না সামলালে কোহলি-স্টোকসের ঘটনায় বিপদ হতে পারতো

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:০০ পিএম, ০৪ মার্চ ২০২১

ঝগড়াটা বড় হতে পারতো। মাঠের মধ্যে তৈরি হতে পারতো আরও বড় অপ্রীতিকর পরিস্থিতি। কিন্তু আম্পায়ারদের হস্তক্ষেপে সেটা হয়নি। ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি আর ইংলিশ অলরাউন্ডার বেন স্টোকসের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল ঘটনাটা।

এজন্য আম্পায়ারদের আলাদা করে প্রশংসা করলেন ভারতীয় ব্যাটিং কিংবদন্তি সুনিল গাভাস্কার। তার মতে, মাঠে ঝামেলা হতেই পারে, কিন্তু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার আগেই আম্পায়াররা দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন।

মোতেরায় ভারত ও ইংল্যান্ডের মধ্যকার সিরিজের চতুর্থ ও শেষ টেস্টের প্রথম দিনের ঘটনা। টেস্টের প্রথম সেশনেই তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে গিয়েছিল ইংল্যান্ড। এমন সময় ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ সিরাজের একটি বাউন্সার ঠিকভাবে খেলতে না পেরে মেজাজ হারিয়ে ফেলেন স্টোকস।

সিরাজের উদ্দেশে কিছু বলতে দেখা যায় ইংলিশ অলরাউন্ডারকে। সঙ্গে সঙ্গেই এগিয়ে এসে সতীর্থের ‘ঢাল’ হন ভারতীয় অধিনায়ক কোহলি। বেশ কিছুটা সময় ধরে চলে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়। আম্পায়ার এসে দুজনকে আলাদা করার চেষ্টা করলেও থেমে থেমে চলে এই বাকবিতণ্ডা।

তবে সেটা আর হাতাহাতি কিংবা বড় কোনো অপ্রীতিকর পরিস্থিতির দিকে যেতে দেননি মাঠে দায়িত্বরত দুই আম্পায়ার নীতিন মেনন এবং বীরেন্দ্র শর্মা। তারা নিপুণ হাতে সামাল দেন পরিস্থিতি।

আম্পায়াররা এমনভাবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখায় তাদের প্রশংসাই করলেন সুনিল গাভাস্কার। ভারতের প্রথম লিটল মাস্টার বলেন, ‘এমন পরিস্থিতি মাঠে হতেই পারে। ব্যাটসম্যান কিছু বলল, বোলার তার উত্তর দিল। আম্পায়াররা ঠিক সময় চলে আসায় পরিস্থিতি হাতের বাইরে বেরিয়ে যাওয়ার আগেই আটকে দেয়া গেছে।’

এমএমআর/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]