উইকেট নিয়ে হতাশার কথা শোনালেন তাসকিন

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:১২ পিএম, ২৪ এপ্রিল ২০২১

এমন এক উইকেট, যাতে আসলে বোলারদের জন্য কিছুই নেই। পাল্লেকেলে টেস্টের চারদিন পার হওয়ার পরই তাই দুই দলের দুই ইনিংস শেষ হয়নি। শেষদিনের জন্য বাকি দুই ইনিংস। বলা যায়, মিরাকল না ঘটলে নিশ্চিত ড্রয়ের দিকে এগোচ্ছে এই টেস্ট।

চার দিনে এই টেস্টে দুই দল মিলিয়ে উইকেট পড়েছে মাত্র ১০টি। চতুর্থ দিনে তো বাংলাদেশি বোলাররা উইকেটই পাননি। সবমিলিয়ে যারপরনাই হতাশা প্রকাশ করলেন দিনের খেলা শেষে বাংলাদেশ দলের প্রতিনিধি হয়ে আসা তাসকিন আহমেদ।

তাসকিন মনে করেন, এমন উইকেট টেস্ট ক্রিকেটে বোলারদের জন্য আসলেই কঠিন। এখানে ব্যাটসম্যানকে আউট করার সুযোগও বলতে গেলে পাওয়া যায় না। তাই আসলে ধৈর্য ধরা ছাড়া কিছুই করার নেই।

চতুর্থ দিন ৩ উইকেটে ২২৯ রান নিয়ে দিনের খেলা শুরু করা শ্রীলঙ্কা আলোক স্বল্পতায় খেলা বন্ধ হওয়ার আগে করে ৩ উইকেটে ৫১২ রান।অর্থাৎ এ দিন ২৮৩ রান তুলেছেন দুই ব্যাটসম্যান দিমুথ করুনারত্নে আর ধনঞ্জয়া ডি সিলভা। কিন্তু এত রান খরচ করেও বাংলাদেশ একটি উইকেট তুলে নিতে পারেনি।

নিজেদের বোলিং নিয়ে তবু হতাশ নন তাসকিন, বরং হতাশ উইকেটের চরিত্র নিয়ে। টাইগার পেসার বলেন, ‘আসলে সত্যি কথা বলতে, টেস্ট ক্রিকেটে এরকম উইকেটে অনেক কঠিন বোলারদের জন্য। নরমালি দেখেন ওদের বোলাররা লাকমলও কিন্তু ৩৫ ওভার বল করেছে, বাকি যারা করেছে ভালো করেছে। উইকেটটা এমন যে চান্স তৈরি হওয়ার অপশনটাই কম। ভালো বলেও একটু উনিশ-বিশ হলে সেটা বাউন্ডারি হয়ে যাচ্ছে। আমরাও তো ৫৪১ করে ডিক্লেয়ার করেছি। আরেকটু বেটার উইকেট যদি হতো, বোলিংয়ে আরেকটু হেল্প যদি থাকতো, তাহলে ভালো হতো। কঠিন ছিল অবশ্যই বোলারদের জন্য।’

তিন পেসার নিয়ে এই টেস্টে খেলছে বাংলাদেশ, তিনজনই ডানহাতি। পেসার কম্বিনেশন আরও একটু ভালো হতে পারতো কি না? এমন প্রশ্নে তাসকিন বলেন, ‘এটা আসলে কম্বিনেশনের চেয়ে বড় ব্যাপার হল ভালো বল করা। হয়তো এই কন্ডিশন বোলারদের জন্য কঠিন। টেস্ট ক্রিকেটে বোলাররা উইকেট থেকে টার্ন বা সিম পেলে আরেকটু ভালো করতে পারে। এখন এরকম উইকেটে কিছু করার নেই। আমরা সেরাটা দিয়েছি, বলতে পারেন ভিন্ন অভিজ্ঞতা হচ্ছে। শেখার চেষ্টা করছি যে এরকম উইকেটে কিভাবে ভালো বল করা যায়।’

পঞ্চম ও শেষ দিনে এই উইকেটে কী চিন্তা থাকবে? তাসকিন বলেন, ‘নরমালি টেস্ট ক্রিকেটে বেসিক জিনিসটাই ধারাবাহিকভাবে করাটা হলো বিষয়। ফিল্ডিং অনুযায়ী ভালো লেন্থে বল করা মাঝে মাঝে সারপ্রাইজ বাউন্সার করা। সেগুলো আমরা করছি, কিছু সুযোগও তৈরি হয়েছে। দুর্ভাগ্য যে তা গ্যাপে পরেছে, ক্যাচের মতো হয়ে চার হয়েছে। তবুও আমি মনে করি এটা খুব ভালো ব্যাটিং উইকেট। এখানে আসলে আমাদের ধৈর্য নিয়ে ভালো বল করা ছাড়া উপায় নেই।’

এমএমআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]