টানা ধকল, দেশে ফিরে তিনদিনের মাথায় প্র্যাকটিস পঞ্চম দিনে ম্যাচ

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৬:৩৩ পিএম, ২৭ জুলাই ২০২১

ফেব্রুয়ারিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ঢাকা আসা দিয়ে শুরু। মার্চ-এপ্রিলে ছিল নিউজিল্যান্ড সফর। এরপর এপ্রিলের তৃতীয় সপ্তাহে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে শ্রীলঙ্কা সফরে যাওয়া।

পাল্টা সফরে মে মাসে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে লঙ্কানদের ঢাকা আসা। সেটা শেষ করেই ৩১ মে থেকে প্রিমিয়ার লিগ। চললো জুনের শেষ ভাগ অবধি। তার দুদিন পরই আবার জিম্বাবুয়ে সফরে যেতে হয়েছে। এক মাসের বেশি সময় জিম্বাবুয়েতে অবস্থান।

পুরোটা সময় টিম হোটেলে জৈব সুরক্ষা বলয়ে থাকতে হয়েছে বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের। তার মানে দিন, মাসের হিসেব কষলে সেই ফেব্রুয়ারি থেকে আজ জুলাইয়ের ২৭ তারিখ; ৫ মাস পেরিয়ে ৬ মাসে পড়ছে। এ দীর্ঘ সময়ের প্রায় ৭০ ভাগ সময় সময় টাইগাররা হোটেলে জৈব সুরক্ষা বলয়ে ছিলেন।

পরিবার-পরিজন, বন্ধু বান্ধব, ইচ্ছেমত ঘোরাফেরা, গ্রামের বাড়ি যাওয়া, বিনোদন- সব বন্ধ। অতিবড় ঘরকুনো মানুষের পক্ষেও এতে করে স্বাভাবিক থাকা কঠিন। টাইগাররা সেই কঠিন কাজটিই করছে।

সে হিসেবে ধরলে জিম্বাবুয়ে সফরে অনেক ভালো করেছে টিম বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষকে তাদের মাটিতে টেস্ট ওয়ানডেতে হোয়াইটওয়াশ আর টি-টোয়েন্টি সিরিজে ২-১ ‘এ সিরিজ জয়; সব মিলে সফল মিশন শেষে বৃহস্পতিবার সকালে দেশে ফিরবে টাইগাররা।

দেশে ফিরেও ফুসরতের সুযোগ নেই। হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছেই সরাসরি টিম হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে জৈব সুরক্ষা বলয়ে ঢুকতে হবে বাংলাদেশ দলকে। ২৯ থেকে ৩১ জুলাই তিনদিন বিশ্রাম।

তারপর আবার অস্ট্রেলিয়ার সাথে ৫ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের জন্য নিজেদের তৈরি করা। ১ আগস্ট থেকে মিরপুরের শেরে বাংলায় প্র্যাকটিস।

২ দিনের অনুশীলনের পর ৩ আগস্ট সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি। তারপর এক সপ্তাহের ভেতরে অস্ট্রেলিয়ার সাথে (৩, ৪, ৬, ৭ ও ৯ আগস্ট) পাঁচটি টি-টোয়েন্টি খেলবে টাইগাররা। সব মিলে আবার সেই শারীরিক, মানসিক ধকল সামলে মাঠে ভালো পারফর্ম করার তাড়া।

এআরবি/এমএমআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]