নাসিরের দুর্দান্ত অলরাউন্ড পারফরমেন্সে জয়ের হাতছানি রংপুরের

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৭:৫৯ পিএম, ২৪ মার্চ ২০২১

প্রায় ম্যাচে নট আউট আর নামলেই ফিফটি। তিন মৌসুম আগে ঢাকা লিগে একবার তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। গাজী গ্রুপের হয়ে প্রিমিয়ার ক্লাব ক্রিকেটে তেমন সাড়া জাগানো নৈপুণ্যের পর এবার বুঝি জাতীয় লিগেও আবার সেই নাসিরের দেখা মিলতে যাচ্ছে! জাতীয় লিগে এবার মাঠে নেমেছেন বড় সড় কিছু করার ঘোষণা দিয়েই।

বলেছেন, ৬ ম্যাচে হাজার রান করতে চাই । বিকেএসপিতে শক্তিশালী ঢাকা বিভাগের বিপক্ষে চাপে পড়েও কথা রেখেছেন নাসির।

আগের দিনই সেঞ্চুরির দোরগোড়ায় গিয়ে দাঁড়িয়েছিলেন। শতক থেকে ৭ রান পিছনে দাঁড়িয়ে আজ ম্যাচের তৃতীয় দিন সকালেই কাঙ্খিত সেঞ্চুরি পূর্ণ করে ফেলেছেন নাসির।

৩৩৫ মিনিট উইকেটে থেকে ২৫২ বল খেলে ১১৫ রানে সাজঘরে ফেরেন নাসির। তার ওই লড়াকু ইনিংসেই ২৩০ রানে (৯৩.৪ ওভার) থেমেছে রংপুর। এতে করে প্রথম ইনিংসে ৩৬৫ রান করা ঢাকা বিভাগ পায় ১৩৫ রানের লিড।

jagonews24

ব্যাট হাতে শতরান করা নাসির এরপর বল হাতেও জ্বলে উঠেছেন। তার স্পিন আক্রমণের মুখে ঢাকার পক্ষে আর বড়সড় লিড নিয়ে রংপুরকে চাপে ফেলা সম্ভব হয়নি। নাসিরের অফস্পিন জাদুতে ‘কম্মকাবার’ ঢাকার চার প্রতিষ্ঠিত উইলোবাজ রনি তালুকদার (২১), তাইবুর রহমান (১৫), শুভাগত হোম (১৯) ও অধিনায়ক নাদিফ চৌধুরীর (৫)।

মাত্র ১২৮ (৪৫.৫ ওভারে) শেষ ঢাকার দ্বিতীয় ইনিংস। নাসির একাই পতন ঘটান ৪ উইকেটের (২১ রানে)। তাকে দারুণ ব্যাকআপ দেন অপর দুই স্পিনার বাঁ-হাতি সোহরাওয়ার্দি শুভ (৩/২৬) ও অফস্পিনার মাহমুদুল হাসান (২/৩৯)। এতে করে রংপুরের জয়ের জন্য দরকার পড়ে ২৬৪ রানের।

অবশ্যই রংপুরের দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুও ভাল হয়নি। ৩৫ রানেই খোয়া গেছে ২ উইকেটের। আউট হয়েছেন দুই ওপেনার জাহিদ জাবেদ (৫) ও তানভির হায়দার (৫)।

কাল বৃহস্পতিবার শেষ দিনে ৮ উইকেট হাতে রেখে রংপুরের দরকার ২৩০ রানের। উইকেটে আছেন সোহরাওয়ার্দী শুভ (১২ রানে) আর মাহমুদুল হাসান লিমন (৪)। দেখা যাক কাল শেষ দিনে আবার নাসির ব্যাটিং ম্যাজিক দেখা যায় কি না?

এআরবি/আইএইচএস/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - jagofe[email protected]