শনিবারের ‘ফাইনাল’ বৃষ্টিতে ভেসে গেলে শিরোপার কী হবে?

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০২:৪৬ পিএম, ২৫ জুন ২০২১

চলতি ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে বৃষ্টির দেখা মিলেছে প্রায় নিয়মিতই। লিগের প্রথম দিন (৩১ মে) বিকেএসপিতে পাশাপাশি দুই মাঠের ম্যাচ বৃষ্টিতে ভেসে গিয়েছিল। তারপর একদম নিয়মিতভাবে প্রতিদিন না পড়লেও মাঝেমধ্যে বৃষ্টি এসে বাধা দিয়েছে খেলায়। বেশিরভাগ সময় কার্টেইলড ওভার ম্যাচ হয়েছে।

তবে সুপার লিগের শুরু থেকেই বেড়েছে বৃষ্টির প্রকোপ। প্রায় দিনই বৃষ্টি হচ্ছে। একবার বৃষ্টি আসেনি, কিছুক্ষণ খেলা বন্ধ থাকেনি- সুপার লিগে এমন ম্যাচ হয়েছে খুব কম। তাই জেগেছে প্রশ্ন, আবাহনী আর প্রাইম ব্যাকের মধ্যকার শনিবারের অঘোষিত ফাইনালে যদি বৃষ্টি আসে, একদমই যদি খেলা না হয়, তাহলে কী হবে?

সুপার লিগে প্রতি দুই দিন টানা খেলার পর একদিন রিজার্ড ডে ছিল সূচিতে। কিন্তু শনিবারের ম্যাচের পর কোন বিরতি দেখানো নেই। ফলে প্রশ্ন জাগছে, শনিবার খেলা না হলে কি আর অন্যদিনও খেলা হবে না? নেট রান রেট কিংবা বাইলজে থাকা নিয়ম অনুযায়ী শিরোপা নির্ধারিত হবে?

এছাড়া আরও একটি কারণে সংশয়টা বেশি হচ্ছে। তা হলো, সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী ২৯ জুন ভোরে জিম্বাবুয়ের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়বে জাতীয় দলের বহর। তাহলে তবে কি ২৭ জুন রিজার্ভ ডে’তে খেলা গড়াবে?

ঢাকার ক্লাব ক্রিকেটের আয়োজক, ব্যবস্থাপক সিসিডিএমের সদসৗ সচিব আলী হোসেন দিয়েছেন এ প্রশ্নের উত্তর। শুক্রবার জাগো নিউজের সঙ্গে মুঠোফোন আলাপে আলী হোসেন জানিয়েছেন, বৃষ্টি বা প্রাকৃতিক কারণে শনিবার খেলা না হলে, তা পরদিন হবে।

যদি ২৭ জুনও (রোববার) বৃষ্টি কিংবা প্রাকৃতিক কারণে ম্যাচ খেলানো সম্ভব না হয়- তখন নেট রানরেটে লিগ ভাগ্য নির্ধারণ করা হবে। যেহেতু আবাহনী আর প্রাইম ব্যাংকের পয়েন্ট সমান এবং জয়-পরাজয়ও সমান সমান। তাই নেট রানরেটেই লিগ চ্যাম্পিয়নশীপ নির্ধারিত হবে।

এখন যদি শনি ও রবিবার পরপর দুই দিন খেলা না হয় অর্থাৎ অঘোষিত ফাইনাল মাঠে না গড়ায় তাহলে চ্যাম্পিয়ন হবে আবাহনী। কারণ রান রেটে এগিয়ে ধানমন্ডির দল। আকাশী জার্সিধারিদের নেট রানরেট +০.৬৫৭, অন্যদিকে প্রাইম ব্যাংকের নেট রান রেট +০.৬১৮।

তার মানে অঘোষিত ফাইনাল না হলে ভাগ্য বিপর্যয় ঘটবে প্রাইম ব্যাংকের। অন্যদিকে আবাহনীর পোয়াবারো। উল্লেখ্য, ২০১৯ সালেও লেজেন্ডস অব রুপগঞ্জের সাথে পয়েন্টে সমান সমানে থেকেও নেট রানরেটে এগিয়ে আবাহনী চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। এবার কী হয় সেটাই দেখার।

এআরবি/এসএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]ail.com