‘ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো কিছু ঘটলে না খেলেই চলে যেতে পারে অসিরা’

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০২:৫৩ পিএম, ২৪ জুলাই ২০২১

সবকিছু মোটামুটি ঠিকই ছিল। হঠাৎ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের এক সাপোর্ট স্টাফ করোনা পজিটিভ হওয়ায় দেখা দেয় শঙ্কা, স্থগিত করা হয় অস্ট্রেলিয়া ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের মধ্যকার দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচ।

সতর্কতাস্বরুপ দুই দলের সব খেলোয়াড়কে আইসোলেশনে পাঠানো হলে অস্ট্রেলিয়ার আসন্ন বাংলাদেশ সফরকে ঘিরে সৃষ্টি হয় ধোঁয়াশা। একাধিক অস্ট্রেলিয়ান সংবাদমাধ্যম জানায়, তাদের বাংলাদেশ সফরকে নিয়ে অনিশ্চয়তা।

তবে কেটে গেছে শঙ্কার মেঘ। দুই দলের খেলোয়াড় ও সিরিজ সংশ্লিষ্ট মোট ১৫২ জনের নতুন করোনা পরীক্ষায় সবার ফলাফলই এসেছে নেগেটিভ। তাই স্থগিত হওয়া ম্যাচটি এখন হবে শনিবার এবং শনিবারের তৃতীয় ম্যাচটি পিছিয়ে নেয়া হয়েছে সোমবারে।

আর এর ফলে অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশ সফর নিয়েও আর কোনো অনিশ্চয়তার জায়গা বাকি রইল না। অর্থাৎ পূর্ব নির্ধারিত সূচি মোতাবেকই বাংলাদেশে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলতে আসবে তারা।

অবশ্যই শুক্রবারই বিসিবি সিইও নিজামউদ্দীন চৌধুরী জাগো নিউজকে জানিয়েছিলেন যে, ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে তাদের বৃহস্পতিবারও কথা হয়েছে। যেখানে সিরিজকে ঘিরে অনিশ্চয়তা বা শঙ্কার কোনো বিষয় ছিল না।

তবে অস্ট্রেলিয়ার ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের এমন ঘটনার পর আরও সতর্ক অবস্থানে বিসিবি। কেননা বাংলাদেশেও যদি জৈব সুরক্ষা বলয়ের মধ্যে কারও শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়, তাহলে হয়তো না খেলেই চলে যেতে পারে অসিরা।

অস্ট্রেলিয়ার সব খেলোয়াড়দের নতুন কোভিড-১৯ পরীক্ষার ফলাফল পাওয়ার পর জাগো নিউজের পক্ষ থেকে বিসিবি সিইওর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে বাড়তি সতর্ক থাকার কথাই বলেন তিনি।

বিসিবি প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দীন চৌধুরী সুজন মনে করেন, অস্ট্রেলিয়ার আসাটাই শেষ কথা নয়। তার কথা, ‘আমাদের দেশেও যদি ওয়েস্ট ইন্ডিজের মত কোনো ঘটনা ঘটে, তাহলে কিন্তু অস্ট্রেলিয়ানরা হয়তো আর না খেলে চলে যাবে বা চলে যেতে পারে। অস্ট্রেলিয়ানরা করোনা বিষয়ে খুবই সতর্ক। সামান্যতম ত্রুটি পেলে তারা বেঁকে বসবে।’

বিসিবি সিইও বিষয়টি সম্পর্কে সবাইকে বাড়তি সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার বাংলাদেশে খেলতে আসাই শেষ কথা নয়। কোনো কারণবশত, আমাদের এখানেও যদি উইন্ডিজের মত কোন ঘটনা ঘটে... যদি মাঠকর্মী বা হোটেল স্টাফও করোনা পজিটিভ হয়, তখন কিন্তু তারা বেঁকে বসতে পারে। বাকি ম্যাচ না খেলে চলেও যেতে পারে।’

উল্লেখ্য, আগামী বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) বাংলাদেশে আসার কথা রয়েছে অস্ট্রেলিয়ার। সোমবার সিরিজ শেষ করে বাকি দুইদিন ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জেই থাকবে তারা। এরপর চাটার্ড ফ্লাইটে করে চলে আসবে বাংলাদেশে।

আগামী ৩ আগস্ট থেকে শুরু হবে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজটি। পরের চার ম্যাচ হবে ৪, ৬, ৭ ও ৯ তারিখে। সবগুলো ম্যাচ হবে মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে।

এআরবি/এসএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]