীয় আর কি হতে পারে?

২০ জানুয়ারি বুধবার সে স্মরণীয় অভিষেকই হয়েছে হাসান মাহমুদের। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের পর বাংলাদেশের দ্বিতীয় সেরা বোলিং ফিগারটি তার হলেও, তরুণ হাসান মাহমুদ কিন্তু তিন ওভারের প্রথম স্পেলে সুবিধা করতে পারেননি। ১৪ রান দিয়েও কোনো উইকেট পাননি।

কিন্তু দ্বিতীয়বার বল করতে এসেই দুর্বার হয়ে ওঠেন এবং একটি ভাইটাল ব্রেক থ্রুও এনে দেন। ফিরিয়ে দেন রভম্যান পাওয়েলকে। মাত্র ৫৬ রানে ইনিংসে অর্ধেকটা শেষ হবার পরও প্রচন্ড সাহস আর আস্থায় স্বচ্ছন্দেই খেলছিলেন রভম্যান পাওয়েল; কিন্তু হাসান মাহমুদের চমৎকার আউট সুইংয়ে ইতি ঘটে তার ইনিংস।

অফ স্টাম্পের ঠিক বাইরে থ্রি কোয়ার্টার লেন্থে পিচ পড়ে ছোট্ট আউট সুইং করে বেরিয়ে যাওয়া ডেলিভারি ছুঁয়ে নিয়ে যায় রভম্যান পাওয়েলের ব্যাট। এছাড়া রেমন রেফার ও আকিল হোসেনও আউট হন হাসান মাহমুদের বলে। উইকেটে এসে হাসান মাহমুদের ইন কামিং ডেলিভারিতে লেগবিফোর আউট হন রেমন রেফার।

ক্যারিয়ারের শুরুতে হাসান মাহমুদের বোলিং দেখে সবাই খুশি। তবে শিষ্যের এমন বোলিং নৈপুণ্যে মোটেও অবাক নন বোলিং কোচ ওটিস গিবসন। আজ বৃহস্পতিবার হাসান মাহমুদের বোলিং নিয়ে গিবসন বলেন, ‘না, না সে (হাসান) আমাকে একদমই অবাক করেনি।’

টাইগার পেস বোলিং কোচ বোঝানোর চেষ্টা করেন, হাসান মাহমুদের ওপর তাদের আস্থা ছিল। এ কারণে মুখে এমন কথা, ‘এজন্যই তাকে একাদশে রাখা হয়েছিল। কারণ আমরা তার উন্নতি দেখেছি। সে প্রায় গত ১২ মাস ধরেই আমাদের সাথে আছে। সে গত বছরের শুরুতে পাকিস্তানে খেলতে গিয়েছিল। এবারও আমাদের সাথে আছে বেশ কিছুদিন হয়েছে এবং আমরা তার ভালোই উন্নতি হতে দেখেছি। সুতরাং এটি ভালো ছিল যে, সে সুযোগ পেয়েছে এবং অভিষেকেই তিন উইকেট তার পরিশ্রমের জন্য ভালো পুরস্কার।’

ওদিকে প্রথম ম্যাচে টাইগারদের সামগ্রিক পারফরমেন্সের চুলচেরা বিশ্লেষণ করেছেন ওসি গিবসন। তার মনে হয় একটি ভালো দলগত পারফরমেন্স ছিল। তবে উইকেট বা কন্ডিশন তার মনপূতঃ হয়নি। তার ভাষায় কন্ডিশন আদর্শ ছিল না, পিচে টার্ন ছিল। তার ভাষায় সাকিব এবং মেহেদি মিরাজ ঠিক কাজটিই করেছেন।

পেসার রুবেল মোটেই ভাল করতে পারেননি। যেখানে ক্যারিবীয়দের সব উইকেটে সংগ্রহ মোটে ১২২ রান, সেখানে রুবেল ৬ ওভারে দিয়ে ফেলেছেন ৩৪ রান (কোন উইকেট নেই)। তারপরও রুবেলের কোনই সমালোচনা করেননি ওটিস গিবসন।

তার ব্যাখ্যা, ‘আমার মনে হয় পেসাররা- ফিজ এবং রুবেল শুরুতে খুবই ভালো বোলিং করেছে এবং হাসান মাহমুদের দারুণ অভিষেক হয়েছে।’

বাংলাদেশের পেস বোলিং কোচের মূল্যায়ন, ‘সবকিছু মিলিয়ে টিম পারফরমেন্সটা আদর্শ ছিল না; কিন্তু এ জয়ে সিরিজে শুভ সূচনা হয়েছে।’

এআরবি/আইএইচএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]