ম্যাচ এবং সিরিজ সেরার পুরস্কার সৌম্যর হাতে

ক্রীড়া প্রতিবেদক ক্রীড়া প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৩৩ পিএম, ২৫ জুলাই ২০২১

নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি ঢাকা প্রিমিয়ার লিগেও। যে কারণে টেস্ট দলে তো প্রশ্নই ওঠে না, ওয়ানডে দলেও জায়গা হারিয়েছিলেন সৌম্য সরকার। কিন্তু তামিম ইকবালের ইনজুরি সৌম্যর কপালটা আবার ফিরিয়ে দিয়েছে হয়তো। তামিমের ইনজুরির কারণে একাদশে জায়গা ফিরে পেয়েই নিজেকে নতুন করে চেনালেন সৌম্য সরকার।

প্রথম ম্যাচেই পারফরম করেছিলেন সেরার মতই। ম্যাচ সেরার পুরস্কারও উঠেছে তার হাতে। বল হাতে ১৮ রান দিয়ে ১ উইকেট নেয়ার পাশাপাশি ব্যাট হাতে খেলেছেন দুর্দান্ত ইনিংস। ৪৫ বলে ৫০ রান করে রান আউট হয়েছিলেন।

দ্বিতীয় ম্যাচটি ছিল পুরো বাংলাদেশ দলের জন্যই হতাশার। সেখানে এককভাবে সৌম্য সরকারের কিছুই করার নেই। ওই ম্যাচে তিনি করেছিলেন কেবল ৮ রান।

আজ শেষ ম্যাচে ছিল বাংলাদেশের সামনে বড় চ্যালেঞ্জ। প্রথম দুই ম্যাচে ১-১ সমতায় থাকার কারণে আজকের ম্যাচটি ছিল ফাইনাল। কিন্তু এই ম্যাচেই কি না বাংলাদেশের সামনে ১৯৪ রানের অসম্ভব এক লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়েছে জিম্বাবুয়ে।

এতবড় রান তাড়া করতে যে দু’জনের বিস্তর অভিজ্ঞতা সেই মুশফিকুর রহীম আর তামিম ইকবাল দলে নেই। অতীতে তাদের ব্যাটে ভর করেই অনেক ম্যাচ জিতেছিল বাংলাদেশ। আজ কী হবে? তবে কী পরাজয় অবধারিত?

কিন্তু না, সিনিয়রদের অনুপস্থিতিতে সৌম্যরা দায়িত্ব নিতে জানেন এখন। দলের যখন সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন, তখনই ব্যাট হাতে দাঁড়িয়ে গেলেন সৌম্য। ৪৯ বলে ৬৮ রানের অনবধ্য এক ইনিংস খেলে বাংলাদেশের জয়কে সহজ করে দিয়েছেন সৌম্য। যার ফিনিশিং টেনেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং তরুণ শামীম হোসেন পাটোয়ারী (১৫ বলে অপরাজিত ৩১ রান)।

ব্যাট হাতে বিধ্বংসী হয়ে ওঠার আগেই বল হাতে নিজেকে কার্যকর প্রমাণ করেন সৌম্য। বল হাতে হাত ঘুরিয়ে তিনি নিয়েছিলেন ২ উইকেট। ৩ ওভারে ১৯ রান দিয়েছিলেন তিনি।

স্বাভাবিকভাবেই দুর্দান্ত নৈপূণ্য দেখানোর কারণে ম্যাচ সেরার পুরস্কার উঠলো সৌম্য সরকারের হাতে। একই সঙ্গে তিন ম্যাচের সিরিজে দুই ম্যাচেই সেরা। সুতরাং, স্বাভাবিকভাবেই সিরিজ সেরার পুরস্কারও উঠলো সৌম্য সরকারের হাতে।

আইএইচএস/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]