টি-টেন লিগে চ্যাম্পিয়ন নর্দান ওয়ারিয়র্স

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৪৫ এএম, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

লড়াই ছিল দুই ক্যারিবিয়ানের। ডোয়াইন ব্র্যাভো এবং নিকোলাস পুরানের। তবে যেমন মারমার-কাটকাট ফাইনাল হওয়ার কথা ছিল, তেমনটা হয়নি শেষ পর্যন্ত। তবুও দুই ক্যারিবীয় অধিনায়কের লড়াইয়ে জিতলেন নিকোলাস পুরানই।

অনেকটা একপেশে ফাইনালেই পরিণত হয়েছিল শনিবার রাতে আবুধাবিতে। শেষ পর্যন্ত ১০ বল হাতে রেখে দিল্লি বুলসকে ৮ উইকেটের ব্যবধানে হারিয়ে দ্বিতীয়বারেরমত শিরোপা জিতে নিলো নর্দান ওয়ারিয়র্স।

টস জিতে প্রথমে ডোয়াইন ব্র্যাভোর দলকে ব্যাট করতে পাঠায় নিকোলাস পুরানের দল নর্দান। টস হেরে ব্যাট করতে নেমে দিল্লির কোনা ব্যাটসম্যানই সঠিকভাবে দাঁড়াতে পারেননি ওয়ারিয়র্স বোলারদের সামনে। যার ফলে নির্ধারিত ১০ ওভার শেষে ৯ উইকটে হারিয়ে তারা সংগ্রহ করে মাত্র ৮১ রান।

সর্বোচ্চ ২১ রান করেন মোহাম্মদ নবি। ১০ বল খেলেছিলেন তিনি। এছাড়া ১৩ রান করেন রহমতুল্লাহ গুরবাজ, ১০ রান করেন এভিন লুইস। বাকিদের রান দুই অংক ছোঁয়নি।

শ্রীলঙ্কান অখ্যাত এক বোলার মাহিস থিকসানা নেন ৩ উইকেট। জুনায়েদ সিদ্দিকি নেন ২ উইকেট। ধনঞ্জয়া লক্ষণও নেন ২ উইকেট।

জবাব দিতে নেমে নর্দান ওয়ারিয়র্সের দুই ওপেনার শুরুটা করেছিলেন উড়ন্ত। তবে ৯ বলে ১২ রান করে নিকোলাস পুরান আউট হয়ে যান। এরপর দলীয় ৬২ রানের মাথায় আউট হন ওয়াসিম মুহাম্মদ। ২২ বলে ২৭ রান করেন তিনি। এর আগে এক ম্যাচে ১২ বলে হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন ওয়াসিম

ওয়াসিম মুহাম্মদ আউট হয়ে গেলেও বাকি কাজ অনায়াসে সেরে আসেন লেন্ডল সিমন্স এবং রোভম্যান পাওয়েল। শেষ পর্যন্ত ৮.২ ওভারেই জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় নর্দান ওয়ারিয়র্স। এর আগে ২০১৮ সালেও একবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল এই ফ্রাঞ্চাইজিটি।

আইএইচএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]