৭৬৯ দিন পর ম্যাচসেরার স্বীকৃতি মিরাজের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৬:৫৬ পিএম, ২২ জানুয়ারি ২০২১

মনে হয় যেন, মাত্র অল্প কিছুদিন; কিন্তু ইতিহাস ও পরিসংখ্যান জানাচ্ছে, মোটেই অল্প সময় নয়। ক্যালেন্ডারের পাতা উল্টে হিসেব করলে ৭৬৯ দিন পর আবার হলেন ম্যাচসেরা।

এটুকু শুনে মনে হতে পারে, তার আগেও বুঝি ম্যান অফ দ্য ম্যাচ হয়েছেন মেহেদি হাসান মিরাজ। আসলে তা নয়। আজ ২২ জানুয়ারি শেরে বাংলায় ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ক্যারিয়ারসেরা বোলিং করা মেহেদি হাসান মিরাজ ওয়ানডে ক্যারিয়ারেই দ্বিতীয়বারের মত হলেন ম্যাচসেরা।

ইতিহাস সাক্ষী দিচ্ছে, এর আগে মিরাজ একবারই ম্যাচসেরা হয়েছিলেন। কাকতালীয়ভাবে সেটাও এই ওয়েস্ট ইন্ডিজেরই বিপক্ষে, ২০১৮ সালের ১৪ ডিসেম্বর সিলেটে।

সে ম্যাচে মিরাজের বোলিং ফিগার ছিল ২৯ রানে ৪ উইকেট। ওই ম্যাচে মিরাজের অফস্পিনের শিকার ছিলেন ওই ট্যুরে ক্যারিবীয় ওপেনার চন্দরপল হিমরাজ, ড্যারেন ব্রাভো, শিমরন হেটমায়ার এবং ওই ট্যুরের অধিনায়ক রভম্যান পাওয়েল।

২৫ মাস পর ক্যারিয়ার সেরা বোলিং করে ম্যাচসেরা হওয়ার দিনে মেহেদি হাসান মিরাজ আরও একটি সাফল্যের ফলক স্পর্শ করেছেন। ৪৩ নম্বর ওয়ানডেতে আজ নিয়ে দ্বিতীয়বার তার নামের পাশে জমা পড়লো ৪ উইকেট।

কিন্তু মাঝখানের সময়টা ভাল কাটেনি একদমই। ২০১৮ সালের ১৪ ডিসেম্বরের পর আজকের খেলার আগে ২০ ম্যাচে আর ৩ উইকেটই পাননি মিরাজ। এই খেলা এছাড়া ৬ ম্যাচ ছিলেন উইকেটশূন্য। আর ১১ খেলায় ১টি করে উইকেট। ২ উইকেট পাবার ম্যাচই আছে মোটে তিনটি।

আজ আবার ফর্মে ফিরে তাই উৎফুল্ল মিরাজ। স্বীকার করেছেন অনেক দিন পর ওয়ানডে খেলতে নেমে প্রথম ম্যাচে ভাল বোলিং করা সম্ভব হয়নি। তবে পরের ম্যাচে মানে আজই নিজেকে ফিরে পাবার পিছনে নিজের কৃতিত্বের চেয়ে বরং সিনিয়র ক্রিকেটার ও স্পিন কোচ সোহেল ইসলামকেই কৃতিত্ব দিয়েছেন মিরাজ।

খেলা শেষে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তাই মিরাজের কথা, ‘অনেকদিন পর ম্যান অব দ্য ম্যাচ হতে পেরে আমি অনেক খুশি। দীর্ঘদিন পর আমরা ওয়ানডে খেলছি। প্রথম ম্যাচে খুব ভালো বোলিং করতে পারিনি। সিনিয়র খেলোয়াড় এবং টিম ম্যানেজম্যান্টের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা করেছি। আমি তিন ওভার বা এমন ছোট ছোট স্পেলে বোলিং করেছি।’

সাফল্যের পিছনে অধিনায়ক তামিম ইকবাল ও অগ্রজপ্রতিম রিয়াদ (মাহমুদউল্লাহ) ভাই এবং আমাদের স্পিন বোলিং কোচ সোহেল ইসলামের সঙ্গে কথা বলেছি। তামিম ভাইও সবসময় আমাকে সাপোর্ট করেছেন।’

এআরবি/এসএএস/আইএইচএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]