আমাদের ওপর কোনো চাপ নেই : মুমিনুল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০৪ পিএম, ২০ এপ্রিল ২০২১

২০১৯ সালের শুরু থেকে এ পর্যন্ত বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের নয় টেস্ট খেলে জয় মাত্র একটিতে। গতবছরের মার্চে ঘরের মাঠে দুর্বল জিম্বাবুয়েকে ইনিংস ও ১০৬ রানে হারানো। এছাড়া বাকি ৮ ম্যাচেই নাকানিচুবানি খেয়েছে বাংলাদেশ দল। ড্রও মেলেনি কোনো।

যেখানে রয়েছে নিউজিল্যান্ড, ভারত ও পাকিস্তানে গিয়ে ইনিংস হারের ভরাডুবি। এমনকি ঘরের মাঠে টেস্ট আঙিনায় নবাগত আফগানিস্তানের কাছে ২২৪ রানের বড় ব্যবধানে পরাজয় এবং আনকোরাদের নিয়ে গড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার তিক্ত অভিজ্ঞতা।

এক কথায় সাম্প্রতিক সময়ে টেস্ট ক্রিকেটে নাজেহাল অবস্থা বাংলাদেশ দলের। যে কারণে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপেও খোলা হয়নি পয়েন্টের খাতা। এখনও পর্যন্ত তিন সিরিজের পাঁচ ম্যাচের সবকয়টি হেরে শূন্য পয়েন্ট বাংলাদেশের, অবস্থান সবার নিচে।

এবার টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের চতুর্থ সিরিজের দুই ম্যাচ খেলতে শ্রীলঙ্কা সফরে গিয়েছে মুমিনুল হকের দল। যেখানে ২০১৭ সালের সফরে একটি টেস্ট জিতে ফিরেছিল বাংলাদেশ। ফলে স্বাভাবিকভাবেই ধারাবাহিকতা ধরে রাখার প্রসঙ্গ চলেই আসে। তার ওপরে সাম্প্রতিক সময়ের বাজে ফলাফল ভুলিয়ে ভালো কিছু করার একটা চাপও রয়েছে বাংলাদেশ দলের।

তবে দলের অধিনায়ক মুমিনুল হকের ভাবনা আবার ভিন্ন। তার মতে, দলের ওপর কোনো চাপ নেই। তিনি নিজে ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে কিংবা দলগত পারফরম্যান্সের কারণে কোনো চাপ দেখেন না। বরং অতীত ভুলে গিয়ে প্রক্রিয়া ঠিক রেখে জয়ের বটিকাই যেন দিলেন টাইগারদের টেস্ট অধিনায়ক।

আজ (মঙ্গলবার) দুপুর দুইটায় ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে মুমিনুল বলেছেন, ‘চাপ যদি বলেন, আমি কোনো চাপে নেই। আমার দলও কোনো চাপে নেই। আমরা এখানে এসেছি ম্যাচ জেতার জন্য। পুরোপুরি চেষ্টা করব ম্যাচ জেতার। অবশ্যই শ্রীলঙ্কা ভালো অবস্থানে আছে। আমরা শেষ দুইটা টেস্ট ভালো খেলতে পারিনি। কিন্তু আগেও বলেছি- ক্রিকেটে অতীত নিয়ে চিন্তা করে লাভ নেই। যদি প্রক্রিয়া ঠিক থাকে, পাঁচ দিন ভালো খেলি, ইনশাআল্লাহ জয় পাব।’

অধিনায়ক যতই বলুক না কেন চাপ নেই, বাংলাদেশ ক্রিকেটে চাপা গুঞ্জন রয়েছে শ্রীলঙ্কা সফরের পর দলের হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে বোর্ড। শুধু তাই নয়, অধিনায়ক মুমিনুলের বিষয়েও নতুন করে ভাবনার ফিসফাসও শোনা গেছে অনেক। তবে এসব বিষয়ে এখন ভাবতে রাজি নন মুমিনুল।

তার কথা, ‘আমি শ্রীলঙ্কায় এসেছি, মাঠে নামব, বোলার বল করবে, আমি ব্যাটিং করব, আর আমার বোলাররা বল করবে। ওদের ব্যাটসম্যানরা ব্যাটিং করবে, আমাদের ফিল্ডাররা ফিল্ডিং করবে। আমরা আমাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী খেলব। আমি আসলে এসব নিয়েই চিন্তিত। এর বাইরের বিষয়গুলো নিয়ে ভাবছি না। একজন পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে আমার কাছে মনে হয়, এসব নিয়ে এত ভাবার দরকার নেই।’

এসএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]