রিভিউ না নেয়ার কারণ জানালেন তাইজুল

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১০ পিএম, ২৩ এপ্রিল ২০২১

ব্যাটিং সহায়ক উইকেট। বোলারদের এবং ফিল্ডারদের জন্য এক-একটি সুযোগ আসে কালেভদ্রে। আর যদি ওই সুযোগেরই একটি মিস হয় নিজেদের ভুলে, তবে তো আফসোস হওয়ারই কথা। যেমনটা বাংলাদেশের হয়েছে লাহিরু থিরিমান্নের রিভিই না নেয়ার।

লঙ্কান ইনিংসের ৩৪তম ওভারের ঘটনা ছিল সেটি। ওভারের দ্বিতীয় বলে তাইজুল ইসলামের করা টার্নিং ডেলিভারিটি আঘাত হানে বাঁহাতি ওপেনার লাহিরু থিরিমান্নের পায়ে। কিন্তু আম্পায়ার আউট দেননি। রিভিউও নেয়নি বাংলাদেশ।

পরে টিভি রিপ্লেতে দেখা যায়, সেই বলটি আঘাত হানত লেগ স্ট্যাম্পে। রিভিউ না নেয়ার হতাশায় ডুবতে হয় বাংলাদেশকে। তখন ৫৮ রানে খেলছিলেন থিরিমান্নে। পরে সেশন শেষ হওয়া পর্যন্ত আর কোনো রান যোগ করতে পারেননি তিনি।

যদিও থিরিমান্তে এরপর বেশিদূর এগোতে পারেননি। চা পানের বিরতির আগেই মেহেদি হাসান মিরাজের বলে এলবিডব্লিউ হয়েছেন ব্যক্তিগত ৫৮ রানে। তবে বাংলাদেশ রিভিউ না নেয়ার মতো বড় ভুল কীভাবে করল, সেটি নিয়ে কথা হচ্ছেই।

ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে দলের প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত থাকা তাইজুল ইসলামের কাছেও ছুটে গিয়েছিল সেই প্রশ্ন। তাইজুল জানালেন, ওই সময়টায় কী কারণে তাদের রিভিউটি না নেয়ার সিদ্ধান্ত ছিল।

তাইজুল বলেন, ‘ওইটা আসলে টার্নটা অনেক বড় করছে, এজন্য আমি কনফিউজড ছিলাম। কারণ ওই সময়ে রিভিউটা লস করলে একটা সমস্যা হতে পারতো। আর টার্নটা বড় করার জন্য মনে হয়েছে মিসিং হবে, তাই আর নেওয়া হয়নি।’

ব্যাটিং উইকেটে বাংলাদেশ খেলছে পাঁচজন জেনুইন বোলার নিয়ে। এই সিদ্ধান্তটা কি ঠিক আছে? তাইজুল মনে করেন, ঠিকই আছে। তার কথা, ‘টেস্ট খেলতে গেলে বেশি বোলার থাকলে অনেক সুবিধা হয়। এখানে কন্ডিশন অনেক গরম, এক্ষেত্রে পাঁচ জন বোলার থাকলে আমার বা অন্যান্য বোলারদের জন্য বিশ্রামের সময় পাওয়া যায়, কামব্যাক করার সময় পাওয়া যায় ‘

এমএমআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]