ভুল দল নির্বাচন, উইকেট চেনার ব্যর্থতার দায় কার?

আরিফুর রহমান বাবু
আরিফুর রহমান বাবু আরিফুর রহমান বাবু , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ১১:১৫ পিএম, ০৩ মে ২০২১ | আপডেট: ১১:১৬ পিএম, ০৩ মে ২০২১

দেশে বসে মোহাম্মদ আশরাফুল আগেভাগেই বলে দিয়েছেন শেষ টেস্টে পাল্লেকেল্লের উইকেট বুঝতে ভুল করেছেন টিম ম্যানেজমেন্ট। আজ সোমবার টেস্ট শেষ হওয়ার পর অধিনায়ক মুমিনুল হকও অকপটে স্বীকার করেছেন, ‘উইকেটের চরিত্র বুঝতে ভুল হয়েছে।’

এজন্য কী মুমিনুলকে শুলে চড়াবেন? তাকে আসামীর কাঠগড়ায় দাঁড় করাবেন? এ ভুলের দায় কী বাংলাদেশ অধিনায়কের একার? হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো, আর তার ভিনদেশি স্পেশালিষ্ট কোচদের কি কোনোই দায় নেই? তারা কী করলেন?

লাখ লাখ ডলার ব্যয়ে যাদের দলের পরিচর্যা, পরিচালনা ও উন্নয়নে রাখা হয়েছে, তারা আসলে কি করছেন? হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো, পেস বোলিং কোচ ওটিস গিবসন, ব্যাটিং কোচ জন লুইস আর ফিল্ডিং কোচ রায়ান কুকদের আসলে কাজটা কী?

এ প্রশ্ন অনেকের মনেই উকিঝুঁকি দিচ্ছে। এটা সত্য যে, দল নির্বাচন, একাদশ সাজানো এবং মাঠ ও মাঠের বাইরের বড় বড় সিদ্ধান্তগুলো বিশ্ব ক্রিকেটে সাধারণতঃ কোচ ও সিনিয়র প্লেয়ারদের সাথে পরামর্শ করে অধিনায়করাই নিয়ে থাকেন। মানে ক্রিকেট মাঠে অধিনায়কই শেষ কথা।

তবে বাংলাদেশের ক্রিকেটে কখনোই অধিনায়ক শেষ কথা নন। এমনকি দেশের ক্রিকেট ইতিহাসের সব সময়ের সফলতম ও সেরা অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার সময়ও হেড কোচরা কলকাঠি নেড়েছেন। বাংলাদেশ জাতীয় দলে বরাবরই কোচরা বিশেষ করে হেড কোচ সব ক্ষেত্রে রাখেন বড় ভূমিকা। গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলো আসলে হেড কোচই নেন। কাজেই ধরেই নেয়া যায় পাল্লেকেল্লেতে শেষ টেস্টে টাইগারদের একাদশ নির্বাচন আর লক্ষ্য-পরিকল্পনা স্থির করার কাজেও মূল ভূমিকা ছিল হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর।

কিন্তু তিনি কী দুরদর্শিতা ও দক্ষতার ছাপ রাখতে পেরেছেন? উইকেট স্পিনারদের পক্ষে থাকবে- এমন চিন্তা কী তার মাথায় ছিল? একই মাঠে প্রথম টেস্ট হয়েছে। মাত্র তিনদিন পর পাশের উইকেটে হলো দ্বিতীয় টেস্ট। খুব স্বাভাবিকভাবেই প্রথম টেস্টের ৫দিন এই পিচের পরিচর্যা মানে পানি দেয়া রোল করার কোনোই সুযোগ ছিল না।

এছাড়া ওপরের ঘাস ছেঁটে ফেলায় সুর্য্যের উত্তাপটা সরাসরি গিয়ে মাটির ওপরে পড়েছে। মাটিও খানিক আলগা হয়ে গিয়েছিল। এ কারণেই এ পিচ অনেক শুকনো বা ড্রাই। একটা শুকনো পিচ যে ভাঙ্গতে পারে বা একটা পর্যায়ে গিয়ে ভাঙ্গবে এবং স্পিনারদের সাহায্য করবে সেটা কী রাসেল ডোমিঙ্গোর মাথায় ছিল?

শ্রীলঙ্কান দল নির্বাচন দেখেও কী তিনি বোঝেননি যে টাইগার বধে লঙ্কানরা স্পিনিং ট্র্যাক চাচ্ছে? দেশের নামী কোচ, সাকিব, তামিম ও মুশফিকের ব্যাটিং পরামর্শক এবং ক্রিকেট বিশ্লেষক নাজমুল আবেদিন ফাহিমেরও প্রশ্ন সেটাই। আজ সন্ধ্যার পরে জাগো নিউজের সাথে আলাপে ওপরের কথাগুলোই দুঃখের সাথে উপস্থাপন করেছেন ফাহিম।

তার সোজা সাপটা কথা, ‘আমরা দল নির্বাচনে দারুণভাবে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছি। একজন বাড়তি স্পিনার থাকলে দলের বোলিং বৈচিত্র্য থাকতো এবং আমরা আরও একটু সমৃদ্ধ হয়ে মাঠে নামতে পারতাম। আমরা দল নির্বাচকে আমরা দুরদর্শিতার ছাপ রাখতে পারিনি। ব্যর্থ হয়েছি।’

‘ওপেনিংয়ে সাদমানের জায়গায় সাইফ হাসানকে আনলাম। সে সিদ্ধান্ত ক্লিক করেনি। বুমেরাং হয়েছে। সাইফ হাসানকে দেখে মনে হয় সে এই পর্বে খেলার জন্য মনের দিক থেকে তৈরি নয়। স্কিল ঠিক আছে। তবে এই লেভেলে খেলার জন্য এখন মোটেই মানসিকভাবে প্রস্তুত না। তাকে নিয়ে সাদমানকে বাদ দিলাম সেটা ঠিক হয়নি। সাদমান স্কিলের দিক থেকে যেমনই থাকুক না কেন মেন্টালি টাফ। তার ক্ষমতা আছে।’

এআরবি/আইএইচএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]