আমিরাতের দুই ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে ফিক্সিং প্রমাণিত

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ১০:০৭ পিএম, ২৬ জানুয়ারি ২০২১

করোনার মধ্যেও ফিক্সিংয়ের কালোছায়া থেকে মুক্তি মেলেনি ক্রিকেটের। এবার আরব আমিরাত জাতীয় দলের দুই ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে ফিক্সিংয়ের অভিযোগ তুললো আইসিসি। মোহাম্মদ নাভিদ এবং সাইমান আনোয়ার নামে এই দুই ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে ফিক্সিংয়ে জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়েছে ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থাটি।

২০১৯ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচে ফিক্সিংয়ের সঙ্গে জড়িত ছিলেন আরব আমিরাতের এই দুই ক্রিকেটার। তাদের বিরুদ্ধে তদন্তের পর অভিযোগও প্রমাণিত হয়েছে। একটি স্বাধীন অ্যান্ডি-করাপশন ট্রাইব্যুনালে শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়ার পর রায় ঘোষণা করা হয়েছে। এক বিবৃতিতে আইসিসি জানিয়েছে, এই দু’জনের বিরুদ্ধে যে নিষেধাজ্ঞা ছিল, সেটা বহাল থাকবে।

এই দুই ক্রিকেটারই আরব আমিরাত দলের সবচেয়ে সিনিয়র ক্রিকেটার। সাইমান আনোয়ারের বয়স এখন ৪১। আরব আমিরাতের হয়ে টি-টোয়েন্টি এবং ওয়ানডেতে সবচেয়ে বেশি রান সংগ্রহ করেছেন তিনি। ৩৩ বছর বয়সী মোহাম্মদ নাভিদ হচ্ছেন সবচেয়ে বেশি উইকেট শিকারী এবং সাবেক অধিনায়ক।

২০১৯ সালের অক্টোবরেই নাভিদ এবং আনোয়ারের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে তদন্ত শুরু করা হয়। ওই সময়ই তাদেরকে অনির্দিষ্টকালের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। মোহাম্মদ নাভিদ ছিলেন তখনকার অধিনায়ক। স্বাভাবিকভাবেই তাকে নেতৃত্ব ছেড়ে দিতে হয়েছিল।

আইসিসির খেলোয়াড় আচরণবিধির দুটি ধারায় এই দুই খেলোয়াড়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়। প্রথমটি হচ্ছে, বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের ম্যাচে তারা ফিক্সিংয়ের চেষ্টা করেছেন এবং অন্য কাউকে প্রভাবান্বিত করার চেষ্টা করেছিলেন। একই সঙ্গে ম্যাচের ফল পরিবর্তন করার চেষ্টা করেছিলেন।

দ্বিতীয়টি হচ্ছে, আইসিসি যখন তদন্ত শুরু করেছিল, তখন তারা বিস্তারিত তথ্য না দিয়ে অসহযোগিতা করেছেন। মোহাম্মদ নাভিদ একইভাবে ফিক্সিংয়ের জন্য অভিযুক্ত হন আরব আমিরাতে অনুষ্ঠিত টি-টেন লিগেও।

আইএইচএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]