টার্নিং উইকেট পেয়ে রোমাঞ্চিত অস্ট্রেলিয়ার টার্নার

স্পোর্টস ডেস্ক
স্পোর্টস ডেস্ক স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩:১৯ পিএম, ০১ আগস্ট ২০২১

বাংলাদেশের টার্নিং উইকেটের খেলার রোমাঞ্চ ঘিরে ধরেছে অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং অলরাউন্ডার অ্যাশটন টার্নারকে। প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ সফরে এলেও, এরই মধ্যে সতীর্থদের কাছ থেকে এখানের উইকেট ও কন্ডিশন সম্পর্কে ধারণা নিয়েছেন ২৮ বছর বয়সী এ ক্রিকেটার।

বাংলাদেশে আসার আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেও পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলেছে অস্ট্রেলিয়া। যেখানে ১-৪ ব্যবধানে হেরে গেছে অসিরা। ক্যারিবীয় সফরে দুই টি-টোয়েন্টি ও তিন ওয়ানডে ম্যাচে খেলেছেন টার্নার। তার মতে, দুই দেশের উইকেট কাছাকাছি চরিত্রেরই হবে।

মঙ্গলবার থেকে শুরু হতে যাওয়া সিরিজটিকে ঘিরে রোমাঞ্চিত টার্নার বলেছেন, ‘আমি রোমাঞ্চিত, প্রথমবার বাংলাদেশে এসেছি। ওয়েস্ট ইন্ডিজেও প্রথমবার সফর করে এলাম। এখানে যারা আগে খেলেছে, তাদের সঙ্গে কথা বলে বুঝলাম, সেখানে (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) যেসব উইকেটে খেলেছি, এখানে খুব ভিন্ন কিছু হবে না।’

রোববার ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়া থেকে সফরে এসে, এমন অনেক উইকেটেই খেলতে হবে, যেখানে স্পিন ধরে। স্পিনার হিসেবে আমি রোমাঞ্চিত যে এরকম উইকেট পাব, যেখানে স্পিনারদের সহায়তা থাকে। অস্ট্রেলিয়ায় এটা সবসময় পাওয়া যায় না।’

টার্নারের মূল পরিচয় অবশ্য ব্যাটসম্যান। পাশাপাশি করে থাকেন অফস্পিনও। বছর দুয়েক আগে কাঁধের সার্জারির পর থেকে বোলিংয়ে অনিয়মিত তিনি। তবে টার্নিং উইকেট পেয়ে বোলিংয়েও দলের জন্য অবদান রাখতে আশাবাদী টার্নার।

তিনি বলেন, ‘আমি সবসময়ই বোলিং ভালোবেসেছি। দূর্ভাগ্যজনকভাবে কাঁধের ইনজুরির কারণে বোলিংয়ে তেমন অবদান রাখতে পারিনি। আমার সবশেষ সার্জারির প্রায় দুই বছর হয়ে গেছে। এখন আমি নিজের বোলিং নিয়ে আশাবাদী, ভালো অনুভব করছি।’

টার্নার আরও যোগ করেন, ‘আমি হয়তো ম্যাচে খুব বেশি বোলিং করিনি। তবে পর্দার আড়ালে অনুশীলনে এদিকেও অনেক পরিশ্রম করেছি। যাতে অধিনায়কের হাতে অপশন আরও বাড়াতে পারিনি। আশা করছি এখান থেকে আমার বোলিংয়ের পরিমাণ বাড়তে থাকবে।’

বিকেলে প্রথম দিনের অনুশীলনে মাঠে যাবে অস্ট্রেলিয়া। এ বিষয়ে তিনি বলেছেন, ‘ঢাকায় আসার পর প্রথম তিন দিন আইসোলেশনে ছিলাম। বিকেলে অনুশীলন আছে। দলের কয়েকজন আগে এই মাঠে খেলেছে। কন্ডিশন দেখতে, অনুশীলন করতে এবং মঙ্গলবারের ম্যাচের জন্য নিজেদের যতটা সম্ভব প্রস্তুত করে তুলতে মুখিয়ে আছি।’

এসএএস/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]