স্যামসনের রান না নেয়ার সিদ্ধান্তকে সঠিকই মনে করেন সাঙ্গা

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০২:৪৬ পিএম, ১৩ এপ্রিল ২০২১

সঞ্জু স্যামসন হতে পারতেন দলের জয়ের নায়ক। অধিনায়কত্বের অভিষেকের দিনেই বিধ্বংসী এক সেঞ্চুরি হাঁকালেন। ২২২ রান তাড়া করে রাজস্থান রয়্যালসকে প্রায় জয়ের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু এত কিছুর পরও তাকে ঘিরে ধরেছে একটা বিতর্ক।

শেষ দুই বলে দরকার ছিল ৫ রান। স্যামসন এমন সময় সিঙ্গেলস এড়িয়ে গেলেন। ১২ চার আর ৭ ছক্কায় ৬২ বলে ১১৯ রানে থাকা একজন ব্যাটসম্যানের এমন আত্মবিশ্বাস তো থাকারই কথা। শেষ বলে বাউন্ডারি হাঁকালে টাই, ছক্কা হলে জয়।

স্যামসন স্ট্রাইকে থেকেই ঝুঁকিটা নিলেন। হতে পারতেন ম্যাচের হিরো। কিন্তু পারলেন না। শেষ বলটি উঁচু করে কভারে তুলে দিয়ে বাউন্ডারিতে হয়ে গেলেন ক্যাচ। বনে গেলেন ট্র্যাজিক-হিরো।

পাঞ্জাব কিংসের কাছে রাজস্থান ওই ম্যাচটা মাত্র ৪ রানে হেরেছে। স্বভাবতই প্রশ্ন উঠছে, শেষ দুই বলে যখন ৫ দরকার ছিল, তখন সিঙ্গেলসটা কেন নিলেন না স্যামসন? ক্রিস মরিস তো স্ট্রাইকিং এন্ডে চলেই এসেছিলেন। রানটা হয়ে গেলে শেষ বলে ৪ দরকার পড়তো রাজস্থানের। মরিস যেহেতু ভালোই ব্যাটিং জানেন, জেতার সম্ভাবনা ছিল। স্যামসনের সিদ্ধান্তে তো সেটা হলো না।

তবে রাজস্থান রয়্যালসের কোচ কুমার সাঙ্গাকারা এই বিতর্কে সঞ্জুকে কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে রাজি নন। তিনি বলেন, ‘সঞ্জু নিজের ওপর ভরসা রেখেছিল যে পারবে। সে খুব কাছেই চলে গিয়েছিল। হয়তো পাঁচ থেকে ছয় গজ দূরে ছিল বলটা, যেটা কিন্তু ছক্কা হতে পারতো। যখন আপনি বল ভালোভাবে হিট করতে পারছেন আর ফর্মে আছেন, তখন মনে হবেই যে আপনি পারবেন।’

স্যামসনকে দোষী না করে বরং তার সাহসিকতার প্রশংসা করছেন সাঙ্গা। তার কথা, ‘সঞ্জু এটা করছে দেখাটা খুবই অনুপ্রেরণাদায়ক। আপনারা হয়তো এখানে সেখানে সিঙ্গেল মিসের কথা বলবেন। কিন্তু আমার কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো খেলোয়াড়দের আত্মবিশ্বাস, মানসিকতা এবং প্রতিশ্রুতিশীল মনোভাব। তাদের নিজেদের শক্তিমত্তার ওপর এই বিশ্বাসটা থাকতে হবে।’

এমএমআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]