সবাই সুস্থ, আজ থেকে লন্ড্রি সুবিধা পাচ্ছে টাইগাররা

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১২:৪৮ পিএম, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১

নিউজিল্যান্ড গিয়ে টাইগাররা ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে। কোথাও বের হওয়ার সুযোগ নেই। খোলা আকাশের নিচে বের হওয়া দূরে, মূলত হোটেল রুমেই আটকা তামিম, রিয়াদ, মুশফিক, লিটন, মিরাজ, মোস্তাফিজরা।

দলের সঙ্গে থাকা বিসিবি মিডিয়া ম্যানেজার রাবিদ ইমাম তিনদিন আগেই জানিয়েছেন, নিউজিল্যান্ড পৌঁছে ক্রাইস্টচার্চে হোটেলে চেক-ইনের পর থেকে শুরু হয়েছে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন।

এই ১৪ দিনে একটি-দুুটি নয়, চারটি কোভিড-১৯ টেস্ট দিতে হবে পুরো বাংলাদেশ বহরকে। সবগুলো টেস্টে নেগেটিভ হলেই কেবল ১৪ দিন পর খোলা আকাশের নিচে বের হওয়া তথা অনুশীলনের সুযোগ মিলবে।

এদিকে সময় বয়ে যাচ্ছে। দেখতে দেখতে নিউজিল্যান্ডে পা রাখার পর আজ (রোববার) পঞ্চম দিন। এখন কী অবস্থা পুরো দলের? এ পর্যন্ত কয়বার করোনা টেস্ট হলো? তাতে কেউ কি পজিটিভ হয়েছে কি না? আবার কবে টেস্ট? তা জানতে রাজ্যের কৌতূহল সবার।

দলের সঙ্গে থাকা বিসিবির প্রধান চিকিৎসক দেবাশিষ চৌধুরী সেই কৌতূহল নিবারণ করেছেন। প্রশ্ন ছিল, নিউজিল্যান্ডে যাওয়ার পর কোন ক্রিকেটার, কোচিং ও সাপোর্টিং স্টাফ, কর্মকর্তাদের কারও কি করোনা পজিটিভ হয়েছে? করোনা টেস্ট পর্ব শেষ করে কবে নাগাদ সবাই মিলে অনুশীলন করার সুযোগ পাবে?

রোববার বাংলাদেশ সময় বেলা সাড়ে ১১টা নাগাদ (নিউজিল্যান্ড সময় তখন সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার) জাগো নিউজের সঙ্গে মুঠোফোন আলাপে দেবাশিষ চৌধুরী জানিয়েছেন, ‘আসলে আমাদের অফিসিয়ালি কিছুই জানানো হয় না। নিউজিল্যান্ডে আসার পর পুরো দলের কোভিড টেস্ট হবে চারটি। যার দুটি হয়ে গেছে।’

দেবাশিষ চৌধুরী যোগ করেন, ‘আমরা নিউজিল্যান্ড পৌঁছানোর দিনই প্রথম কোভিড-১৯ টেস্ট হয়ে গেছে। তৃতীয় দিন হয়েছে আরও একটি। পরের টেস্টটি হবে ষষ্ঠ দিন। সেটা সম্ভবত ১ বা ২ মার্চ (সোম না হয় মঙ্গলবার) হবে।’

প্রথম দুই টেস্টের ফল কী? কারো কি পজিটিভ হয়েছে? জানতে চাইলে দেবাশিষ চৌধুরী বলেন, ‘আসলে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড থেকে আমাদের আনুষ্ঠানিকভাবে কিছুই জানানো হয় না। শুধু নির্দিষ্ট দিনে কোভিড টেস্টের জন্য নমুনা নিয়ে গেছে। ষষ্ঠ ও দ্বাদশ দিনে আরও দুটি টেস্ট হবে। সে সব পরীক্ষার কোন আনুষ্ঠানিক ফল আমাদের জানানো হয়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘তবে আমাদের কিছু লক্ষণ বলে দেয়া আছে। যেমন প্রথম টেস্টের পর তৃতীয় দিন থেকে সবাইকে রুমের বাইরে প্রতিদিন আধঘণ্টা করে হাঁটার সুযোগ দেয়া হয়েছে। আর দ্বিতীয় টেস্টের পর আজ থেকে আমরা জামা-কাপড় হোটেল লন্ড্রিতে ধোলাই ও ইস্ত্রি করার সুযোগ পাচ্ছি।’

‘তার মানে সবাই সুস্থ আছে এবং প্রথম দুই টেস্টে কারোই পজিটিভ ধরা পড়েনি। আমাদের আরও জানানো হয়েছে, ষষ্ঠ দিন তৃতীয় করোনা টেস্টের পর সব ঠিক থাকলে সপ্তম দিন ৫ জন করে জিমে যাওয়া যাবে। আর অষ্টম দিনে ৫ জনের গ্রুপ করে খোলা আকাশে অনুশীলন করার সুযোগ মিলবে।’

‘পরে ১২ নম্বর দিনে আবারও টেস্ট করানো হবে। সেই চতুর্থ টেস্টই চূড়ান্ত। সে টেস্টে সবাই নেগেটিভ থাকলে ১৪তম দিন থেকে পুরো দল একসঙ্গে অনুশীলনের সুযোগ পাবে। ১২তম দিনে করোনা নেগেটিভ আসলে আমরা ১৪তম দিনের আগে এই শহর (ক্রাইস্টচার্চ) ছেড়ে অন্য শহরে গিয়ে থাকব ও অনুশীলন করব।’

এআরবি/এসএএস/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]