আবাহনী প্রায় জাতীয় দল, তবু তো সংগ্রাম করতে হয়েছে : পাপন

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৫৮ পিএম, ২৬ জুন ২০২১

তিনি সাংসদ। দেশের অন্যতম বৃহৎ ও শীর্ষ ঔষধ প্রস্তুতকারি প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকোর প্রধান নির্বাহী। দেশের ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থা বিসিবির প্রধান। এখানেই শেষ নয়।

নাজমুল হাসান পাপনের আরও পরিচয় আছে। তিনি দেশের অন্যতম শীর্ষ ও জনপ্রিয় ক্রীড়া শক্তি আবাহনী লিমিটেডের অন্যতম পরিচালক ক্রিকেট কমিটির সাবেক চেয়ারম্যান। এটাও ঠিক যে, নাজমুল হাসান পাপন দেশের ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থার প্রধানের চেয়ারে আসীনও হয়েছেন আবাহনীর ব্যানার থেকেই।

পরিচালক হিসেবে তিনি এখনও আবাহনীর সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। তাই তাকে আবাহনীর পাপন হিসেবেই সবাই চেনেন। অথচ এবারের লিগে বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপনের দল আবাহনীকেও অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে।

আজ শনিবার লিগের শেষ দিন পাপন স্বীকার করেছেন, আবাহনীর লিগ চ্যাম্পিয়ন হওয়া সহজ ছিল না। অনেক কঠিন পথ পাড়ি দিয়েই লিগ ট্রফি জিতেছে তারা। বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘কে লিগ জিতবে, তা বোঝার উপায় ছিল না ‘

আবাহনীই টানা ট্রফি জিতে যাচ্ছে। এ নিয়ে টানা তৃতীয়বার। বারবার তাদের ঘরেই শিরোপা। আবাহনী কেন শক্তিশালী, সেই ব্যাখ্যাও দিয়েছেন পাপন।

বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘কাগজে-কলমে আবাহনী প্রায় জাতীয় দল। লিটন, নাঈম, আফিফ, মুশফিক, সাইফউদ্দিন, মোসাদ্দেক- ওরা তো জাতীয় দলের খেলোয়াড় এবং টি-টোয়েন্টি দলেই খেলে। তারপরও আবাহনীকে অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে। এমন না যে অটো জিতে গেছে। আমরা মনে করলেও আসলে কোনো দল ছোট না। খেলাঘরের কাছেও আবাহনী হেরেছে।’

পাপন যোগ করেন, ‘প্রাইম ব্যাংক, প্রাইম দোলেশ্বর খুব ভালো দল। সবচেয়ে ভালো বোলিং ছিল প্রাইম ব্যাংকের। মোস্তাফিজ, শরিফুল, রুবেল এ ধরনের বোলাররা ছিল। কয়েকটা দল সংগ্রাম করেছে, যেহেতু জাতীয় দলের কিছু তারকা খেলোয়াড় খেলেনি। এজন্য অনেক দল একটু দুর্বল হয়ে গেছে। ওরা খেললে কী হতো চিন্তা করে দেখুন। অনেক প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলা হয়েছে। এটাই ক্রিকেটের সৌন্দর্য।’

এআরবি/এমএমআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]