আম্পায়ারিং নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই : পাপন

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:০৫ পিএম, ১৫ জুন ২০২১

ঘরোয়া ক্রিকেটে পক্ষপাতমূলক আম্পায়ারিং নিয়ে আলোচনা-সমালোচনার অন্ত নেই। নির্দিষ্ট কোনো দল কিংবা ক্লাবকে আম্পায়ারদের কর্তৃক সুবিধা দেয়ার অভিযোগ বেশ পুরনো। এটা ঢাকার ক্রিকেট মাঠে ওপেন সিক্রেট ব্যাপার।

যে কারণে সাকিব আল হাসান আবাহনী-মোহামেডানের ম্যাচে লাথি দিয়ে উইকেট ভেঙে ফেলেছেন, স্ট্যাম্প তুলে নিয়ে আছাড় মেরেছেন, এত তোলপাড় হয়ে গেলো- সবই পক্ষপাতমূলক আম্পায়ারিংয়ের কারণে।

সাকিবের সেই ঘটনার পর বিসিবি তাকে তিন ম্যাচের নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে ৫ লাখ টাকা জরিমানাও করেছে। একই সঙ্গে বিসিবি সভাপতি ৫ সদস্যের একটি কমিটিও গঠন করে দিয়েছেন, আম্পায়ারদের আচরণ কিংবা তাদের বিরুদ্ধে যে সব অভিযোগ আছে সেগুলো খতিয়ে দেখতে। সেই অভিযোগগুলো শুনে একটি রিপোর্ট দেয়ার কথা ছিল আজকের (মঙ্গলবার) বোর্ড সভায়।

যদিও একদিন আগে সেই কমিটির সদস্য, বিসিবি পরিচালক ও সাবেক অধিনায়ক নাইমুর রহমান দুর্জয় বলেছিলেন, তারা আরও সময় চেয়ে নেবেন বিসিবি সভাপতির কাছ থেকে।

আজ বিসিবির সেই বোর্ড সভা অনুষ্ঠিত হলো। সেখানে ঘরোয়া ক্রিকেটে পক্ষপাতমূলক আম্পায়ারিংয়ের বিষয়টাও হয়তো আলোচনায় উঠেছে। তবে সভা শেষে বিসিবি সভাপতি জানিয়েছেন, প্রিমিয়ার লিগ কিংবা ঘরোয়া ক্রিকেটে আম্পায়ারিং নিয়ে কোনো অভিযোগ পাননি তারা।

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেন, ‘২০১৭-র দিকে অনেক অভিযোগ ছিল। এরপর ক্যামেরা বসানো হলো; কিন্তু এবার এটা (আম্পায়ারিং) নিয়ে অভিযোগ আসার পর প্রথমেই বন্ধ করার চিন্তা ছিল। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর নামের কারণে এই টুর্নামেন্ট বন্ধ করিনি। অভিযোগ তদন্তের জন্য কমিটি গঠন করে দিয়েছি।’

তদন্ত হয়েছে দাবি করে পাপন বলেন, ‘এখন পর্যন্ত যে কয়টা ম্যাচ হয়েছে সেগুলোর অধিনায়ক, দলকে ডেকে জিজ্ঞাস করা হয়েছে । সেখানে সই করে যে অভিযোগ দেয় সেখানো কেউ কোন অভিযোগ করেনি। এরপর সব গুলো ক্লাবের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। প্রথমে ৮টি পরের দিন ৪টি , ১২টি ক্লাবের সঙ্গে কথা হয়েছে, অধিনায়কের সঙ্গেও কথা হয়েছে।’

সবশেষে কোনো অভিযোগ পাননি বলেই জানিয়েছেন পাপন। তিনি বলেন, ‘যেটা হয়েছে যে এখন পর্যন্ত, একটা অধিনায়ক কিংবা একটা ম্যানেজারের বা কারও আম্পায়ারিং নিয়ে কোন অভিযোগ নেই। অধিনায়করা নাকি এটাও বলেছে যে, তাদের দেখা এটা সেরা টুর্নামেন্ট। কিন্তু একটা ব্যাপার শেষ করা তো সহজ না। তাই বাড়তি দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। এই কমিটি সামনে সেই কাজ করবে।’

আইএইচএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]