তবু একটি ‘আক্ষেপ’ রয়েই গেছে টাইগার অধিনায়কের

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক চট্টগ্রাম থেকে
প্রকাশিত: ০৯:৫৫ পিএম, ২৫ জানুয়ারি ২০২১

তুলনামূলক দুর্বল ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ শুরুর আগে থেকেই পরিষ্কার ফেবারিট ছিল বাংলাদেশ। তিন ম্যাচের সিরিজটিতে মাঠের খেলায়ও এর প্রমাণ দিয়েছে টাইগাররা। প্রথম ম্যাচে ৬ উইকেট, পরেরটিতে ৭ উইকেট এবং আজ (সোমবার) শেষ ম্যাচে বাংলাদেশ জিতেছে ১২০ রানের বড় ব্যবধানে।

তিন ম্যাচে সহজ তিন জয়ে বিশ্বকাপ সুপার লিগে পূর্ণ ৩০ পয়েন্ট পেয়েছে বাংলাদেশ। জাতীয় দলের স্থায়ী অধিনায়ক হিসেবে তামিম ইকবালের যাত্রার শুরুটাও হলো দুর্দান্ত। তবু একটি আক্ষেপের জায়গা থেকে গেছে টাইগার অধিনায়কের। তিন ম্যাচে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যান পঞ্চাশ পেরিয়েছেন পাঁচবার, অধিনায়ক তামিম একাই করেছেন দুইটি। কিন্তু সেঞ্চুরি হয়নি একটিও।

সিরিজ শেষে এই সেঞ্চুরি না হওয়ার আক্ষেপই শোনালেন তামিম। অন্তত একটি সেঞ্চুরির আশা করেছিলেন তিনি। সিরিজ সমাপনী প্রেস কনফারেন্সে তামিম বলেন, ‘আমাদের ওপরের পাঁচ ব্যাটসম্যানের কাছ থেকে অন্তত একটি সেঞ্চুরি আশা করেছিলাম। আজকে (সোমবার) এর বেশ ভালো সুযোগ ছিল। কিন্তু তা আমরা পাইনি। এছাড়া প্রথম দুই ম্যাচ ৭-৮ উইকেটে জিতলে আমি আরও খুশি হতাম।’

সেঞ্চুরির সুবর্ণ সুযোগ ছিল সোমবারের ম্যাচটিতে। যেখানে প্রথমবারের মতো আগে ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছে বাংলাদেশ। এ ম্যাচে ঠিক ৬৪ রানে থেমেছেন তামিম ইকবাল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহীম। এছাড়া সাকিব আল হাসান করেন ৫১ রান। শেষদিকে নামায় মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহর হাতে সময় ছিল কম। তবে অন্য দুজনের মধ্যে অন্তত একজনের সেঞ্চুরি করা উচিত ছিল বলে মনে করেন টাইগার অধিনায়ক।

তামিমের ভাষ্য, ‘আজকে একটা সুযোগ ছিল আমাদের দুইজনের মধ্যে একজনের সেঞ্চুরি করার। এগুলো যদি হতো, তাহলে পরিপূর্ণ খেলা বলতে পারতাম। আমি ৬৪ করে আউট হয়ে গেলাম, সাকিব ৫০ করে আউট হয়ে গেল, মুশফিক দেরিতে আসায় ওর হাতে হয়তো ওতো ওভার ছিল না। এগুলো যদি এখন আমরা কাটিয়ে উঠতে পারি, তাহলে হবে কী যখন আমরা বিদেশে যাবো, এগুলো সাহায্য করবে। আমরা সিরিজ জিতেছি এবং সহজভাবে জিতেছি তাই কোনো অভিযোগ নেই।’

এ সময় দলের মধ্যে থাকা ফাস্ট বোলারদের ব্যাপারেও প্রশংসার ফুলঝুরি ছোটে অধিনায়কের কণ্ঠে, ‘একটা সময় ছিল, আমরা হন্যে হয়ে ফাস্ট বোলার খুঁজতাম, কিন্তু পেতাম না। এখন আমাদের দলে অনেক ফাস্ট বোলার রয়েছে এবং পাইপলাইনেও অনেকে প্রস্তুত হচ্ছে। আমরা অভিষেকে হাসান মাহমুদের কাছ থেকে দারুণ পারফরম্যান্স পেলাম। এমন কিছুই আমরা খুঁজছিলাম। রুবেল এবং তাসকিনও দারুণ বোলিং করেছে। ফিজ (মোস্তাফিজ) ও সাইফউদ্দিনের ব্যাপারেও কোনো অভিযোগ নেই।’

সিরিজসেরার পুরস্কার জিতেছেন সাকিব আল হাসান। তবে কম যাননি তামিম ইকবালও। তিন ম্যাচে ৪৪, ৫০ ও ৬৪ রানের ইনিংস খেলে মোট করেছেন সিরিজের সর্বোচ্চ ১৫৮ রান। নিজের ব্যাটিং নিয়ে তার মূল্যায়ন, ‘দেখেন, ভালো হচ্ছে। কিন্তু প্রথম দুই ম্যাচে সুযোগ ছিল অপরাজিত থাকার। আজ সুযোগ ছিলো বড় ইনিংস খেলার। অবশ্যই হতাশা তো আছে। একদিক থেকে ভালো যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এসে আমি রান পাচ্ছি। তাই এটা ঠিক আছে, কিন্তু আরও ভালো হতে পারতো।'

এসএএস/এমএমআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]